ইউক্রেন সংকটের মাঝে নির্বাচনি ধাক্কা খেলেন শলৎস | বিশ্ব | DW | 09.05.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

ইউক্রেন সংকটের মাঝে নির্বাচনি ধাক্কা খেলেন শলৎস

এক রাজ্য নির্বাচনে জার্মান চ্যান্সেলর শলৎসের এসপিডি দলের ভরাডুবি হয়েছে৷ আগামী রোববার আরেক নির্বাচনে জয়ের মুখ না দেখলে শলৎসের নেতৃত্ব প্রশ্নের মুখে পড়তে পারে৷

জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎস

জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎস

ইউক্রেন সংকটকে ঘিরে জার্মানির মূল স্রোতের রাজনৈতিক দলগুলির মধ্যে মৌলিক ঐকমত্য সত্ত্বেও নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেমে নেই৷ একের পর এক রাজ্যে নির্বাচনের ফল তা স্পষ্ট করে দিচ্ছে৷ মূলত রাজ্য স্তরের নেতাদের জনপ্রিয়তা ও রাজ্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ বিষয় প্রাধান্য পেলেও সম্প্রতি ইউক্রেন যুদ্ধের ফলে মূল্যস্ফীতি ও জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধির মতো বিষয় যে জার্মানির সাধারণ মানুষের মনে দুশ্চিন্তা সৃষ্টি করছে, সে বিষয়ে কোনো সংশয় নেই৷

জনবিরল সারল্যান্ড রাজ্যে কয়েক সপ্তাহ আগে চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎসের সামাজিক গণতন্ত্রী এসপিডি দল একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে চমক সৃষ্টি করেছিল৷ রোববার উত্তরের শ্লেসভিগ হলস্টাইন রাজ্যের নির্বাচনে বিরোধী রক্ষণশীল সিডিইউ দল প্রায় সে রকমই সাফল্য পেয়ে চাঙা হয়ে উঠেছে৷ এবার আগামী রোববার জার্মানির সবচেয়ে জনবহুল রাজ্য নর্থরাইন ওয়েস্টফেলিয়ার নির্বাচনের ফলাফলের দিকে সবার নজর থাকবে৷ সেখানে জনমত সমীক্ষায় আপাতত এসিপিডি এবং সিডিইউ প্রায় সমান সমর্থন পাচ্ছে৷

আঞ্চলিক নির্বাচনের রসায়নের উপর জাতীয় বা আন্তর্জাতিক বিষয়গুলি সাধারণত তেমন প্রভাব ফেলা না৷ তবে চলমান ইউক্রেন সংকটে চ্যান্সেলর শলৎসের নেতৃত্ব নিয়ে অনেক মহলে সংশয় এসপিডি দলের প্রতি সমর্থনের উপর কুপ্রভাব ফেলছে কিনা, শ্লেসভিগ হলস্টাইনে ঐতিহাসিক বিপর্যয়ের পর সে বিষয়ে প্রশ্ন উঠছে৷ এমনকি সবুজ দল দ্বিতীয় স্থান দখল করে এসপিডি-কে তালিকায় তৃতীয় স্থানে ঠেলে দিয়েছে৷

গত এক বছরে একের পর এক নির্বাচনে পরাজয়ের পর বিরোধী সিডিইউ দল অবশেষে সাফল্যের স্বাদ পেয়ে আপ্লুত৷ শ্লেসভিগ হলস্টাইন রাজ্যের জনপ্রিয় মুখ্যমন্ত্রী ডানিয়েল গ্যুন্টার এমন জয়ের মূল দাবিদার হলেও সার্বিকভাবে ইউনিয়ন শিবির চাঙ্গা হয়ে উঠছে৷ সিডিইউ দলের বর্তমান নেতা ফ্রিডরিশ ম্যার্ৎসের একদা প্রতিদ্বন্দ্বি হিসেবে পরিচিত হলেও গ্যুন্টার আপাতত দলের জন্য সুখবর বয়ে এনেছেন৷ ম্যার্ৎসও সেই সাফল্য উপভোগ করছেন৷

রোববারের আঞ্চলিক নির্বাচনে চরম দক্ষিণপন্থি এএফডি খারাপ ফল করায় রাজনৈতিক মহলে স্বস্তি দেখা যাচ্ছে৷ ন্যূনতম পাঁচ শতাংশ ভোট না পাওয়ায় সে দল রাজ্য বিধানসভায় স্থান পাবে না৷ এই প্রথম সেই দলের এমন দশা হলো৷ অন্তর্দ্বন্দ্বকেই এমন ভরাডুবির জন্য দায়ী করছে দলের একটা বড় অংশ৷

বার্লিনে জোট সরকারের শরিক হলেও রোববারের নির্বাচনে ফায়দা তুলতে পেরেছে পরিবেশবাদী সবুজ দল ও উদারপন্থি এফডিপি৷ শ্লেসভিক হলস্টাইন রাজ্যে ভবিষ্যতেও সিডিইউ দলের নেতৃত্বে জোট সরকারে অংশ নিতে পারে এই দুই দল৷

এসবি/এসিবি (ডিপিএ, এপি)