আফ্রিদির উদ্যোগকে সমর্থন জানিয়ে তোপের মুখে ভারতের দুই ক্রিকেটার | খেলাধুলা | DW | 02.04.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

আফ্রিদির উদ্যোগকে সমর্থন জানিয়ে তোপের মুখে ভারতের দুই ক্রিকেটার

নিজের ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে করোনা ভাইরাসের শিকারদের পাশে দাঁড়াচ্ছেন পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার শহিদ আফ্রিদি৷ তাকে সমর্থন জানাতে গিয়ে তোপের মুখে পড়েছেন হরভজন সিং ও যুবরাজ সিং৷

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

চ্যারিটি ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে পাকিস্তানে করোনা ভাইরাসের শিকারদের সহায়তা করার জন্য তহবিল সংগ্রহ করছেন শহিদ আফ্রিদি ৷ সবাইকে আর্থিক অনুদান দিয়ে এই উদ্যোগে যুক্ত হওয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন তিনি৷ এক টুইট বার্তায় ‘বুম বুম আফ্রিদি’র উদ্যোগের প্রশংসা করেছিলেন ভারতের সাবেক ক্রিকেটার হরভজন সিং৷ যুবরাজ সিংও আফ্রিদিকে সমর্থন জানিয়েছিলেন ভিডিও বার্তার মাধ্যমে৷

ভারত-পাকিস্তানের বৈরি সম্পর্কের রেশ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উঠে আসতে সময় লাগেনি৷ কাশ্মীর ইস্যুতে ভারতের একেবারে বিপরীত অবস্থান শহিদ আফ্রিদির৷ এই বিষয়টি মনে করিয়ে দিয়ে আফ্রিদির পাশে দাঁড়ানোর জন্য হরভজন ও যুবরাজের তীব্র সমালোচনা করেছেন অনেকেই৷ তাদের কেউ কেউ মনে করছেন এর মাধ্যমে ভারতের দুই সাবেক ক্রিকেটার প্রকারান্তরে নিজের দেশের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন৷ টুইটারে একজন হরভজন ও যুবরাজের কাছে জানতে চেয়েছেন, ‘‘আপনাদের কোনো কাণ্ডজ্ঞান আছে?’’ আরেকজন লিখেছেন, ‘‘সম্মান হারালেন৷ হ্যাঁ, আপনারা তা হারিয়ে ফেলেছেন৷’’

ভারতের কিছু মানুষের এমন প্রতিক্রিয়ায় বিস্ময় প্রকাশ করেছেন শহিদ আফ্রিদি৷ নিজের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টে তিনি লিখেছেন, ‘‘মানবতার সমর্থনে দেয়া সাধারণ বক্তব্যেও মানুষ ভুল বুঝছে৷ খুব দুঃখজনক! আমরা তো ভালোবাসা ও শান্তির দূত!’’ তার পাশে দাঁড়ানোর জন্য সাবেক স্পিনার হরভজন ও সাবেক অলরাউন্ডার যুবরাজের প্রশংসাও করেছেন তিনি৷

 

অন্যদিকে সমালোচনার মুখেও নিজের অবস্থান থেকে সরেননি যুবরাজ সিং৷ নিজেকে দেশপ্রেমিক দাবি করে তিনি লিখেছেন, ‘‘সমাজে নাজুক অবস্থায় থাকা মানুষদের সাহায্য করার আবেদনে কিভাবে মানুষ রেগে যেতে পারে বুঝতে পারছি না৷ ওই বার্তার মাধ্যমে আমি দু'দেশের মানুষের জন্যই স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে চেয়েছিলাম৷ কারো অনুভূতিতে আঘাত দেয়ার কোনো ইচ্ছাই ছিল না৷’’

এসিবি/কেএম (এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন