আবার কখন বাজবে সেই ঘণ্টা! | বিশ্ব | DW | 23.08.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

আবার কখন বাজবে সেই ঘণ্টা!

যুক্তরাষ্ট্রের জন্স হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসেবে গত ২৮ দিনে করোনা সংক্রমণের সংখ্যার দিক থেকে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান ১৬ নম্বরে৷ এ সময়ে বাংলাদেশে দুই লাখ ৯৭ হাজার ৩৬৩ জন সংক্রমিত হয়েছেন৷ মারা গেছেন ছয় হাজার আট জন৷

করোনা মহামারির শুরু থেকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনা সংক্রমণ ও নিহতের সংখ্যা প্রকাশ করছে জন্স হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের করোনাভাইরাস রিসোর্চ সেন্টার৷ তাদের হিসেবে (https://coronavirus.jhu.edu/map.html) গত ২৮ দিনে যুক্তরাষ্ট্রে ৩২ লাখ ৬৫ হাজার ৯৮৯ জন করোনা সংক্রমিত হয়েছেন৷ এই সময়ে দেশটিতে মারা গেছেন ১৭ হাজার ৭০৯ জন৷ শেষ ২৮ দিনে আর কোনো দেশে এত বেশি করোনা সংক্রমণের ঘটনা ঘটেনি৷

তালিকায় ক্রমান্বয়ে যুক্তরাষ্ট্রের পরের দেশগুলো হচ্ছে ভারত (সংক্রমিতের সংখ্যা ১০ লাখ ১২ হাজার ৯৭২), ইরান, ব্রাজিল, ইন্দোনেশিয়া, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, তুরস্ক, রাশিয়া, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, স্পেন, মেক্সিকো, জাপান, সাউথ আফ্রিকা ও বাংলাদেশ৷

বাংলাদেশে গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ আছে৷ এরপর কয়েক দফা চেষ্টা করেও পরিস্থিতির যথেষ্ট উন্নতি না হওয়ায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা যায়নি, বরং দফায় দফায় ছুটি বাড়ানো হয়েছে৷ তবে ইউনেস্কোর হিসেবে (https://en.unesco.org/covid19/educationresponse#schoolclosures) দেখা যাচ্ছে, জন্স হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় বাংলাদেশের আগে যে ১৫টি দেশ আছে সেগুলোর কোনোটিতেই টানা স্কুল বন্ধ থাকেনি৷ পরিস্থিতি বিবেচনা করে দেশগুলোতে বিভিন্ন সময়ে আংশিক বা পুরো স্কুল খোলা হয়েছে৷ আবার পরিস্থিতির অবনতি ঘটলে কিছুদিনের জন্য স্কুল বন্ধ রাখা হয়েছে৷

ইউনিসেফ ও ইউনেস্কো গত ১২ জুলাই এক যৌথ বিবৃতিতে বলেছে, করোনা সংক্রমণ ছড়ানোর মূল চালকগুলোর মধ্যে যে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্কুলের শিক্ষার্থীরা নেই, সেটা স্পষ্ট প্রমাণিত হয়েছে৷ সুতরাং স্কুল খোলার সিদ্ধান্ত নেয়ার সময় করোনা সংক্রমণ ‘শূন্য' হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করা যেতে পারেনা৷

অনেক দেশে বার ও রেস্টুরেন্ট খুলে দিলেও স্কুল বন্ধ রাখা হয়েছে বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়৷ অথচ সংক্রমণ ঠেকাতে কোনো কিছু বন্ধ করতে হলে সবার শেষে স্কুল বন্ধ করা উচিত আর সংক্রমণ কমার পর সবার আগে স্কুল খোলা উচিত৷ স্কুল বন্ধ থাকার কারণে শিশুদের যা ক্ষতি হচ্ছে তা হয়ত কখনই পূরণ নাও হতে পারে বলে বিবৃতিতে মন্তব্য করা হয়েছে৷

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত বুধবার এক সভায় করোনা সংক্রমণ কমে ‘সুবিধাজনক পরিস্থিতি' হলে এবং টিকা দেওয়ার বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে যত দ্রুত সম্ভব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিতে বলেছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘এটাই এখন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ৷ কারণ বাচ্চারা ঘরে থাকতে থাকতে তাদেরও যথেষ্ট কষ্ট হচ্ছে৷ আর সেদিকে আমাদের আরো নজর দেওয়া দরকার৷''

এর আগে গত সোমবার শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানান, সরকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পুনরায় চালু করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নিচ্ছে৷ তিনি বলেন, ‘‘যদি সংক্রমণের হার একবারেই কমে যায়, সেক্ষেত্রে হয়তো সব ধরণের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে৷'' আর যদি সংক্রমণ একটা পর্যায়ে চলতে থাকে সেক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আগে খুলে দেওয়া হতে পারে বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী৷

জেডএইচ/কেএম (জন্স হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়, ইউনেস্কো, ইউনিসেফ, বিডিনিউজ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়