ইউক্রেনে অস্ত্র পাঠানো নিয়ে জার্মানি-পোল্যান্ড দ্বন্দ্ব | বিশ্ব | DW | 25.05.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইউক্রেন সংকট

ইউক্রেনে অস্ত্র পাঠানো নিয়ে জার্মানি-পোল্যান্ড দ্বন্দ্ব

পোল্যান্ড ইউক্রেনের হাতে সোভিয়েত আমলের ট্যাংক তুলে দিলে জার্মানি সেই শূন্যস্থান পূরণের অঙ্গীকার করেছে৷ পোল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট প্রতিশ্রুতিভঙ্গের অভিযোগ করায় কূটনৈতিক তৎপরতা শুরু হয়েছে৷

ইউক্রেনের উপর রাশিয়ার হামলার শুরু থেকে অ্যামেরিকাসহ পশ্চিমা বিশ্বের অনেক দেশ কিয়েভের পাশে দাঁড়িয়েছে৷ দ্রুত দ্বিধা ঝেড়ে ফেলে ইউক্রেনকে সামরিক ও আর্থিক সহায়তা দিয়ে চলেছে অনেক দেশ৷ তুলনামূলকভাবে কিছুটা দেরিতে হলেও জার্মানিও বাস্তবে বিপুল সহায়তা দিয়ে চলেছে৷ কিন্তু প্রায়ই অঙ্গীকার ও বাস্তব পদক্ষেপের মধ্যে বিস্তর ফারাকের কারণে জার্মান সরকার ঘরে-বাইরে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়ছে৷ ইউক্রেনের সরকার বার বার জানাচ্ছে, যে কাগজেকলমে অস্ত্র ও সামরিক সরঞ্জাম সরবরাহের প্রতিশ্রুতি দিলেও জার্মানি বাস্তবে অযথা বিলম্ব করছে৷ ফলে যুদ্ধক্ষেত্রে জরুরি অস্ত্রের অভাবে ইউক্রেনের সেনাবাহিনীর সমস্যা হচ্ছে৷ এমনকি জার্মানির সদিচ্ছা নিয়েও ইউক্রেনের রাজনৈতিক মহলে প্রশ্ন উঠছে৷

এবার পোল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট আনজেই দুদা জার্মানির বিরুদ্ধে প্রতিশ্রুতিভঙ্গের অভিযোগ এনেছেন৷ পোল্যান্ডসহ পূর্ব ইউরোপের অনেক দেশের সোভিয়েত আমলে তৈরি যে সব  সামরিক সরঞ্জাম রয়েছে, সেগুলি দ্রুত ইউক্রেনে পাঠানোর প্রস্তাব দিয়েছিল জার্মানি৷ শূন্যস্থান পূরণ করতে জার্মানিতে তৈরি সামরিক সরঞ্জাম হস্তান্তর করার কথা৷ পোল্যান্ডের প্রেসিডেন্টের দাবি, জার্মানি মোটেই পোল্যান্ডকে ট্যাংক সরবরাহের সেই প্রতিশ্রুতি পালন করছে না, যা গভীর হতাশার কারণ হয়ে উঠছে৷ দুদা বলেন, জার্মানির আশ্বাসের ভিত্তিতে পোল্যান্ড এপ্রিল মাসেই ইউক্রেনে অনেকগুলি ‘টি-৭২’ ট্যাংক পাঠিয়েছে৷ 

এমন অভিযোগের মুখে কূটনৈতিক পথে বিষয়টি নিয়ে ‘ভুল বোঝাবুঝি’ কাটানোর উদ্যোগ নিচ্ছে জার্মানি৷ জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনালেনা বেয়ারবক ও পোল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সবিগনিয়েফ রাউ মঙ্গলবার বার্লিনে এক বৈঠকে এই সমস্যা সমাধানের ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন৷ বেয়ারবক বলেন, জার্মানির পক্ষে সব সময়ে চটজলদি ভারি অস্ত্র সরবরাহ সম্ভব নয়৷ অনেক ক্ষেত্রে সেগুলির মেরামতির প্রয়োজন হয় বা না থাকলে নতুন করে অর্ডার দিতে হয়৷ এ ক্ষেত্রে ধারাবাহিক যোগাযোগের মাধ্যমে ভুল বোঝাবুঝি এড়ানোর প্রস্তাব দেন তিনি৷ রাউ বলেন, আসলে খুঁটিনাটি বিষয়গুলির মধ্যেই এমন দ্বন্দ্বের অবকাশ রয়েছে৷ তবে সমস্যা মেটানোর জন্য সদিচ্ছার অভাব নেই৷ তার মতে, জার্মানি ও পোল্যান্ডের জন্য দুঃখজনক হলেও ইউক্রেন ও ইউরোপের পূর্বাংশের জরুরি পরিস্থিতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে প্রয়োজন মেটানো সবসময়ে সম্ভব হচ্ছে না৷ 

জার্মানির ‘ডেয়ার স্পিগেল’ পত্রিকার সূত্র অনুযায়ী পোল্যান্ড জার্মানির কাছে সর্বাধুনিক লেপার্ড ট্যাংক দাবি করেছে বলেই বিলম্ব হচ্ছে৷ কারণ খোদ জার্মান সেনাবাহিনীর হাতেই সেই মডেলের যথেষ্ট ট্যাংক নেই৷ 

পোল্যান্ডের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে মনোমালিন্য সত্ত্বেও চেক প্রজাতন্ত্রের সঙ্গে জার্মানির বোঝাপড়ায় এখনো কোনো সমস্যা দেখা দেয় নি৷ গত সপ্তাহে চেক সরকার জানিয়েছে, যে ইউক্রেনকে ‘টি-৭২’ ট্যাংক পাঠানোর পর জার্মানি ১৫টি ‘লেপার্ড ২ এ-ফোর সরবরাহ করেছে৷ 

এসবি/কেএম (ডিপিএ, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়