আর্জেন্টিনাকে নিয়ে খেললো ক্রোয়েশিয়া | খেলাধুলা | DW | 21.06.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ফুটবল

আর্জেন্টিনাকে নিয়ে খেললো ক্রোয়েশিয়া

সমর্থকদের প্রত্যাশার, পরিসংখ্যান, কোনো কিছুরই মাঠে কোনো প্রতিফলন দেখা গেল না৷ খেলা দেখে মনে হচ্ছিল ক্রোয়েশিয়াই ফেবারিট, আন্ডারডগ আর্জেন্টিনা৷

ম্যাচের ফলেও মিললো তার প্রমাণ৷ ফিফার ২০ নম্বর র‍্যাংকিংয়ের ক্রোয়েশিয়া, অনায়াসে ৩-০ গোলে হারিয়ে দিলো ৫ম স্থানে থাকা আর্জেন্টিনাকে৷

টিভি স্ক্রিনে মাঠে উপস্থিত মারাদোনাকে দেখানো হচ্ছিল। এতটা বিমর্ষ হয়ত তাঁকে কখনই দেখা যায়নি৷ বেশিরভাগ সময়ই তাঁকে দেখা গেছে উত্তেজনায় হাতের নখ কামড়াতে৷

খেলা শুরুর বাঁশি বাজার মুহূর্ত থেকেই আর্জেন্টাইন ডিফেন্ডারদের ব্যাপক চাপের মুখে রাখে ক্রোয়েশিয়া৷ একের পর এক আক্রমণ কোনোরকমে ঠেকিয়ে সময় পার করাই যেন ছিল আর্জেন্টাইন ডিফেন্ডারদের একমাত্র লক্ষ্য৷

অন্যদিকে, দুর্দান্ত ডিফেন্স তৈরি করে সফলভাবে আর্জেন্টিনার প্রতিটি আক্রমণ রুখে দেয় ক্রোয়াটরা৷ কয়েকবার মেসি একক প্রচেষ্টায় বিপজ্জনকভাবে ডিবক্সে ঢুকে পড়লেও, তাঁকে শট নিতে দেননি বিপক্ষের ডিফেন্ডাররা৷

বল দখলে কিছুটা এগিয়ে থাকলেও প্রথমার্ধে কার্যকর কোনো আক্রমণ রচনা করতে পারেননি মেসিরা৷ পরিসংখ্যান বলছে, প্রথমার্ধের শেষ ২১ মিনিটে সার্জিও আগুয়েরো একবারের জন্যও বল স্পর্শ করতে পারেননি৷

প্রথমার্ধে ক্রোয়েশিয়ার সব ঠেকিয়ে দিলেও দ্বিতীয়ার্ধে আর ডিফেন্সের দুর্বলতা ঢাকতে পারেনি আর্জেন্টিনা৷ ৫৩ মিনিটে মারাত্মক ভুল করে বসেন গোলকিপার উইলি কাবায়েরো৷

গ্যাব্রিয়েল ম্যার্কাদোর ব্যাকপাস ধরতে গিয়ে গোলপোস্ট ছেড়ে এগিয়ে আসেন কাবায়েরো৷ কিন্তু বল এসে পড়ে আন্টে রেবিচের পায়ে৷ কোনো ভুল করেননি রেবিচ৷ দারুণ এক ভলিতে গোলকিপারের মাথার ওপর দিয়ে বল পাঠিয়ে দেন জালে৷

এরপর গোলশোধ থেকে আর্জেন্টিনাকে ঠেকাতে মরিয়া হয়ে ওঠে ক্রোয়েশিয়া৷ মাঠে আক্রমণাত্মক ট্যাকলের জন্য ৩টি হলুদ কার্ড দেখতে হয় ক্রোয়াট খেলোয়াড়দের৷

মাঠে খেলোয়াড়দের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়ে উত্তেজনা৷ বেশ কয়েকবার খেলা বাদ দিয়ে দুই দলের খেলোয়াড়দের দেখা যায় তর্কে জড়িয়ে পড়তে৷ স্বাভাবিক শান্ত স্বভাবের মেসিকেও একবার দেখা গেছে মেজাজ হারাতে৷

তবে মেজাজ হারিয়ে গোল শোধ তো হয়ইনি, বরং ৮০ মিনিটে আবার গোল খেয়ে বসে আর্জেন্টিনা৷ এবারের নায়ক লুকা মোদ্রিচ৷ ডিবক্সের ভেতর থেকে অসাধারণ বাঁকানো শট বারের পাশ ঘেঁষে চলে যায় জালে৷ গোলরক্ষক কাবায়েরো ডাইভ দিয়ে বাঁচানোর চেষ্টা করলেও বল শুধু স্পর্শই করতে পারেন তিনি৷ বলের গতির তাতে কোনো হেরফের হয়নি৷

খেলার ইনজুরি টাইমে ৯১ মিনিটে আবারো ফুটে ওঠে আর্জেন্টাইন ডিফেন্সের ফাটল৷ ইভান রাকিতিচের একটি জোরালো শট আর্জেন্টিনার গোলকিপার কোনোরকমে ঠেকালেও তা ফিরে আসে কোভাচিচের কাছে৷ কোভাচিচ আবার বল পাস দেন রাকিতিচকে৷ এবার আর ভুল করেননি তিনি৷ সোজা বল জালে৷ ফল ৩-০৷

প্রথম ম্যাচে আইসল্যান্ডের সাথে ড্র, এবং দ্বিতীয় ম্যাচে এই পরাজয়ের ফলে গ্রুপ ডি-এর পয়েন্ট টেবিলে তৃতীয় স্থানে চলে গেছে আর্জেন্টিনা৷ দুই ম্যাচে ৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে ক্রোয়েশিয়া৷ এক ম্যাচ কম খেলায় দ্বিতীয় স্থানে আছে আইসল্যান্ড৷

