আর তৈরি হবে না সুপারজাম্বো বিমান | বিশ্ব | DW | 14.02.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ইউরোপ

আর তৈরি হবে না সুপারজাম্বো বিমান

বিশালাকার ও বিলাসবহুল সুপারজাম্বো বিমান তৈরি বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিলো ইউরোপের এয়ারবাস কোম্পানি৷ এমিরেটস-সহ একাধিক বিমান সংস্থা অর্ডার কমিয়ে আনায় ২০২১ সালের মধ্যে উৎপাদন গুটিয়ে আনা হবে৷

অ্যামেরিকার বোয়িং ও ইউরোপের এয়ারবাস কোম্পানি আকাশপথে যাত্রী পরিবহণের বিমান তৈরির ক্ষেত্রে দুই প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী৷ দুই কোম্পানির রেষারেষির ফলে অনেক দশক ধরে নিত্যনতুন মডেলের বিমান বাজারে আসছে৷ গত শতাব্দীতে বোয়িং কোম্পানি তার সেভেন-ফোর-সেভেন মডেল বা ‘জাম্বো জেট' বাজারে এনে বিশাল সংখ্যায় যাত্রী পরিবহণের ক্ষেত্রে মানদণ্ড স্থির করেছিল৷ প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে এয়ারবাস ২০০৫ সালে প্রকৃত দুই তলার বিশালাকার বিমান এথ্রিএইটজিরো প্রথমবার আকাশে ওড়ায়, যা ‘সুপারজাম্বো' হিসেবেও পরিচিত৷ বিশ্বের সবচেয়ে বড় এই যাত্রীবাহী বিমান শুরু থেকেই বাজারে সাড়া ফেলে দিয়েছিল৷ মূল ডিজাইন অনুযায়ী ৫৪৪ জন যাত্রী বহন করে এই সুপারজাম্বো৷ ২০০৭ সালে বাণিজ্যিক উড়াল শুরু হবার পর অনেক বড় বিমান সংস্থা ঢালাও অর্ডার দিয়ে এই মডেলের বাণিজ্যিক সাফল্যও নিশ্চিত করে৷

বৃহস্পতিবার এয়ারবাস কোম্পানি ঘোষণা করেছে, যে তারা এথ্রিএইটজিরো মডেল তৈরি বন্ধ করতে চলেছে৷ আরও ১৭টি বিমান তৈরি করার পর ২০২১ সালে শেষ বিমানটি হস্তান্তর করা হবে৷ সম্প্রতি এই মডেলের বিক্রি কমে গিয়েছিল৷ কিছু সূত্র অনুযায়ী, বিমান সংস্থাগুলির পক্ষে সুপারজাম্বোর রক্ষণাবেক্ষণসহ অনেক ক্ষেত্রে বিশাল ব্যয় সামলানো সহজ হচ্ছে না বলেই অর্ডার কমে চলেছে৷ এমন ‘হাতি পোষা'-র বদলে সংস্থাগুলি আরও ছোট ও মডেলের দিকে ঝুঁকছে৷ গত মাসেই সংবাদ সংস্থা রয়টার্স এক প্রতিবেদনে এই মডেলের অর্ডার নিয়ে সংকটের ইঙ্গিত দিয়েছিল৷

বিশেষ করে সুপারজাম্বোর প্রধান ক্রেতা সংযুক্ত আরব আমিরাতের এমিরেটস সংস্থা সুপারজাম্বোর বদলে এয়ারবাস কোম্পানিরই অন্য দুই মডেল – এথ্রিফাইভজিরো ও এথ্রিথ্রিজিরো নিও কিনতে চলেছে৷ মোট ৭০টি বিমান অর্ডার দিয়েছে এমিরেটস৷ তা সত্ত্বেও এয়ারবাস কোম্পানির এই সিদ্ধান্তের কথা জেনে হতাশা প্রকাশ করেছে এমিরেটস৷ কোম্পানির প্রধান শেখ আহমেদ বিন সাইদ আল-মাকতুম বলেন, শুরু থেকেই এমিরেটস এথ্রিএইটজিরো মডেলের জোরালো সমর্থক ছিল৷ তবে বর্তমান পরিস্থিতির বাস্তবতা মেনে নিতে হবে বলে মনে করেন তিনি৷ এমিরেটস ২০৩০ সাল পর্যন্ত এই বিমান চালু রাখবে বলেও ঘোষণা করেন আল-মাকতুম৷

সুপারজাম্বো মডেল তৈরি বন্ধ করার সিদ্ধান্তের ফলে এয়ারবাস কোম্পানির ৩,০০০ থেকে ৩,৫০০ কর্মীর ভবিষ্যৎ প্রশ্নের মুখে পড়তে পারে৷ শ্রমিক সংগঠনগুলির সঙ্গে এ বিষয়ে আলোচনা শুরু করবে এয়ারবাস৷

বিমানের ইঞ্জিনের প্রযুক্তিগত উন্নতির ফলে বোয়িং ও এয়ারবাস কোম্পানিকে অনেক মডেল নিয়ে নতুন করে ভাবনাচিন্তা করতে হচ্ছে৷ চার ইঞ্জিনের বিশাল জেটের বদলে আরও উন্নত দুই ইঞ্জিনের হালকা বিকল্প বাণিজ্যিকভাবে অনেক সফল হিসেবে উঠে আসছে৷ বোয়িং সেভেনএইটসেভেন ও এয়ারবাসের এথ্রিফাইভজিরো নতুন প্রজন্মের বিমান হিসেবে ক্রেতাদের কাছে অনেক বেশি গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠছে৷

এসবি/ডিজি (রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন