1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
বাংলাদেশ ও ইইউর পতাকা
বাংলাদেশ ও ইইউর পতাকাছবি: Viacheslav Chernobrovin/Zoonar/picture alliance

ইইউর সঙ্গে বাংলাদেশের পারস্পরিক সহযোগিতা চুক্তি

হারুন উর রশীদ স্বপন ঢাকা
২৫ নভেম্বর ২০২২

ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)-এর সঙ্গে পার্টনারশিপ কো-অপারেশন অ্যাগ্রিমেন্ট (পিসিএ) করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ৷ এই চুক্তির ভিত্তি হবে গণতন্ত্র, সুশাসন, মানবাধিকার এবং ইন্দো-প্যাসিফিক কৌশল৷

https://p.dw.com/p/4K4zM

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঢাকায় ইইউ'র সাথে বাংলাদেশের প্রথমবারের মতো সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়৷ সংলাপে বাংলাদেশ দলের নেতৃত্ব দেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম৷ ইইউ'র পক্ষে নেতৃত্ব দেন ইইউ'র বৈদেশিক কার্যক্রম দেখভালের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপমহাসচিব এনরিকে মোরা৷ সংলাপে দুই পক্ষই পার্টনারশিপ কো-অপারেশন চুক্তি করতে সম্মত হয়৷

বৈঠকের মাঝামাঝি সময়ে যৗথ সংবাদ সম্মেলনে ওই চুক্তি সুবিধাজনক যে কোনো সময়ে করা হবে বলে জানানো হয়৷ এই চুক্তি হলে বাংলাদেশের সঙ্গে ইইউর সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় যাবে বলে মনে করা হচ্ছে৷

আলোচনা ও চুক্তি নিয়ে যা বললেন

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘ইইউ নিরাপত্তাসহ নানা ইস্যুতে আমাদের কাজ করতে আগ্রহ দেখিয়েছে, যার মধ্যে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ দমন, ইন্টারনেট সিকিউরিটি, অর্গ্যানাইজড ক্রাইম, জলবায়ু পরিবর্তন, অভিবাসন, বাণিজ্য ও বিনিয়োগের মতো বিষয় রয়েছে৷’’

বৈঠকে রোহিঙ্গা সংকটের মানবিক, নিরাপত্তা ও প্রত্যাবাসনের দিক নিয়েও আলোচনা হয়৷

এছাড়া বাংলাদেশের সঙ্গে প্রতিবেশী দেশসহ জাতিসংঘের সদস্য বিভিন্ন দেশের সম্পর্ক, ইউক্রেন যুদ্ধ,খাদ্য নিরাপত্তা ও অর্থনৈতিক নিরাপত্তা কিভাবে আরো সুসংহত করা যায় তা নিয়ে আলোচনা হয়৷

ইইউ প্রতিনিধি দলের প্রধান এনরিকো মোরা বলেন, ‘‘আমাদের সম্পর্ক নতুন স্তরে নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে আমরা আলোচনা করছি, যার মূল ভিত্তি গণতন্ত্র, সুশাসন ও মানবাধিকার৷ সামনে আমরা অংশীদারিত্ব সহযোগিতা চুক্তি করবো৷’’ গত ১০ বছরে বাংলাদেশ অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘‘মূলত দুটি কারণে বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ককে এগিয়ে নিতে চায় ইইউ৷ এক. বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক উন্নয়ন, দুই. ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলের কেন্দ্রবিন্দুতে বাংলাদেশের ভৌগোলিক অবস্থান৷’’ তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘‘ইন্দো-প্যাসিফিক কিংবা রাশিয়া- ইউক্রেন যুদ্ধসহ কোনো ইস্যুতেই বাংলাদেশের ওপর কিছু চাপিয়ে দিতে চায় না ইইউ৷ বরং ঢাকার স্বাধীন সিদ্ধান্তের প্রতি আমাদের সম্মান রয়েছে৷’’

বাণিজ্য- বিনিয়োগ

সম্প্রতি ‘স্ট্রেংদেনিং বাংলাদেশ-ইউ ট্রেড অ্যান্ড ইকোনমিক কো-অপারেশন: ইস্যুজ অ্যান্ড পলিসি প্রায়োরিটিজ’ শিরোনামে এক গবেষণায় বলা হয়েছে, ইউরোপের ২৭ দেশে বছরে বাংলাদেশ এখন ২৩ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রপ্তানি করে৷ এর পরিমাণ আরো ১৮ বিলিয়ন বাড়ানো সম্ভব সক্ষমতা ও পণ্যের বৈচিত্র্য বাড়িয়ে৷ ২০০০-২০০১ সালে ইউকে এবং ইইউতে বাংলাদেশের মোট রপ্তানি ছি ২.৫ বিলিয়ন ডলারের৷ গত ২০-২১ বছরে তা এখন ১০ গুণ বেড়ে ২৫ বিলিয়ন ডলার হয়েছে৷ ইউরোপে বাংলাদেশের রপ্তানি পণ্যের শতকরা ৯০ ভাগই তৈরি পোশাক৷

