আরো দুর্বল হয়ে পড়লেন ম্যার্কেল | বিশ্ব | DW | 29.10.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

আরো দুর্বল হয়ে পড়লেন ম্যার্কেল

জার্মানির হেসে রাজ্যের নির্বাচনে দলের খারাপ ফলাফলের কারণে চ্যান্সেলর ও নেত্রী হিসেবে আরো চ্যালেঞ্জের মুখে পড়লেন আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ জোটসঙ্গী এসপিডি দলও আরো দুর্বল হয়ে পড়লো৷

রবিবার জার্মানির হেসে রাজ্যের নির্বাচনের পর চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের পায়ের নীচের মাটি আরো নরম হয়ে পড়লো৷ একের পর এক রাজ্য স্তরের নির্বাচনে তাঁর ইউনিয়ন শিবির খারাপ ফল করে চলেছে৷ তাঁর জোটসঙ্গী সামাজিক গণতন্ত্রী এসপিডি দলের ভরাডুবিও অব্যাহত রয়েছে৷ এই পরিস্থিতিতে তিনি একাধিক স্তরে চাপের মুখে পড়ছেন৷ বার্লিনে মহাজোট সরকারের আচরণ নিয়ে ভোটাররা সন্তুষ্ট নয়, এই সত্য বার বার স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে৷ দুর্বল জোটসঙ্গী এসপিডি দল এই জোট কতকাল টিকিয়ে রাখবে, তা নিয়ে সংশয় দেখা দিচ্ছে৷ নিজের সিডিইউ দলের মধ্যেও তাঁর নেতৃত্বের বিরুদ্ধে ক্ষোভ বাড়ছে৷ ইউনিয়ন শিবিরের অপর দল বাভেরিয়ার সিএসইউ সবে রাজ্য নির্বাচনে অভূতপূর্ব খারাপ ফল করে অনিশ্চয়তার মধ্যে রয়েছে৷ এমন প্রেক্ষাপটে ম্যার্কেল চ্যান্সেলার ও দলের শীর্ষ নেত্রী হিসেবে বর্তমান কার্যকাল শেষ করতে পারবেন কিনা, তা নিয়ে বারবার সংশয় দেখা দিচ্ছে৷

ক্ষমতাসীন জোটের তিন দলই দুর্বল হয়ে পড়ার পাশাপাশি গোটা জার্মানি জুড়ে সবুজ দলের প্রতি জনসমর্থন বেড়েই চলেছে৷ হেসে রাজ্যে এতকাল সবুজ দলের সঙ্গে যথেষ্ট সাফল্যের সঙ্গে জোট সরকার চালিয়ে এসেছে সিডিইউ দল৷ নির্বাচনি প্রচারে ম্যার্কেল ভোটারদের বারবার সে কথা মনে করিয়ে দিয়ে বলেছিলেন, বার্লিনের ফেডারেল সরকারের কাজে সন্তুষ্ট না হলেও তাঁরা যেন রাজ্য সরকারের ভালো কাজের স্বীকৃতি হিসেবে সিডিইউ দলকে ভোট দেন৷ রবিবারের নির্বাচনে সবচেয়ে শক্তিশালী দল হিসেবে টিকে থাকতে পারলেও সিডিইউ ১০ শতাংশের বেশি ভোট হারিয়েছে৷ সবুজ দল আগের বারের তুলনায় ৮ শতাংশ বেশি ভোট পেয়ে অল্প ব্যবধানে হলেও জোটের জন্য সংখ্যাগরিষ্ঠতা বজায় রাখতে পারবে বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে৷ চূড়ান্ত ফল প্রকাশিত হলে স্পষ্ট চিত্র পাওয়া যাবে৷

হেসে রাজ্যের নির্বাচনে চরম দক্ষিণপন্থি এএফডি দল তার ‘ষোলকলা পূর্ণ করলো'৷অর্থাৎ, জার্মানির ১৬টি রাজ্যেই তারা নিজেদের রাজনৈতিক উপস্থিতি নিশ্চিত করতে পারলো৷ প্রায় ১৩ শতাংশ ভোট পেয়ে রাজ্য বিধানসভায় বিরোধী দল হিসেবে উপস্থিত থাকবে এই দল৷

এসপিডি দলের শীর্ষ নেত্রী আন্দ্রেয়া নালেস রবিবার বলেন, ভোটারদের এই রায় দেখিয়ে দিচ্ছে, ফেডারেল সরকারের বর্তমান অবস্থা তাঁদের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়৷ এসপিডি ও সিডিইউ দলকে এই রায় মেনে নিয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে৷ সেইসঙ্গে নিজের এসপিডি দলে পরিবর্তনের উপরেও জোর দেন তিনি৷

সিডিইউ দলের সাধারণ সম্পাদক আনেগ্রেট ক্রাম্প-কারেনবাউয়ার-ও ভোটারদের রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে মহাজোট সরকারের মধ্যে কোন্দল বন্ধ করার ডাক দেন৷ তাঁর মতে, মানুষ ন্যায্যভাবে এই সরকারের কাছ থেকে ভালো কাজের প্রত্যাশা করেছে৷ তবে শীর্ষ নেত্রী হিসেবে ম্যার্কেলকে চ্যালেঞ্জ করার কোনো লক্ষণ তিনি দেখাননি৷

এসবি/এসিবি (ডিপিএ, রয়টার্স)

 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন