আরো পাঁচ বছর চীনা কমিউনিস্ট পার্টির নেতা থাকছেন শি জিনপিং | বিশ্ব | DW | 25.10.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

চীন

আরো পাঁচ বছর চীনা কমিউনিস্ট পার্টির নেতা থাকছেন শি জিনপিং

১৯তম দলীয় কংগ্রেসে নতুন সেন্ট্রাল কমিটি শি-র দ্বিতীয় কর্মকাল নিশ্চিত করে৷ পলিটবুরোর স্ট্যান্ডিং কমিটিতে পাঁচটি নতুন মুখ রেখেছেন শি, তবে জ্যেষ্ঠতার নিয়ম ভঙ্গ না করে৷

চীনা কমিউনিস্ট পার্টির সদস্যসংখ্যা প্রায় নয় কোটি৷ দলের জাতীয় কংগ্রেস প্রতি পাঁচ বছর অন্তর অনুষ্ঠিত হয়৷ এক সপ্তাহব্যাপীএই সম্মেলনে কমিউনিস্ট পার্টির প্রায় ২,৩০০ প্রতিনিধি বেইজিংয়ে সম্মিলিত হন৷ পার্টির সেন্ট্রাল কমিটির সদস্যসংখ্যা ২০৪৷ বুধবারের বৈঠকে নতুন সেন্ট্রাল কমিটি পলিটব্যুরো স্ট্যান্ডিং কমিটি নির্বাচন করেছে৷ ইতিপূর্বে শি পার্টির জেনারেল সেক্রেটারি হিসেবে আরো পাঁচ বছরের সনদ পান৷ তবে এই কংগ্রসের সবচেয়ে লক্ষণীয় ও গুরুত্বপূর্ণ বিকাশধারা সম্ভবত এই যে, মঙ্গলবারের অধিবেশনে ‘শি জিনপিংয়ের চিন্তা'কে চীনের কমিউনিস্ট পার্টির সংবিধানে স্থান দেওয়া হয়েছে৷

মাও সে তুং ও ডেং জিয়াওপিং-এর সঙ্গে এক কাতারে?

শি জিনপিং ও তাঁর মতাদর্শকে সরকারিভাবে চীনা কমিউনিস্ট পার্টির সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে৷ এই বিরল পদক্ষেপ সূচিত করে যে, শি মাও সে তুং থেকে চীনের সবচেয়ে প্রভাবশালী নেতায় পরিণত হতে চলেছেন৷

​​​​​​​

চীনের কমিউনিস্ট পার্টি মঙ্গলবার ঘোষণা করে যে, শি জিনপিং ও তাঁর রাজনৈতিক মতাদর্শকে দেশের সংবিধানে যোগ করা হচ্ছে৷ ‘‘এক নতুন যুগের জন্য চীনা বৈশিষ্ট্য সম্বলিত সমাজতন্ত্র সম্পর্কে শি জিনপিংয়ের চিন্তা'' – সরকারি বয়ানে এই হলো তার শীর্ষক৷ সেই ‘চিন্তা’ কমিউনিস্ট চীনের প্রতিষ্ঠাতা মাও সে তুংয়ের চিন্তাধারার পাশে স্থান নিতে চলেছে৷ ইতিপূর্বে সাবেক প্রেসিডেন্ট ডেং জিয়াওপিংয়ের নাম তাঁর মৃত্যুর পর সংবিধানে যোগ করা হয়েছিল৷

২০১২ সালে ক্ষমতায় আসার পর থেকে শি যে গতিবেগ ও সংকল্পের সাথে নিজের ক্ষমতা সুপ্রতিষ্ঠিত করেছেন, এই বিরল পদক্ষেপ তার প্রমাণ৷

সংবিধান সংশোধনের সরকারি বয়ানে বলা হয়েছে যে, শি-র মতাদর্শ ‘‘পার্টির কর্মধারার জন্য একটি আলোকবর্তিকা’’ হিসেবে কাজ করবে৷ শি-র মতাদর্শের একটি মূল নীতি হলো অর্থনীতি থেকে সোশ্যাল মিডিয়া অবধি সমাজজীবনের প্রতিটি অঙ্গে ও প্রতিটি ক্ষেত্রে কমিউনিস্ট পার্টির ভূমিকাকে সম্যক গুরুত্ব দেওয়া৷

‘আজীবন নেতা'

হংকংয়ের চীনা বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক উইলি লাম-এর মতে, শি-কে সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত করার ফলে তিনি ‘‘মাও সে তুংয়ের মতো আজীবন নেতা থাকার সুযোগ পাবেন, যদি তাঁর স্বাস্থ্য ভালো থাকে৷’’

লক্ষণীয় যে, শি অপরাপর প্রেসিডেন্টের মতো তাঁর কোনো সম্ভাব্য উত্তরাধিকারীর নামকরণ করেননি৷

অপরদিকে শি জাতীয় কংগ্রেস উদ্বোধনের সময় এক ‘নতুন যুগ’-কে স্বাগত জানান, যে যুগে চীন ২০৫০ সালের মধ্যে ‘‘এক বিশ্বব্যাপি নেতৃস্থানীয় দেশে’’ পরিণত হবে, বলে তিনি ভবিষ্যদ্বাণী করেন৷

এসি/এসিবি (এএফপি, এপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়