ইউক্রেনের জন্য আরও সহায়তার উদ্যোগ নিচ্ছে বার্লিন | বিশ্ব | DW | 12.05.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

ইউক্রেনের জন্য আরও সহায়তার উদ্যোগ নিচ্ছে বার্লিন

জার্মান চ্যান্সেলর শলৎস ও ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি টেলিফোনে আরও নিবিড় যোগাযোগ ও সহায়তার অঙ্গীকার করেছেন৷ ইউক্রেনের সৈন্যরা জার্মানিতে অস্ত্র প্রশিক্ষণ শুরু করে দিয়েছে৷

কিয়েভ সফরে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির সঙ্গে জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনালেনা বেয়ারবকের সাক্ষাতের মুহূর্ত

কিয়েভ সফরে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির সঙ্গে জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনালেনা বেয়ারবকের সাক্ষাতের মুহূর্ত

জার্মানি ও ইউক্রেনের মধ্যে রাজনৈতিক সম্পর্কের বরফ গলার পর থেকে দুই সরকারের মধ্যে যোগাযোগ আরও নিবিড় হচ্ছে৷ ইতোমধ্যে কিয়েভ সফর করেছেন জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনালেনা বেয়ারবক৷ জার্মান সংসদের নিম্ন কক্ষ বুন্ডেসটাগের প্রেসিডেন্ট বেয়ার্বেল বাসও ইউক্রেনে গেছেন৷ জার্মান প্রেসিডেন্ট ফ্রাংক ভাল্টার স্টাইনমায়ার ও চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎস এখনো সে দেশে পা না রাখলেও ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদোমির জেলেনস্কির সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ রেখে চলেছেন৷ বুধবার জেলেনস্কি ও শলৎস প্রায় এক ঘণ্টা টেলিফোনে কথা বলেন৷ উল্লেখ্য, ফেব্রুয়ারি মাসে রাশিয়ার হামলা শুরু হবার পর থেকে দুই সরকার প্রধান বেশ কয়েকবার টেলিফোনে কথা বলেছেন৷ জেলেনস্কি জার্মান প্রেসিডেন্ট ও চ্যান্সেলরকে কিয়েভ সফরের আমন্ত্রণও জানিয়েছেন৷

রাশিয়ার হামলার শুরু থেকেই জার্মানি ইউক্রেনকে নানা সহায়তা দিয়ে আসছে, যদিও কিয়েভ বার বার আরও প্রত্যাশার কথা জানিয়েছে৷ জার্মান সরকারের মুখপাত্র স্টেফেন হেবেস্ট্রাইট জানান, বুধবারের আলোচনায় দুই সরকার প্রধান আরও বাস্তবসম্মত ও স্পষ্ট সহায়তার উপর জোর দেন এবং পরস্পরের মধ্যে নিবিড় যোগাযোগের অঙ্গীকার করেন৷ জেলেনস্কি জার্মান চ্যান্সেলরকে হিংসা বন্ধ করতে রাশিয়ার সঙ্গে সংলাপের বিষয়েও বিস্তারিত জানান৷ শলৎস অবিলম্বে ইউক্রেনে হিংসা বন্ধ করে সে দেশ থেকে রুশ সেনা প্রত্যাহার ও সার্বভৌমত্ব পুনঃপ্রতিষ্ঠার উপর জোর দেন৷ জেলেনস্কির সঙ্গে সংলাপে স্বাধীন ইউক্রেনের প্রথম প্রেসিডেন্ট লেওনিদ ক্রাভচুকের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেন জার্মান চ্যান্সেলর৷

জেলেনস্কি নিজে এক টুইট বার্তায় লেখেন, ‘‘চ্যান্সেলর শলৎসের সঙ্গে নিয়মিত আলোচনা চালিয়েছি৷ প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে সহায়তা, জ্বালানি ক্ষেত্রে সহযোগিতা, রুশ আগ্রাসনকারীর উপর আরও নিষেধাজ্ঞা নিয়ে কথা হয়েছে৷ জার্মানির সঙ্গে উচ্চ পর্যায়ের সংলাপ ও আমাদের সংগ্রামে সে দেশের সমর্থনের জন্য আমরা কৃতজ্ঞ৷''

জার্মানি থেকে সামরিক সহায়তার ধীর গতি সম্পর্কে সম্প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করছেন ইউক্রেনের অনেক নেতা৷ প্রতিশ্রুতি সত্ত্বেও অনেক অস্ত্র ও সামরিক সরঞ্জাম ইউক্রেনে পাঠাতে অনেক সময় লাগছে বলে অভিযোগ উঠছে৷ বুধবার থেকে ৬০ জন ইউক্রেনীয় সৈন্য জার্মানিতে ‘পানৎসারহাউবিৎসে ২০০০' নামের কামান প্রণালী ব্যবহারের প্রশিক্ষণ শুরু করায় সেই ক্ষোভ কিছুটা প্রশমিত হবে বলে আশা করা হচ্ছে৷ জার্মানি এমন সাতটি কামান ইউক্রেনে সরবরাহের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে৷

বার্লিনে নিযুক্ত ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত আন্দ্রি মেলনিক জার্মান চ্যান্সেলরের উদ্দেশ্যে জার্মান অস্ত্র কোম্পানিদের নিয়ে এক ‘যুদ্ধকালীন শীর্ষ বৈঠক' আয়োজনের আহ্বান জানিয়েছেন, যেখানে অবিলম্বে ভারি অস্ত্র সরবরাহ তরান্বিত করা হবে৷ মেলনিকের মতে, এভাবে বুন্ডেসটাগে অনুমোদিত প্রস্তাব বাস্তবায়ন করা সম্ভব৷

শলৎস নিজে কবে কিয়েভ সফর করবেন, সে বিষয়ে এখনো স্পষ্ট কোনো ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে না৷ ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁর সঙ্গে যৌথ সফরের সম্ভাবনার কথা শোনা গেলেও তেমন কোনো পরিকল্পনা এখনো বাস্তবায়িত হয় নি৷ তবে জি-সেভেন গোষ্ঠীর বর্তমান সভাপতি হিসেবেও জার্মানি রাশিয়ার বিরুদ্ধে আরও কড়া পদক্ষেপ এবং ইউক্রেনের সহায়তার বিষয়ে সমন্বয়ের উদ্যোগ চালিয়ে যাচ্ছে৷ বৃহস্পতিবার জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী বেয়ারবক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ক্যানাডা, ব্রিটেন, ফ্রান্স, ইটালি ও জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে বসছেন৷

এসবি/কেএম (ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন