‘আমরা কোনোভাবেই জঙ্গি অর্থায়নের সঙ্গে জড়িত নই’ | বিশ্ব | DW | 19.07.2012
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

‘আমরা কোনোভাবেই জঙ্গি অর্থায়নের সঙ্গে জড়িত নই’

বাংলাদেশের দু’টি বেসরকারি ব্যাংকের বিরুদ্ধে জঙ্গি অর্থায়নের অভিযোগ খতিয়ে দেখবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক৷ যদি জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া যায়, তাহলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে৷

সম্প্রতি মার্কিন সিনেটে বাংলাদেশের ইসলামী ব্যাংক এবং স্যোশাল ইসলামী ব্যাংকের বিরুদ্ধে জঙ্গি ও সন্ত্রাসী তৎপরতায় অর্থায়নের অভিযোগ তোলা হয়েছে৷ তাদের রিপোর্টে বলা হয়েছে, এই দু'টি ব্যাংকের বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকার পরও বহুজাতিক হংকং সাংহাই ব্যাংকিং কর্পোরেশরন বা এইচএসবিসি ব্যাংক তাদের সহযোগিতা করেছে৷ আর এ নিয়ে এখন নড়েচড়ে বসেছে বাংলাদেশ ব্যাংক৷ বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এস কে সুর জানিয়েছেন, ২০০৫ এবং ২০০৭ সালে এ ধরনের ঘটনায় ব্যবস্থা নিয়েছিল বাংলাদেশ৷ তিনি জানান, শুধু বাংলাদেশের দু'টি ব্যাংকই নয়, বাংলাদেশে এইচএসবিসি ব্যাংকের ভূমিকাও খতিয়ে দেখা হবে৷ আর জঙ্গি অর্থায়নে তাদের কোনো ভূমিকা পাওয়া গেলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে৷

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান বলেন, মার্কিন সিনেটের রিপোর্ট পর্যালোচনা করে দেখা হচ্ছে৷ যাচাই বাছাই শেষে ব্যবস্থা নেয়া হবে৷ তিনি বলেন, বাংলাদেশে মানিলন্ডারিং-এর বিরুদ্ধে কঠোর আইন রয়েছে৷ তাই অভিযোগ প্রমাণ হলে শাস্তি পেতেই হবে৷

এদিকে বাংলাদেশের অভিযুক্ত ব্যাংকের একটি ইসলামী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আব্দুল মান্নান ডয়চে ভেলের কাছে দাবি করেছেন যে, তারা কোনোভাবেই জঙ্গি বা সন্ত্রাসী অর্থায়নের সঙ্গে জড়িত নন৷ তাদের দায়বদ্ধতা আছে সরকার এবং গ্রাহকদের কাছে৷ তাই তারা স্বচ্ছতার সঙ্গে কাজ করে চলেছেন৷

তিনি দাবি করেন, দেশের রপ্তানি বাণিজ্যে ইসলামী ব্যাংকের বড় ভূমিকা থাকায় এইচএসবিসিসহ আন্তর্জাতিক ব্যাংক তাদের সঙ্গে কাজ করতে চাইবে, এটাই স্বাভাবিক৷

উল্লেখ্য, মার্কিন সিনেট রিপোর্টে বলা হয়েছে যে বাংলাদেশের দু'টি ব্যাংক এইচএসবিসি ব্যাংকের দুর্বল ব্যবস্থাপনার সুযোগ নিয়ে থাকতে পারে৷

প্রতিবেদন: হারুন উর রশীদ স্বপন, ঢাকা

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়