আর ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলো থেকে নেট এফডিআই প্রবাহ গত পাঁচ বছরে ৩.৫ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে, যা এই সময়ের মধ্যে মোট এফডিআই প্রবাহের প্রায় এক চতুর্থাংশ৷

এই সময়ে সুশাসন, মানবাধিকার, গণতন্ত্র এই বিষয়গুলো যে-কোনো দেশের জন্যই গুরুত্বপূর্ণ: ড. সেলিম রায়হান

উন্নত প্রযুক্তি এবং প্রযুক্তি জ্ঞান দরকার

সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকোনমিক মডেলিং (সানেম)-এর নির্বাহী পরিচালক এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. সেলিম রায়হান বলেন, ‘‘ইউরোপীয় ইউনিয়ন আমাদের বড় বাণিজ্যিক অংশীদার৷ আমরা সেখানে এখন যে বাণিজ্যিক সুবিধা পাই, তা ২০২৬ সালে এলডিসি গ্র্যাজুয়েশন করার পর আরো তিন বছর পাবো৷ তবে আমাদের রপ্তানি পণ্যের অধিকাংশই হলো গার্মেন্ট প্রোডাক্ট৷ এখানে বৈচিত্র্য দরকার৷ সহযোগিতা চুক্তির ফলে আমরা যদি উন্নত প্রযুক্তি এবং প্রযুক্তিজ্ঞান পাই, তাহলে সেটা আমাদের জন্য অনেক লাভজনক হবে৷ আমাদের পণ্যের মান বাড়ানো এবং পণ্যের ভ্যারিয়েশন বাড়ানো সম্ভব হবে৷ আর বিনিয়োগ আমরা আকৃষ্ট করতে পারবো৷’’

তার কথা, ‘‘এই সময়ে সুশাসন, মানবাধিকার, গণতন্ত্র- এই বিষয়গুলো যেকোনো দেশের জন্যই গুরুত্বপূর্ণ৷ এটা কোনো চুক্তিতে থাকা না থাকার বিষয় নয়৷ অবশ্যই বাংলাদেশকে নিজের প্রয়োজনেই এই বিষয়গুলোর উন্নয়ন ঘটাতে হবে৷ ইইউ এটা খেয়াল রাখবে৷’’

অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও ভূ-রাজনৈতিক গুরুত্বের কারণে বাংলাদেশের প্রতি সারা বিশ্বেরই আগ্রহ বাড়ছে: শহীদুল হক

বাংলাদেশের অর্থনীতি এবং ভূ-রাজনৈতিক গুরুত্ব

সাবেক রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল (অব.) শহীদুল হক মনে করেন, ‘‘অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং ভূ-রাজনৈতিক গুরুত্বের কারণে বাংলাদেশের প্রতি সারা বিশ্বেরই আগ্রহ বাড়ছে৷ ইইউর যেমন আগ্রহ আছে, আগ্রহ আছে অ্যামেরিকার, চীনেরও আগ্রহ আছে৷ তাই সব দিক বিবেচনা করে আমাদের ইন্দো-প্যাসিফিক কৌশলের ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে৷ এটাকে কেন্দ্র করে নানা ধরনের জোট বা গ্রুপ হচ্ছে৷ আমাদের জোর দিতে হবে অর্থনীতির বিষয়ে৷ নতুন কোনো কোল্ড ওয়ারে আমরা যেন জড়িয়ে না পড়ি৷’’

তিনি মনে করেন, ‘‘বাংলাদেশের যে অর্থনৈতিক উন্নয়ন, এটাকে টেকসই করতে হলে গণতন্ত্র, সুশাসন, মানবাধিকারের উন্নয়ন করতে হবে৷ আর এই সহযোগিতা চুক্তি থেকে সুফল পেতে হলে আমাদের এর উন্নয়ন ঘটাতে হবে৷’’

প্রসঙ্গত, ২৭ রাষ্ট্রের জোট ইইউ'র সঙ্গে এশিয়ার দুই দেশ ভারত ও পাকিস্তান এবং জোট হিসেবে আসিয়ানের অংশীদারিত্ব সহযোগিতা চুক্তি রয়েছে৷

স্কিপ নেক্সট সেকশন সম্পর্কিত বিষয়
স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের এক জরিপে এই তথ্য উঠে এসেছে। বাংলাদেশ সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) তাদের পার্টনার হিসেবে বাংলাদেশে এই জরিপ পরিচালনা ও ফলাফল প্রকাশ করেছে।

ব্যবসা-বাণিজ্যের ঘাটে ঘাটে দুর্নীতি

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান