আরব সাগরে বেড়ে চলেছে ‘ডেড জোন′ | বিশ্ব | DW | 21.07.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জলবায়ু পরিবর্তন

আরব সাগরে বেড়ে চলেছে ‘ডেড জোন'

আরব সাগরে ডেড জোন বা মৃত এলাকা বেড়েই চলেছে৷ এখন তা আয়তনে প্রায় স্কটল্যান্ডের সমান৷ বিজ্ঞানীরা মনে করছেন, এই সংকটের জন্য দায়ী জলবায়ু পরিবর্তন৷

আবু ধাবির পরীক্ষাগারে এ নিয়ে ব্যাপক গবেষণা করেছেন জোহাইর লাখার৷ তাঁর সংগ্রহ করা পরিসংখ্যানের মধ্যে রয়েছে তাপমাত্রা, সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা এবং পানিতে অক্সিজেনের হারের পরিবর্তন৷

এ বছরের শুরুতে তাঁর গবেষণায় পাওয়া তথ্য এক ভয়াবহ ঘটনাকে সামনে নিয়ে এসেছে৷

সমুদ্রে মৃত এলাকা বলা হয় সেসব স্থানকে, যেখানে অক্সিজেনের মাত্রা এতটাই কম যে, মাছ বা অন্যান্য প্রাণীর জীবনধারণ প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে৷ আরব সাগরের এই মৃত এলাকা পৃথিবীতে ‘সবচেয়ে বড়' বলে দাবি লাখারের৷

‘‘একশ মিটার থেকে শুরু করে দেড় হাজার মিটার গভীরতা পর্যন্ত পানিতে অক্সিজেন প্রায় নেই বললেই চলে,'' বার্তাসংস্থা এএফপিকে জানিয়েছেন লাখার৷ নানবিধ কারণে সমুদ্রে মৃত এলাকার সৃষ্টি একটি স্বাভাবিক প্রাকৃতিক ঘটনা৷ কিন্তু ১৯৯০ সালে সবশেষ জরিপের পর বর্তমান পরিস্থিতি অনেকটাই অস্বাভাবিক৷

লাখারের সাথে অন্যান্য গবেষকরাও একমত যে, বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি এই মৃত এলাকার আয়তন দিন দিন বাড়াচ্ছে৷ এর ফলে জীববৈচিত্র্য তো হুমকির মুখে পড়ছেই, ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে মৎস্য ও পর্যটন শিল্পও৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

গবেষণায় ব্যবহার করা হয়েছে বিশেষ ধরনের ডাইভার রোবট, যারা মানুষের পক্ষে যাওয়া অসম্ভব, এমন সব স্থানে পৌঁছে তথ্য ও নমুনা সংগ্রহ করেছে৷ যৌথভাবে এই গবেষণা পরিচালনা করেছে ব্রিটেনের ইস্ট আঙ্গেলিয়া ইউনিভার্সিটি এবং ওমানের সুলতান কাবুস ইউনিভার্সিটি৷

২০১৫ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত চালানো এই গবেষণার ফল প্রকাশ করা হয় এপ্রিলে৷ সেখানে দেখা যায়, আরব সাগরে পরিস্থিতি ক্রমেই খারাপ হয়ে চলেছে৷

১৯৯৬ সালের গবেষণায় দেখা গিয়েছিল, মৃত এলাকার সর্বনিম্ন গভীরতা কেবল সে এলাকার কেন্দ্রেই ছিল৷ কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে, পুরো মৃত এলাকা জুড়েই গভীরতা সর্বনিম্ন পর্যায়ে পৌঁছে গেছে৷

এর ফলে শুধু আরব সাগরই নয়, ভারত মহাসাগর এবং ভারতের মুম্বই থেকে শুরু করে ওমানের মাস্কট পর্যন্ত পড়বে নানা ধরনের প্রভাব৷ এর ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হবে সামুদ্রিক কোরালও৷

আরেক গবেষক ডিয়ানা ফ্রান্সিস মনে করেন, ‘‘শুধু বিজ্ঞান বা পরিবেশ নয়, অর্থনৈতিক কারণেও জরুরি ভিত্তিতে এদিকে নজর দেয়া উচিত৷''

কার্বন নিঃসরণ কমাতে ২০১৫ সালে প্যারিসে জলবায়ু চুক্তি হওয়ার পর আশাবাদী হয়েছিলেন বিজ্ঞানীরা৷ কিন্তু মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে প্রত্যাহার করায় হুমকিতে পড়েছে এই চুক্তি৷

ডিয়ানা এ নিয়ে উদ্বিগ্ন৷ তিনি বলছেন, ‘‘রাজনীতি দিন বদলের সাথে পালটে যাবে, কিন্তু বৈজ্ঞানিক গবেষণায় প্রাপ্ত তথ্য তো আর পালটাবে না৷ পরিস্থিতি সত্যিই ভয়াবহ৷''

এডিকে/এসিবি (এএফপি, এপি)

বিশ্বব্যাপী কার্বন নিঃসরণ কি আদৌ কমানো যাবে? জানান নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন