‘আমাদের ভাষার প্রতি, দেশের প্রতি প্রেম একটু কম’ | আলাপ | DW | 05.03.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সাক্ষাৎকার

‘আমাদের ভাষার প্রতি, দেশের প্রতি প্রেম একটু কম’

কবি ফরিদ কবির বাংলা ভাষার শব্দে সাম্প্রদায়িকতা, রাজনীতি, অর্থনীতি, বর্ণবাদসহ আরো নানা দিক নিয়ে কথা বলেছেন ডয়চে ভেলের সঙ্গে৷

কবি ফরিদ কবির

কবি ফরিদ কবির

ডয়চে ভেলে: এখন ‘জান ও জবানের স্বাধীনতা’ শব্দ গুচ্ছ নিয়ে নানা কথা হচ্ছে৷ বাংলা ভাষায় অন্য ভাষা বা বাইরের শব্দ প্রবেশে রাজনীতি, ধর্ম বা সাম্প্রদায়িকতা যা-ই বলুননা কেন কতটা প্রভাব রাখছে?

ফরিদ কবির: দেশের মানুষের মধ্যে দুই শ্রেণির মানুষ আছে৷ সেটা ভারত ভাগের পর থেকেই আছে৷ একটা সাম্প্রদায়িক শক্তি, সব সময়ই তারা সক্রিয় ছিল৷ আবার একটি অসাম্প্রদায়িক চেতনার বিষয়টিও সক্রিয় ছিল৷ যে কারণে আমরা দেখি ১৯৪৭ সালে ভারত ভাগ হয়ে পাকিস্তান হওয়া৷ পাকিস্তানে উর্দু রাষ্ট্রভাষা ঘোষণা দেয়া৷ তারপরে এই দেশের মানুষের মাতৃভাষার প্রতি ভালোবাসা, ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ সব কিছু মিলিয়ে ভাষা আন্দোলন ও স্বাধীন দেশের প্রতি যাত্রা৷ এই পুরো ইতিহাস যদি আমরা দেখি তাহলে আমরা দেখবো এখানে সাম্প্রদায়িক শক্তি সক্রিয় ছিল এবং অসাম্প্রাদায়িক শক্তিও বড় রকমের সক্রিয় ছিল৷ সাম্প্রদয়িক শক্তির দৈনন্দিন জীবনের যে চর্চা, ভাষায় তো তার প্রভাব পড়বেই৷ বাঙালি মুসলমানদের যারা আরবি-ফার্সির চর্চা একটু বেশি করেন, তাদের মাধ্যমে আমাদের ভাষায় আরবি-ফারসি ঢুকেছে৷ আবার ইংরেজি ও হিন্দি শব্দের ব্যবহারও আমরা লক্ষ্য করি৷ ভাষা একটি বহতা নদীর মতো ৷ তাই আপনি চাইলেই ভিনদেশি শব্দ বের করে দিতে পারবেন না৷ এরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে ঢুকে পড়ে৷ এটাই ভাষার সৌন্দর্য৷

অডিও শুনুন 17:20

‘অনেকে মনে করেন, বাংলার সাথে ইংরেজি মেশালে হয়তো একটু স্মার্ট লাগবে, একটু শিক্ষিত মনে হবে’

চাপিয়ে দেয়ার প্রবণতা আছে ?ইনশাল্লাহ, মাশাল্লাহ নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে কথা আছে৷ আবার হিন্দির প্রবেশ নিয়েও কথা হয়৷ এখানে অনকাঙ্খিত কোনো প্রবণতা আছে বলে মনে করেন?

আমার ব্যক্তিগতভআবে মনে হয় না যে, চাপিয়ে দেয়া কোনো কিছু কোনো ভাষা কখনো গ্রহণ করে৷ আমি হিন্দুদেরও মাশাল্লাহ বলতে শুনেছি৷ কোলকাতায় বলে মাশাল্লাহ খুব ভালো৷ তখন এটার ভিতরে কিন্তু আর ধর্মীয় বিষয় থাকে না৷ হিন্দি সিনেমায়ও হিন্দু ক্যারেক্টার মাশাল্লাহ বলে৷ আবার মুসলমানরাও আদাব বলে৷ এটা আত্মীকরণ৷ চাপিয়ে দেয়া হলে ভাষা তা নেয় না৷

বাংলা বলতে গিয়ে অনেক ইংরেজি শব্দের মিশ্রণ বাংলা ভাষার কোনো ক্ষতি করে কিনা...

এটা হীনমন্যতা থেকে হয়৷ অনেকে মনে করেন, বাংলার সাথে ইংরেজি মেশালে হয়তো একটু স্মার্ট লাগবে, একটু শিক্ষিত মনে হবে৷ একটা ঔপনিবেশিক মানসিকতা তো আমাদের মধ্যে আছে৷ যেকোনো ভাষা দাঁড়ায় তার অর্থনৈতিক শক্তির ওপর৷ ভাষার রাজনৈতিক দিক যেমন থাকে৷ তার একটি অর্থনৈতিক দিক আছে৷ জাপানিদের অর্থনীতি শক্তিশালী৷ তাদের ইংরেজি বা অন্য ভাষা না শিখলেও চলে৷ আবার কেউ কেউ নিজের ভাষাকে মর্যাদা দিতে জানে৷ যেমন তামিলরা৷ ভারতে হিন্দি যত শক্তিশালীই হোক না কেন, তারা কিন্তু তামিল ভাষার বাইরে বলবে না৷ আমাদের বাঙালিদের মধ্যে আমার মনে হয়, যে কারণেই হোক, ভাষার প্রতি যে প্রেম, দেশের প্রতি যে প্রেম, সেটা কিছুটা কম আছে৷

বিদেশি শব্দ আমরা বাংলায় কিভাবে নেবো, কতটা নেবো এর কি কোনো নিয়ম আছে? বাংলা একাডেমির অভিধানের কি কোনো নিয়ম আছে এ ব্যাপারে?

বাংলা ভাষার অভিধান তো বাংলা ভাষারই অভিধান৷ তবে বিদেশি ভাষা কতটা, কীভাবে নেয়া হবে, তার কোনো নিয়ম আছে কিনা তা আমি বলতে পারবো না৷ এটা ভাষা বিজ্ঞানীরাই ভালো বলতে পারবেন৷ তবে বাংলা ভাষা, ভাষা হিসেবে স্বয়ংসম্পূর্ণ৷ হাজার বছরের বাংলা ভাষা নানা চড়াই-উৎড়াই পাড়ি দিয়ে, নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষার মধ্য দিয়ে এই পর্যায়ে এসেছে৷ ভাষা নিজেই বদলায় নিজেকে৷

এক সময় উর্দু হরফে বাংলা লেখার চেষ্টা হয়েছে৷ এখন রোমান হরফের বাংলা লেখা হচ্ছে৷ বিশেষ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বাংলা ইংরেজি মিলিয়ে লেখার প্রবণতা...
বাংলা ভাষার প্রতি প্রেম না থাকলে এরকম হয়৷ এখন ইউনিকোডে এত রকম ব্যবস্থা আছে যে, আপনি চাইলে বাংলাই লিখতে পারেন৷

আঞ্চলিক ভাষা কি মান বাংলা ভাষার পথে কোনো বাধা?

আমি মনে করি, আমাদের প্রতিটি আঞ্চলিক ভাষাই আলাদা বৈশিষ্ট্যের এবং আলাদা মর্যাদার৷ তবে যখন আমরা সবার জন্য বলবো তখন একটা মান ভাষা থাকবে৷

ভাষায় বর্ণবাদ, লিঙ্গ বৈষম্য, সাম্প্রদায়িকতা এগুলো কি ভাষার সমস্যা?

না, এগুলো মানুষের সমস্যা৷ ব্যবহারের সমস্যা৷  কয়েক দিন ধরে ফেসবুক গরম হয়ে উঠেছে প্রথম আলোর একটি শিরোনা নিয়ে- ‘কালো, তবু সুন্দর’৷ এটা তো  ব্যবহারের সমস্যা৷  কারণ, এটা যিনি ব্যবহার করলেন তার মধ্যে বর্ণবাদ বিষয়টি রয়ে গেছে৷ বিশেষ বর্ণের প্রতি তার ভালোবাসা, তার প্রেম, এটা বোঝা যায়৷ আবার এটা থেকে বিশেষ বর্ণের প্রতি তার অনাগ্রহ, অপ্রেম-এটাও বোঝা যায়৷

বাংলা ভাষা কি এখন আধিপত্যবাদী? এখানে তো অনেক ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর ভাষা আছে৷ তাদের ওপর কি বাংলা আধিপত্য বিস্তার করছে?

এটা আমি ভাষার সমস্যা মনে করি না৷ এই সমস্যা রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গির৷ কারণ, ভাষারও তো একটা রাজনীতি আছে৷ যেমন, এব সময় উর্দু আমাদের ওপর চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টা হয়েছে৷ আমরাও চাইছি এখন বাংলা ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীসহ সবার ওপর চাপিয়ে দিতে৷ যারা সংখ্যাগরিষ্ঠ, তারা চায় তাদের ভাষা, ধর্ম, সংস্কৃতি অন্যের ওপর চাপিয়ে দিতে৷ এটা করা হয় আধিপত্যবাদী মানসিকতা থেকেই৷ কিন্তু এটা হওয়া উচিত না৷ প্রতিটি ভাষাকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে৷ আমাদের ভাষা আন্দোলন তো মাতৃভাষার জন্য আন্দোলন৷ তাই সব মাতৃভাষার প্রতিই আমাদের দরদ দেখতে হবে৷ তাদের সক্রিয় রাখা আমাদের দায়িত্ব৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়