ইউক্রেন যুদ্ধ: সমৃদ্ধি থেমে যাওয়ার আশঙ্কায় জার্মানেরা | বিশ্ব | DW | 28.06.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

ইউক্রেন যুদ্ধ: সমৃদ্ধি থেমে যাওয়ার আশঙ্কায় জার্মানেরা

ইউক্রেন যুদ্ধ এবং মুদ্রাস্ফীতির কারণে জার্মানরা তাদের জীবনযাপনের মান নিয়ে উদ্বিগ্ন হতে শুরু করেছে৷ যাদের অর্থনৈতিক অবস্থা দুর্বল, তারা সবচেয়ে বেশি ভুগছেন৷

বার্লিনের সবচেয়ে ইন্সটাগ্রামবান্ধব শহরতলীতে গেলে আপনি হয়ত মুদ্রাস্ফীতি, পণ্যের মূল্যবৃদ্ধি বা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ইউরোপে আবার যে যুদ্ধ চলছে তার প্রভাব টের পাবেন না৷ সেখানকার বার এবং রেস্তোরাঁগুলো কানায় কানায় পূর্ণ৷ গ্রীষ্মের উষ্ণতা পুরোপুরি উপভোগ করতে কোনো কমতি রাখছেন না স্থানীয় বাসিন্দা এবং পর্যটকরা৷  

অবকাশমূলক কর্মকাণ্ডের খরচ এবং বিভিন্ন পণ্যের দাম বেড়ে গেছে, তাসত্ত্বেও আভোগাডো টোস্ট আর ব্রেডের চাহিদা কমেছে বলে মনে হচ্ছে না৷ কারণ হচ্ছে যাদের আয় একটু বেশি তারাই সাধারণত এই এলাকায় সময় কাটান৷ এমন মানুষদের কাছে কিছু ইউরো দামের ব্যবধান তেমন একটা ভাবনার বিষয় নয়৷ 

বার্লিনের জনপ্রিয় ফ্রিডরিশহাইন শহরতলীর ব্লাওয়ে ব্যোহনে ব্যারিস্তার স্টেফানি লিঞ্চ বলেন, ‘‘সবকিছুর দাম বেড়েছে৷ পেপার কাপ, কাপবোর্ড, ব্যাগ যার মধ্যে আমরা কফি রাখি - সবকিছুর দামই বেড়েছে৷''

বেশ কিছু বছর দাম একই রাখার পর সম্প্রতি ক্যাফেটির বিভিন্ন খাবার ও পানীয়র দাম বাড়িয়েছেন লিঞ্চ৷ করোনার কারণে পণ্য সরবরাহে বিঘ্ন ঘটা, ব্রাজিলে কফি বীজ উৎপাদন ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া এবং গত বছর সুয়েজ ক্যানেল আটকে যাওয়ায় সৃষ্ট ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নেন তিনি৷

পরিস্থিতি সামাল দিতে অদূর ভবিষ্যতে আরো একবার পণ্যের মূল্যবৃদ্ধির চিন্তা করছেন তিনি৷ আর তাতে তার খদ্দের তেমন একটা কমবে বলেও মনে হচ্ছে না৷

মূল্যস্ফীতির কারণে ক্ষতির শিকার ভোক্তারা

মূল্যস্ফীতির হার গত বছরের একই সময়ের তুলনায় বর্তমানে আট শতাংশ বেশি৷ ভোক্তা পর্যায়ে জ্বালানি এবং খাদ্যদ্রব্যের দাম যথাক্রমে ৩৮ শতাংশ এবং ১১ শতাংশ বেড়েছে৷

এই পরিস্থিতি এখনো ভালো আয় করা মানুষদের পক্ষে সামলানো সহজ হচ্ছে, তবে যাদের বেতন যত কম, তাদের ভোগান্তি তত বেশি হচ্ছে৷

জার্মান ইন্সটিটিউট ফর ইকোনোমিক রিসার্চের জ্যেষ্ঠ গবেষক মার্কুস গ্রাবাস্কা বলেন, ‘‘অবশ্যই বর্তমান সংকটের পরিনতি সরাসরি অনুভব হচ্ছে৷ নিম্নআয়ের মানুষরা জ্বালানি খরচ বাড়ায় মধ্য ও বেশি আয়ের মানুষদের তুলনায় বেশি ভুগছেন৷''

ভোজ্যতেল, আটা, মাংস, দুধ এবং ডিমের মতো খাদ্যপণ্যের দাম কয়েকমাস আগের তুলনায় অনেক বেড়েছে৷ ইন্স্যুরেন্স প্রতিষ্ঠান আলিয়ান্ত্স ট্রেডের হিসেবে জনপ্রতি খাবারের খরচ এবছর আগের তুলনায় আড়াইশো ইউরো বাড়তে পারে৷

বাড়তি এই খরচের ধকল সামলানো নিম্নআয়ের মানুষের জন্য বেশ কঠিন৷ জার্মানিতে অবসরে থাকা মানুষদের মধ্যে পাঁচ লাখ ৬০ হাজার জনের সরকারি সহায়তা প্রয়োজন হয় কেননা তারা যে টাকা অবসর ভাতা পান তা জার্মানিতে চলার জন্য যথেষ্ট নয়৷ খাদ্য এবং জ্বালানি খরচ বাড়ায় তাদের উপর চাপ আরো বাড়ছে৷

বাড়ি কেনা কঠিন হবে

জার্মানির মাত্র ৪২ শতাংশ মানুষের নিজের বাড়ি রয়েছে৷ মূল্যস্ফীতির কারণে নতুন যারা বাড়ি কিনতে চাচ্ছেন তাদের পক্ষে বিষয়টি কঠিন হয়ে যাচ্ছে কারণ কেন্দ্রীয় ব্যাংক বাড়ির দামে লাগাম টানতে গৃহঋণের সূদের হার বাড়িয়ে দিয়েছে৷

জার্মানির বিভিন্ন অঞ্চলে আবাসন সংকট রয়েছে৷ ইউরোপের দেশটিতে কিছুদিন আগেও গৃহঋণের ক্ষেত্রে সূদের হার এক শতাংশ বা তার কম ছিল৷ কিন্তু সেই সুখের সময় কার্যত শেষ হয়ে গেছে মনে হচ্ছে৷

গত কয়েকমাসে গৃহঋণে সূদের হার তিন শতাংশের উপর উঠে গেছে গত এক দশকের মধ্যে যা সর্বোচ্চ৷ ফলে কেউ বাড়ি কিনলে এখন আগের চেয়ে বেশ কয়েক হাজার বা লাখ ইউরো বেশি খরচ করতে হবে৷

মোক্ষম আঘাত

করোনা মহামারির কারণে চাহিদা এবং সরবরাহ ব্যবস্থা এলোমেলো হয়ে গেছে৷ জার্মানি মহামারির সময়ে সাধারণ মানুষের ভোগান্তি কমাতে নানা উদ্যোগ নিয়েছিল, বিশেষ করে দেশব্যাপী যখন করোনা ঠেকাতে ‘লকডাউন' চলছিল তখন৷ সেই পরিস্থিতি শেষ হতে না হতেই ইউক্রেন যুদ্ধ সবক্ষেত্রে বিপাকে ফেলেছে সরকারকে৷

আর প্রয়োজনীয় পণ্য ঘাটতির কারণে শুধু বড় বড় প্রতিষ্ঠানগুলো চাহিদা অনুযায়ী গাড়ি এবং স্মার্টফোন বানাতে ব্যর্থ হয়েছে এমন নয়, ছোট ছোট প্রতিষ্ঠানও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে৷ বার্লিনের সাইকেলের দোকানগুলোও অনেকক্ষেত্রে খদ্দেরদের ফিরিয়ে দিচ্ছে কারণ তাদের কাছে অনেক পণ্য নেই৷ আগে সাইকেল সারাতে যেখানে একদিন লাগতো, সেটা এখন কয়েক সপ্তাহে গিয়ে পৌঁছেছে৷  

জ্বালানি খরচ কমার লক্ষণ নেই

জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি কোথায় গিয়ে ঠেকবে তা নিয়ে অর্থনৈতিবিদদের মধ্যে নানা বিতর্ক রয়েছে৷ তবে একটি বিষয়ে তারা একমত, এর প্রভাব ভোক্তারা দীর্ঘদিন ধরে টের পাবেন৷ জার্মানির অর্থমন্ত্রী ক্রিস্টিয়ান লিন্ডানার বলেন, ‘‘আমার আশঙ্কা হচ্ছে আমরা কয়েক সপ্তাহ বা মাসের মধ্যে খুব উদ্বেগজনক পরিস্থিতির মধ্যে পড়তে যাচ্ছি৷ আমরা তিন, চার বা পাঁচ বছরের জন্য সংকটের মধ্যে থাকতে পারি যা থেকে বের হওয়ার পথ খোঁজা হচ্ছে৷''

উইলিয়াম নোয়া গ্লুক্রাফট / এআই

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়