গ্রুপের শেষ ম্যাচে ২৬ তারিখ নাইজেরিয়ার মুখোমুখি হবে আর্জেন্টিনা, একই দিনে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে খেলবে আইসল্যান্ড৷

সে ম্যাচে নাইজেরিয়াকে অবশ্যই হারাতে হবে আর্জেন্টিনার৷ শুধু তাই নয়, প্রার্থনা করতে হবে, পরের ম্যাচে যাতে আইসল্যান্ড কোনোভাবেই জিততে না পারে৷

ফ্রান্স-পেরু

খেলার ৫৭% সময় বল দখলে রেখেছিল পেরু৷ তবে ফল হলো উলটো, ম্যাচ গেলো ফ্রান্সের ঘরে৷

বেশ কয়েকবার গোলের সুযোগ তৈরি করলেও সফলতা পায়নি পেরু৷ তবে প্রথমার্ধের বেশিরভাগ সময় একের পর এক আক্রমণে পেরুর ডি বক্স কাঁপায় ফ্রান্স৷ দারুণ গতির ফুটবলে গ্যালারিতেও ছিল ব্যাপক উত্তেজনা৷

প্রতিপক্ষের আক্রমণ ঠেকাতে গিয়ে ১৬ মিনিটে ফ্রান্সের ব্লাইসে মাতুইদি এবং ২৩ মিনিটে পেরুর পাওলো গুয়েরেরো হলুদ কার্ড দেখেন৷

অবশেষে খেলার ৩৪ মিনিটে আসে ফ্রান্সের সাফল্য৷ এর আগে কয়েকবার ব্যর্থ হলেও এবার আর ভুল করেননি কাইলিয়ান এমবাপে৷ গিরোদের পাস গোলকিপারকে ফাঁকি দিলে বলে পা ছুঁইয়ে গোল নিশ্চিত করেন তিনি

ফ্রান্সের হয়ে সবচেয়ে কম বয়সে বড় কোনো টুর্নামেন্টে গোল করার রেকর্ড করলেন এমবাপে৷ পেরুর বিপক্ষে ম্যাচে মাঠে নামার সময় তাঁর বয়স ছিল ১৯ বছর ১৮৩ দিন৷

দ্বিতীয়ার্ধে আরো জমাট বাঁধে ম্যাচ৷ এবার দেখা যায় গেল পরিশোধে মরিয়া পেরুকে৷ দারুণ সব আক্রমণে ফরাসি রক্ষণভাগকে ব্যস্ত রাখলেও জালে বল জড়াতে পারেনি পেরু৷ ৮১ মিনিটে পেদ্রো সানচেজ এবং ৮৬ মিনিটে হলুদ কার্ড দেখেন ফ্রান্সের পল পগবা৷

তবে একের পর এক দুর্দান্ত আক্রমণ উপহার দিলেও গোল আর পরিশোধ করা হয়ে ওঠেনি পেরুর৷ টানা দুই ম্যাচ হেরে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিশ্চিত হলো দক্ষিণ অ্যামেরিকার দেশটির৷

অস্ট্রেলিয়া-ডেনমার্ক

বিশ্বকাপ ইতিহাসের প্রথম দেখায় কেউ কাউকে ছাড় দিলো না অস্ট্রেলিয়া-ডেনমার্ক৷ ১-১ গোলে ড্র করায় গ্রুপ সি থেকে এখনও শেষ ষোলতে যাওয়ার আশা বাঁচিয়ে রাখলো অস্ট্রেলিয়া৷

এর আগে তিনবার প্রীতি ম্যাচে দেখা হয়েছে দুই দলের৷ সবগুলোতেই এসেছে ফলাফল৷ ডেনমার্ক জয় পেয়েছে দুটিতে, অস্ট্রেলিয়া অপরটিতে৷ কিন্তু ফুটবলের সবচেয়ে বড় আসরে ফল আনতে পারলো না কেউই৷

খেলা শুরুর ৭ মিনিটেই ডি বক্সের ভেতর থেকে নেয়া এক শটে ডেনমার্ককে এগিয়ে দেন ক্রিশ্চিয়ান এরিকসেন৷ এরপর অস্ট্রেলিয়ার ওপর চাপ আরও বাড়ায় ডেনমার্ক৷

খেলার ৩৭ মিনিটে ডি-বক্সের ভেতর ইচ্ছাকৃত হ্যান্ডবলের কারণে হলুদ কার্ড দেখেন ডেনমার্কের ইউসুফ পোলসেন, ভিএআর প্রযুক্তির কল্যাণে পেনাল্টি পায় অস্ট্রেলিয়া৷ দুই ম্যাচে দুই হলুদ কার্ড দেখায় ফ্রান্সের বিপক্ষে পরের ম্যাচে খেলতে পারবেন না পোলসেন৷

ফ্রান্সের বিপক্ষে ম্যাচে ভিএআর ব্যাবহারে এমন একটি পেনাল্টি থেকেই পয়েন্ট হারায় অস্ট্রেলিয়া৷ এবার সুয়োগ নিজেদের পক্ষে আসায় তা আর হাতছাড়া হতে দেননি মাইল ইয়েদিনাক৷ সেই সাথে থামে আন্তর্জাতিক ম্যাচে ডেনমার্কের ৫৭১ মিনিট গোল না খাওয়ার রেকর্ড৷

দ্বিতীয়ার্ধে আর কোনো গোল করতে পারেনি কোন দলই৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন