আবার মার্কিন নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করবে রাশিয়া? | বিশ্ব | DW | 30.01.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্র

আবার মার্কিন নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করবে রাশিয়া?

সোমবার রাশিয়া প্রশ্নে ট্রাম্প প্রশাসন একাধিক দিক থেকে বাড়তি চাপের মুখে পড়েছে৷ এফবিআই-এর উপ প্রধানের পদত্যাগের পাশাপাশি সিআইএ প্রধানের মন্তব্য নিয়ে জল্পনাকল্পনা চলছে৷

রাশিয়ার প্রশ্নে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলির সঙ্গে ট্রাম্প প্রশাসনের সংঘাত আরও তীব্র হয়ে উঠছে৷ সিআইএ প্রধান মাইক পম্পেও এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ২০১৮ সালে মার্কিন সংসদ নির্বাচনেও রাশিয়া হস্তক্ষেপ করতে পারে৷ তবে তা সত্ত্বেও অ্যামেরিকায় মুক্ত ও অবাধ নির্বাচন আয়োজন করা সম্ভব হবে বলে তিনি আস্থা প্রকাশ করেন৷

রাশিয়া প্রশ্নে সংঘাতের জের ধরে এফবিআই-এর উপ-প্রধান অ্যান্ড্রু ম্যাককেব পদত্যাগ করেছেন৷ ট্রাম্প সরাসরি তাঁর বিরুদ্ধে ডেমোক্র্যাট দলের প্রতি পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ এনেছিলেন৷

মার্কিন সংসদও রাশিয়া প্রশ্নে আরও সক্রিয় হয়ে উঠছে৷ মার্কিন কংগ্রেস রাশিয়ার উপর বাড়তি নিষেধাজ্ঞা চাপানোর সিদ্ধান্ত নিলেও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এখনই সেই পদক্ষেপ নিতে নারাজ৷ এর মাধ্যমে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুটিন-এর ঘনিষ্ঠ ব্যবসায়ীদের উপর চাপ বাড়াতে চেয়েছিল কংগ্রেস৷ তাদের একটি তালিকা তৈরি করে ভবিষ্যতে তাদের উপর সম্ভাব্য নিষেধাজ্ঞা চাপানোর জন্য প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছিল৷ কিন্তু ট্রাম্প প্রশাসনের যুক্তি, রাশিয়ার প্রতিরক্ষা ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলির উপর চাপ বাড়াতে গত বছর যে আইন কার্যকর করা হয়েছে, তার ফল পাওয়া যাচ্ছে৷ রাশিয়ার অস্ত্র বিক্রির পরিমাণ কমে গেছে৷ তাই এখনই আলাদা করে নিষেধাজ্ঞা চাপানোর প্রয়োজন নেই৷

বলা বাহুল্য, ট্রাম্প প্রশাসনের এই মনোভাবের ফলে বেশ কয়েকজন সংসদ সদস্য তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন৷ বিগত মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার অবৈধ হস্তক্ষেপ নিয়ে তদন্ত শেষ হবার আগেই আগামী নির্বাচনে মার্কিন জনমতের উপর প্রভাব ফেলতে রাশিয়ার সক্রিয় প্রস্তুতি নিয়ে জল্পনাকল্পনা শুরু হয়েছে৷ সেই প্রেক্ষাপটে রাশিয়া প্রশ্নে ট্রাম্প প্রশাসনের নিষ্ক্রিয় থাকার সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশ্ন উঠছে৷

এদিকে সেনেট ইনটেলিজেন্স কমিটির রিপাবলিকান সদস্যরা রাশিয়া তদন্তে গোয়েন্দা সংস্থাগুলির ‘অবৈধ' কার্যকলাপ তুলে ধরতে একটি গোপন মেমো প্রকাশ করতে ভোট দিয়েছেন৷ তাঁদের অভিযোগ, এফবিআই ও বিচার মন্ত্রণালয় সেই কাজে নির্বাচনি প্রচারের সময় ট্রাম্প টিমের উপর অবৈধ নজরদারি চালিয়েছিল৷ ডেমোক্র্যাট দলও সেই মেমো প্রকাশের পক্ষে৷ তবে তাদের অভিযোগ, সেই মেমোতে গোয়েন্দা সংস্থাগুলির প্রকৃত ভূমিকা স্পষ্ট হবে না৷ কারণ তাতে অনেক ত্রুটি রয়েছে এবং বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের উল্লেখ নেই৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন