আফগানিস্তানে রোগীদের সহায়তায় টেলিমেডিসিন | অন্বেষণ | DW | 02.08.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

আফগানিস্তান

আফগানিস্তানে রোগীদের সহায়তায় টেলিমেডিসিন

সংকটে জর্জরিত দেশ আফগানিস্তানে সাধারণ মানুষের জন্য চিকিৎসার অবকাঠামো অত্যন্ত দুর্বল৷ করোনা মহামারির ফলে বিদেশে চিকিৎসার সুযোগও কমে গেছে৷ এই অবস্থায় টেলিমেডিসিন প্রযুক্তি কাজে লাগছে৷

ভিডিও দেখুন 04:37

দূরে বসেই চিকিৎসা সম্ভব

গোলামরেজা তার বৃদ্ধ বাবা আলি হুসেনকে বামিয়ান কেন্দ্রীয় হাসপাতালে টেলি-চিকিৎসার জন্য নিয়ে এসেছেন৷ আফগানিস্তানের মধ্যভাগে পাহাড়ি ও দরিদ্র এই প্রদেশে উন্নত চিকিৎসার সুযোগ খুবই কম৷ গোলামরেজা বলেন, ‘‘আমি আমার বাবাকে চিকিৎসার জন্য দু'বার কাবুলে নিয়ে গিয়েছিলাম৷ কিন্তু সেখানে ভালো ফল পাইনি৷ আমরা গরিব এবং অর্থ ব্যয় করেও আমরা সঠিক ফল পাইনি৷ এখন আমরা বামিয়ান কেন্দ্রীয় হাসপাতালে ফিরে এসেছি৷'' 

আফগানিস্তানের অন্যান্য স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলির মতো বামিয়ান কেন্দ্রীয় হাসপাতালেও চিকিৎসার ক্ষমতা ও ব্যবস্থা অত্যন্ত সীমিত৷ সম্ভবত ক্যামেরা টিমের কল্যাণে এই বৃদ্ধ মানুষটি হুইলচেয়ার পেয়েছেন৷ না পেলে তাঁকে পায়ে হেঁটে এগিয়ে যেতে হতো৷ বিশ্বের অন্যান্য প্রান্তের মতো আফগানিস্তানেও দরিদ্র মানুষের জন্য সুযোগের দ্বার সহজে খোলে না৷

তাদের অনেককেই অপেক্ষা করতে হয়৷ কাবুলের ফরাসি হাসপাতালের এক বিশেষজ্ঞ ডাক্তার বৃদ্ধ মানুষটিকে পরীক্ষা করেছেন৷ রোগী জানালেন, তার হাত ও পা অসাড় হয়ে গেছে৷ প্রায় এক বছর ধরে তার এই দশা৷ তিনি ঠিকমতো শরীর নড়াচড়া করতে পারেন না৷ মাথা ও হাতের মতো শরীরের কিছু অংশ কাঁপছে৷

এবার রিমোট পরীক্ষার পালা৷ ফরাসি হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ ক্যামেরার মাধ্যমে রোগীর সঞ্চালন দেখে নিলেন৷ তারপর রোগ নির্ণয় করলেন তিনি৷ বামিয়ানের ডাক্তারদের সঙ্গে তিনি একমত৷ অর্থাৎ, রোগীর শরীরে পার্কিনসনিজম ও পার্কিনসনস রোগের লক্ষণ রয়েছে৷ বামিয়ান কেন্দ্রীয় হাসপাতালের ডাক্তার মনে করেন, এমন ক্রনিক রোগের কারণে এই সব ওষুধ খেলে ধীরে ধীরে অবস্থার উন্নতি হবে এবং কাঁপুনি কমে যাবে৷

যুদ্ধ ও নিরাপত্তার অভাব আফগানিস্তানের সব অবকাঠামো ধ্বংস করে দিয়েছে৷ মানুষ চিকিৎসা পরিষেবার নাগাল পাচ্ছে না৷ টেলিমেডিসিন বিভাগের প্রধান ড. হোমায়ুন রসুলি বলেন, ‘‘টেলিমেডিসিনের তিনটি ইতিবাচক দিক রয়েছে৷ মানুষ সময় নষ্ট করে না, অর্থেরও অপচয় করে না এবং স্বাস্থ্য খাতে বিশেষজ্ঞদের পরিষেবা পায়৷ আমাদের লোকজন গরিব, কাবুলে গিয়ে চিকিৎসা করাতে পারে না৷ সড়কপথে যাত্রাও নিরাপদ নয়৷ এভাবে ভ্রমণ করতে যারা ভয় পায়, আমরা এমন অনেকের চিকিৎসা করি৷ সামগ্রিকভাবে গরিব পরিবারগুলির জন্য এটা একটা ভালো ব্যবস্থা হয়েছে৷'' 

ভিডিও দেখুন 04:33

যেভাবে টেলিমেডিসিন প্রযুক্তি কাজে লাগাচ্ছে আফগানরা

হাজার হাজার আফগান প্রতি বছর ভারত, পাকিস্তান ও ইরানে চিকিৎসা করাতে যান৷ কিন্তু করোনা মহামারির শুরু থেকে সে সব দেশে ভ্রমণের সুযোগ আর নেই বললেই চলে৷ বিশেষ করে নারী ও শিশুদের জন্য পরিস্থিতি অত্যন্ত কঠিন হয়ে উঠেছে৷

করোনা সংকটের কারণে আফগানিস্তানের হাসপাতালগুলির ক্ষমতা আরও সীমিত হয়ে পড়েছে৷ কিন্তু কর্মকর্তারা ‘ডিসটেন্স লার্নিং' কর্মসূচির মাধ্যমে বিদেশি ডাক্তারদের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে অভ্যন্তরীণ ক্ষমতা বাড়ানোর চেষ্টা করছেন৷ বামিয়ান প্রাদেশিক হাসপাতালের প্রধান ড. ফারুগ আমিরি বলেন, ‘‘আমাদের কিছু কর্মসূচির মাধ্যমে বিষয় চিহ্নিত করে বিদেশি বিশেষজ্ঞদের দিয়ে আমাদের সহকর্মীদের জন্য অনলাইন প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা হচ্ছে৷''

বিশেষজ্ঞের পরামর্শ ও চিকিৎসার লক্ষ্যে আফগানিস্তানের জনস্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সবার আগে দেশের হাসপাতালগুলির মধ্যে সংযোগ স্থাপন করে তারপর বিদেশি চিকিৎসাকেন্দ্রগুলির বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে তাদের যোগাযোগ করিয়ে দিতে চাইছে৷ আফগানিস্তানের কমপক্ষে ১৫টি প্রদেশে টেলিমেডিসিন সেন্টার গড়ে তোলা হয়েছে৷

মহম্মদ রেজা শিরমোহাম্মাদি/এসবি

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়