আয়ের তুলনায় সয়াবিনের মূল্যবৃদ্ধি কম বলেই অভিযোগ নেই! | বিষয় | DW | 29.05.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

আয়ের তুলনায় সয়াবিনের মূল্যবৃদ্ধি কম বলেই অভিযোগ নেই!

বাঙালি রান্নায় সয়াবিন তেলের ব্যবহার বেশি৷ তার দাম যদি হঠাৎ লিটারপিছু ১২ টাকা বাড়ে, প্রশ্ন ওঠাই স্বাভাবিক৷ যদিও জার্মানিতে দাম বেড়েছে তারও বেশি৷ তবে সেখানে আয়ের তুলনায় মূল্যবৃদ্ধি কম বলেই অভিযোগ শোনা যায়না৷

বাংলাদেশে বিভিন্ন উৎসব উপলক্ষ ছাড়াও কারণে অকারণে খাদ্যদ্রব্যের মূল্য বাড়ে৷ তবে এবার এক লাফে সয়াবিন তেলের দাম লিটার প্রতি ১২ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে৷ বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন এক লিটার বোতলের সয়াবিন তেল ‌১৫৩ টাকায় বিক্রির ঘোষণা দেয়ার কথা জানিয়েছে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে৷ এক লিটার সয়াবিন তেলের দাম ১৫৩ টাকা শুনে একটু বেশিই মনে হয়৷ বিশেষ করে মধ্যম আয় বা নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য, যাদের পরিবার বড়৷ মহামারিতে বিশ্ববাজারে প্রায় সবকিছুর দাম বেড়ে যাওয়ার কারণেই ভোজ্যতেলের দামও বাড়ানো হয়েছে ৷ এর সাথে দেশের ব্যবসায়ীদের কতটা সম্পর্ক, বলা বেশ কঠিন!

ভোজ্য তেলের দাম জার্মানিতেও বেড়েছে, বেড়েছে প্রায় সারা বিশ্বেই! আর জার্মানির কোনো কোনো দোকানে সয়াবিন তেলের দাম তো এখন বাংলাদেশের চেয়েও বেশি৷ যদিও আমাদের অনেকেরই তেমনভাবে সেটা নজরে আসেনি৷

এদিকে জার্মানির বায়ারিশেস লান্ডভিয়ার্টশাফ্টলিশেস পত্রিকার তথ্যমতে জার্মানিতে২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের চেয়ে মার্চ মাসে সয়াবিন তেলের দাম বেড়েছে ৬ শতাংশ৷ যা কি না ২০১২ সালের পরে সর্বোচ্চ মূল্য বৃদ্ধি৷ তাছাড়া গত বছর মে মাসের তুলনায় এ বছর মে মাসে সয়াবিন তেলের দাম প্রায় দ্বিগুণ৷

জার্মানির আগ্রামার্কট ইনফরমেশন গেজেলশাফ্ট বা কৃষি বাজার সংস্থার তথ্য অনুযায়ী ১৯৯৫ সালের পর এ বছর এপ্রিল মাসে প্রথবারের মতো সয়াবিন তেলের সর্বোচ্চ মূল্য৷

জার্মানির ডিসকাউন্ট শপ আলডিতে ১ লিটার ভেজিটেবল তেলের দাম মাত্র ১ ইউরো ১৯ সেন্ট, যা মানুষের আয় অনুপাতে খুবই কম দাম৷ মোটামুটি দামী দোকান রেভে সুপার মার্কেটে এক লিটার ভেজিটেবল অয়েলের বর্তমান দাম এক ইউরো ৭২ সেন্ট অর্থাৎ বাংলাদেশি ১৭৭ টাকা৷ বাংলাদেশে ১৫৩ টাকা৷ শুধু তেলের দাম নয়, জার্মানিতে গম, ভুট্টা, চাল এসব শষ্যদানার মূল্যও গত বছরের তুলনায় ৩০ শতাংশ বেড়েছে৷ বিদেশ থেকে আমদানিকৃত খাদ্যদ্রব্যের দামই যে বেড়েছে তা নয়, দেশে উৎপাদিত খাবারসহ অন্যান্য জিনিসের দামও তুলনামূলকভাবে আগের চেয়ে বেশি৷

তবে দাম বাড়লেও ক্রয় ক্ষমতা সকল নাগরিকের নাগালের মধ্যে থাকায় এ বিষয়ে তেমন আলোচনা বা অভিযোগ শোনা যায়না৷

Nurunnahar Sattar, DW-Mitarbeiterin Bengali Programm

নুরুননাহার সাত্তার, ডয়চে ভেলে

তাছাড়া সচেতন জার্মানরা বাড়িতে রান্নায় সয়াবিন তেল কম ব্যবহার করে থাকে৷ আর সূর্যমূখী, ভেজিটেবল, সর্ষে, তিল, বাদাম, পাম, বিভিন্ন ফলের বীজসহ কত রকমের তেল যে বাজারে রয়েছে৷ রয়েছে মাখন, ডালডা, মার্জারিনসহ নানা ধরণের তেল বা ফ্যাট রান্না, খাওয়া বা ভাজাভুজির জন্য৷ বলা যায় সয়াবিন বা ভেজিটেবল তেলের দাম বাড়লেও এখনও সব তেলের চেয়ে দাম কম৷ স্বাস্থ্যকর তেল অলিভ অয়েলের দাম সবসময়ই সবচেয়ে বেশি এদেশে৷

তবে মজার ব্যাপার হচ্ছে, সয়াবিন বা রান্নার তেলের দাম নিয়ে জার্মানরা তেমন মাথা না ঘামালেও গাড়ির তেলের দামের খোঁজ রাখে৷ গ্যালন প্রতি কয়েক সেন্ট দাম বাড়ার খবর শুনলেই আগেভাগে পেট্রোল পাম্পের দিকে ছোটে তারা৷ কেউ কেউ আবার চলন্ত গাড়ির গতি কমিয়ে উঁকি দিয়ে পেট্রোল স্টেশনে তেলের দাম চেক করে নেয়৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়