আসামে সহিংসতা ইস্যু নিয়ে সংসদ উত্তাল | বিশ্ব | DW | 08.08.2012
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

আসামে সহিংসতা ইস্যু নিয়ে সংসদ উত্তাল

বাদল অধিবেশনের প্রথম দিনেই আসামে জাতিদাঙ্গা ইস্যু নিয়ে সংসদ তোলপাড়৷ পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকার ব্যর্থ, এই অভিযোগে বিরোধী পক্ষ কেন্দ্রীয় সরকারকে আক্রমণ করে৷ আডবানি বলেন, আসামের গোষ্ঠীদাঙ্গা সাম্প্রদায়িক নয়৷

আজ সংসদের বাদল অধিবেশন শুরু হতেই প্রশ্নোত্তর পর্ব বাতিল করে আসামের হিংসা পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনার দাবিতে সরব হয়ে ওঠে বিরোধীপক্ষ৷ আসামে জাতিগত দাঙ্গা নিয়ে আলোচনার সূত্রপাত করে বিজেপি'র বর্ষিয়ান নেতা লাল কৃষ্ণ আডবানি কেন্দ্রীয় সরকারকে আক্রমণ করে বলেন, আসামের জাতিদাঙ্গা সাম্প্রদায়িক নয়৷ আসামে যে পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তা হিন্দু-মুলিম বা উপজাতি-অনুপজাতি ইস্যু নয়৷ এটা ভারতীয় এবং অ-ভারতীয় বহিরাগত ইস্যু৷

চার দফা নির্দেশিকার সুপারিশ করে আডবানি বলেন, এ দেশে অবৈধ বহিরাগতদের সংখ্যা বিশেষ করে বোড়ো এলাকায় বহিরাগতদের সংখ্যা নিরূপণ করতে হবে৷ সব রাজনৈতিক দল যদি মেনে নিতে রাজি থাকে যে, এটা ভারতীয় বনাম বহিরাগত ইস্যু, তাহলে জাতীয় নাগরিক তালিকাসূচি থেকে তাঁদের নাম বাদ দিতে হবে৷ উপজাতি এলাকায় বহিরাগত বা অনুপজাতিদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করতে হবে এবং আসামের স্ট্র্যাটিজিক গুরুত্ব মনে রেখে সুরক্ষা ব্যবস্থা মজবুত করতে হবে৷ আডবানির অভিযোগ, ভোট-ব্যাংকের দিকে তাকিয়ে কংগ্রেস নাকি বহিরাগত ইস্যুটিকে তেমন আমল দেয়নি৷ সিপিএম সাংসদ বাসুদেব আচারিয়া মনে করেন, আসামে কিছু ঘটলেই বিজেপি'র পুরানো অভ্যাস বাংলাদেশি অনুপ্রবেশের জিগির তোলা৷

প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিং আসামের সহিংসতাকে সাম্প্রদায়িক রঙ না দেবার আবেদন রাখেন৷ বলেন, এখন জরুরি হলো ত্রাণ ব্যবস্থাকে সমন্বিত করা, পরিস্থিতি স্বাভাবিক করা এবং ঘরছাড়াদের ঘরে ফেরার বন্দোবস্থ করা৷

এই জাতিদাঙ্গার ইন্ধন বাইরে থেকে এসেছিল কিনা - তার তদন্ত করবে রাজ্য সরকারের সহযোগিতায় কেন্দ্রীয় তদন্ত ব্যুরো সিবিআই৷ উল্লেখ্য, সহিংসতার জন্য যুযুধান দুই পক্ষই একে অপরের প্রতি দোষারোপ করছে৷ শেষ পর্যন্ত আঙুল উঠেছে বহু-বিতর্কিত অবৈধ বহিরাগত অনুপ্রবেশের দিকে৷

প্রতিবেদন: অনিল চট্টোপাধ্যায়, নতুন দিল্লি

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন