ইংরেজি সাইনবোর্ড নিয়ে জাপানে বিভ্রান্তি | বিশ্ব | DW | 13.04.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জাপান

ইংরেজি সাইনবোর্ড নিয়ে জাপানে বিভ্রান্তি

২০২০ সালের অলিম্পিক গেমস আয়োজিত হবে জাপানের রাজধানী টোকিওতে৷ তার আগে শহর জুড়ে সাজো সাজো রব৷ কিন্তু ইংরেজি সাইনবোর্ডের বেলায় দেখা দিচ্ছে নানা বিভ্রাট৷

অলিম্পিক গেমস শুরু হতে বাকি মাত্র এক বছর৷ কিন্তু এখনও পুরোপুরি তৈরি নয় টোকিও৷ বাইরে থেকে আসা মানুষেরা যাতে সহজে ঘুরে বেড়াতে পারেন, বুঝতে পারেন দিকনির্দেশ, সেজন্য টোকিওর চারদিকে ইংরেজি সাইনবোর্ড বসানো হচ্ছে৷

সম্প্রতি, টোকিও টুরিজম এজেন্সি একটি সমীক্ষা চালায়, যেখানে এই ইংরেজি সাইনবোর্ডের ব্যবহারিক গুণ ও সঠিক তথ্য নিয়ে প্রকাশ পেয়েছে অদ্ভুত সব তথ্য৷

অনুবাদের মারপ্যাঁচ

দুই মাস ধরে চলা এই সমীক্ষার শেষে দেখা যায় জাপানের ইংরেজি সাইনবোর্ডগুলির বেশিরভাগই ভুলে ভরা৷ শিশুদের জন্য সংরক্ষিত জায়গায় শিশুর বদলে লেখা রয়েছে ‘বামন'! সাবেক জেলের বাইরে অতিথিদের জন্য লেখা রয়েছে বার্তা: ‘‘অভিযুক্ত জুতা খুলে জেলের ভেতরে ভদ্রভাবে আসুন৷''

এরিক ফিওর বিগত ১৫ বছর ধরে জাপানে ফরাসি ভাষা শেখান৷ এমন ইংরেজির ধরন দেখে তাঁর বক্তব্য, ‘‘আমি নিজের চোখকেই বিশ্বাস করতে পারছিলাম না, যে আমি আসলেই এমন জিনিস পড়ছি৷''

গ্রেগরি হ্যাডলি জাপানের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাষাতত্ত্বের অধ্যাপক৷ তিনি বলেন, ‘‘আমাদের বুঝতে হবে, এমন অনুবাদ শুধু জাপানি ভাষীরাই বুঝতে পারবেন৷ এই ইংরেজি এমন কোনো ব্যক্তি বুঝতে পারবেন না, যার মাতৃভাষা হয়তো ইংরেজি৷''

যান্ত্রিক ইংরেজি

জাপানের বিভিন্ন মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিতে কর্মরত আছেন বিভিন্ন ভাষাগোষ্ঠীর মানুষ৷ কাজের সুবিধার্থে অফিসে হয়তো অনেকেই ইংরেজি বলে থাকেন৷ কিন্তু তবুও সোশাল মিডিয়ায় বারবার উঠে এসেছে জাপানে মানুষের ‘গুগল'-নির্ভর ইংরেজির দৌড়৷

একটি আইটি সংস্থায় কাজ করা ইংরেজিভাষী এক ব্যক্তি জানান, ‘‘একবার আমার এক সহকর্মী আমার কাছে আসেন একটু পোস্টারের ইংরেজি অনুবাদে সাহায্য চাইতে৷ আমি তাঁকে সাহায্য করে দেবার পর দেখি ফাইনাল পোস্টারে সে গুগলের করে দেয়া অনুবাদটিই রেখে দিয়েছে৷''

সারা বিশ্ব থেকে বহু মানুষ পর্যটনের জন্য জাপানে বেড়াতে যান৷ ২০১৮ সালে সেখানে গেছেন প্রায় তিন কোটি বিদেশি নাগরিক৷ সেখানে হোটেল থেকে বিমানবন্দর সর্বত্র এমন ইংরেজি আসলেই দেশের অন্যতম বাধা, যা আসন্ন অলিম্পিক গেমসের সময় কোনো বড় সমস্যার কারণ হয়ে উঠতে পারে বলে অনেকের ধারণা৷

ইউলিয়ান রায়ল/এসএস

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন