আলোচনায় বিএনপি′র ‘জাতিসংঘ মিশন′ | বিশ্ব | DW | 15.09.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

আলোচনায় বিএনপি'র ‘জাতিসংঘ মিশন'

বিএনপি জাতিসংঘের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেলের কাছে বাংলাদেশের নির্বাচনপূর্ব পরিস্থিতি, মানবাধিকার ও বাক স্বাধীনতা নিয়ে কথা বলেছে৷ আওয়ামী লীগ নেতাদের মত, বিএনপি বিদেশিদের কাছে ধরনা দিয়ে দেশকে ছোট করেছে৷

নির্বাচনের আগে সরকারের ওপর এক ধরনের চাপ সৃষ্টি করতে চায় বিএনপি৷ তারই অংশ হিসেবে নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সহকারী মহাসচিব মিরোস্লাভ জেনকার সঙ্গে বৃহস্পতিবার বৈঠক করেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর৷ এদিকে, বিএনপি'র পক্ষ থেকে ট্রাম্প প্রশাসনে লবিস্ট নিয়োগের খবরও দিয়েছে বিদেশি সংবাদ মাধ্যম৷

বিএনপি'র স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘দেশের যা অবস্থা তাতে নির্বাচন, মানবাধিকার ও বাক স্বাধীনতা নিয়ে কথা বলেছেন দলের মহাসচিব৷ কারণ এই পরিস্থিতিতে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়৷ আমাদের যারা বন্ধু, ডেভেলপমেন্ট পার্টনার তাদের এটা জানানো দরকার৷ জাতিসংঘও জানতে চায়৷ তাদের আমন্ত্রণে মির্জা ফখরুল সেখানে গিয়েছেন৷''

অডিও শুনুন 02:35
এখন লাইভ
02:35 মিনিট

‘তাদের আমন্ত্রণে মির্জা ফখরুল সেখানে গিয়েছেন’

বৈঠকের পর মির্জা ফখরুল নিউইয়র্কে সাংবাদিকদের জানান, ‘‘মহাসচিবের আমন্ত্রণে এ বৈঠকে এসেছিলাম৷ আসন্ন নির্বাচনসহ বাংলাদেশের সামগ্রিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে কথা হয়েছে৷ খালেদা জিয়ার সাথে সরকারের চরম বৈরি আচরণের প্রসঙ্গও স্থান পায় এ বৈঠকে৷''

তবে বলা হচ্ছে, বিএনপি'র আগ্রহেই এই বৈঠক হয়েছে৷ জাতিসংঘ মহাসচিবের আমন্ত্রণে নয়৷ এর জবাবে আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘‘যারা এ কথা বলেন তাদের কূটনৈতিক বিষয় সম্পর্কে ধারণার অভাব আছে৷ জাতিসংঘের আমন্ত্রণ ছাড়া গেলে জাতিসংঘের সহকারী মহাসচিব বৈঠক করেন কিভাবে? খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তারের পরও তো জাতিসংঘ মহাসচিব বিবৃতি দিয়ে বলেছেন এটা নির্বাচনে প্রভাব ফেলবে৷''

তিনি আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘‘বিভিন্ন দেশ বাংলাদেশের পরিস্থিতি জানে৷ তাদের দূতরা পরিস্থিতি নিয়ে, নির্বাচন নিয়ে কথাও বলছেন৷ আমরা না জানালেও তারা জানেন৷ আমরা দেশের গণতন্ত্র, মানবাধিকার ও বাক স্বাধীনতার পরিস্থিতি তুলে ধরছি দেশ ও জনগণের স্বার্থে৷''

অন্যদিকে ট্রাম্প প্রশাসনে বিএনপি'র পক্ষ থেকে লবিস্ট নিয়োগের বিষয়টি জানা নেই বলে জানান আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী৷

অডিও শুনুন 03:25
এখন লাইভ
03:25 মিনিট

‘আমরা দেশের মানুষের ওপর আস্থাশীল’

বিএনপি'র এই আন্তর্জাতিক তৎপরতার প্রতি নজর রাখছে সরকার৷ বিশেষ করে জাতিসংঘে বৈঠকে বিএনপি মহাসচিব কী বলেছেন তার বিস্তারিত জানার চেষ্টা করছে৷ নির্বাচনের আগ পর্যন্ত বিএনপি আন্তর্জাতিক পর্যায়ে আরো কী কী করতে পারে তা ভেবে মেকাবেলারও প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে৷ সজাগ করা হচ্ছে সরকারের কূটনৈতিক চ্যানেলগুলো৷

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বিএনপি'র এই তৎপরতা নিয়ে আওয়ামী লীগ বিচলিত বা উদ্বিগ্ন নয়৷ তবে বিএনপি বিদেশিদের কাছে, যেচে জাতিসংঘে গিয়ে ধরনা দিয়ে দেশের ভাবমূতি নষ্ট করছে৷ যা খুবই দুঃখজনক৷ নির্বাচন নিয়ে কথা বলে তারা দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে বিদেশিদের কাছে নালিশ করল৷ কিন্তু নির্বাচন দেশের সংবিধান অনুযায়ী হবে৷ দিল্লি-আমেরিকা-জাতিসংঘ করে কোনো লাভ নেই৷ তারা ভারতের অমিত শাহ, মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাটসহ আরো অনেক বিদেশি'র কাছে এর আগেও দৌঁড়-ঝাপ করেছে৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘বিএনপি ট্রাম্প প্রশাসনে লবিস্ট নিয়োগ করেছে অনেক টাকা খরচ করে৷ যখন ক্ষমতায় ছিল তখন তারা লুটপাট করেছে৷ সেই টাকা এখন খরচ করছে লবিস্ট-এর পিছনে৷''আওয়ামী লীগ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে বিএনপি'র অভিযোগের জবাব দেবে কিনা, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘বিদেশে আামাদের বন্ধু আছে প্রভু নেই৷ আমরা দেশের মানুষের ওপর আস্থাশীল৷ আমরা নির্বাচনসহ দেশের কোনো অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে বিদেশিদের সঙ্গে কথা বলব না৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন