ইউক্রেনে ভারী অস্ত্র সরবরাহ নিয়ে জার্মানরা বিভক্ত | বিশ্ব | DW | 03.05.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

ইউক্রেনে ভারী অস্ত্র সরবরাহ নিয়ে জার্মানরা বিভক্ত

ইউক্রেনের প্রতি সামরিক সহায়তার সিদ্ধান্ত নিয়ে জার্মান জনগণ দ্বিধায় ভুগছে। অনেকে আশঙ্কা করছেন ইউক্রেনে ট্যাঙ্ক সরবরাহ এবং জার্মানিতে ইউক্রেনীয় সেনাদের প্রশিক্ষণের কারনে দেশটিকে যুদ্ধে যেতে হতে পারে।

জার্মান জনসাধারণের প্রবল চাপের পরে জার্মান সরকার গত সপ্তাহে ঘোষণা করেছে তারা ইউক্রেনে ট্যাঙ্ক পাঠাবে। এই ঘোষণার একদিন পরে বামপন্থি ক্ষমতাসীন জোট সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটস, গ্রীন পার্টি এবং নিও লিবেরাল ফ্রি ডেমোক্র্যাটস তাদের প্রধান বিরোধী পক্ষ ডান পন্থি ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্র্যাটসদের সাথে এক হয়ে সরকারের এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন করেছেন। 

(Polling institute) জরিপ সংস্থা ইনফ্রাটেস্ট ডিমাপ ১৩০০ জার্মান ভোটারের ওপর জরিপ চালিয়েছে। যেখানে দেখা গেছে তাদের মধ্যে ৪৫% মানুষ ইউক্রেনে এই ভারী অস্ত্র প্রেরণের সিদ্ধান্তকে সমর্থন করছেন। জরিপকৃতদের মধ্যে ৫২% জনগণ রাশিয়ার বিরুদ্ধে আরো কঠোর পদক্ষেপের আশা করেন।

গত ২৯শে এপ্রিল নারীবাদি ম্যাগাজিন ‘এমা' র ওয়েবসাইটে চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎসকে উদ্দেশ্য করে একটি খোলা চিঠি প্রকাশিত হয়। সেখানে ২৮ জন জার্মান সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্ব সই করে ইউক্রেনে ভারী অস্ত্র না পাঠানোর আহবান জানান।

ইউক্রেনে অস্ত্র সরবরাহের এই সিদ্ধান্তের কারনে চ্যান্সেলর শলৎস জনগণের সমর্থন হারাচ্ছেন। ইনফ্রাটেস্ট ডিমাপের জরিপ অনুযায়ী জরিপকৃত প্রায় অর্ধেক জনগন শলৎসের সিদ্ধান্তে সমর্থন দিচ্ছেন না।

গণমাধ্যম সংস্থা এআরডিতে প্রকাশিত এক জরিপে অংশগ্রহনকারী ৫৪% জনগণ জানান তারা রাশিয়ান গ্যাস এবং তেলের আমদানি ক্রমান্বয়ে বন্ধ করতে চাইছে, যেখানে সরকার যত দ্রুত সম্ভব রাশিয়ার জ্বালানি শক্তির বিকল্প খোঁজার দিকে কাজ করছে। এর মাধ্যমে জনগণের মধ্যে সরকারের অবস্থান প্রতিফলিত হয়েছে। 

মারসেল ফুরস্টেনাউ/ কেএম

নির্বাচিত প্রতিবেদন