আফগানিস্তানে তালেবান, বাংলাদেশের দুই ঝুঁকি | বিষয় | DW | 16.08.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

আফগানিস্তানে তালেবান, বাংলাদেশের দুই ঝুঁকি

তালেবান পুনরায় ক্ষমতার দখল নিয়েছে আফগানিস্তানে৷ বাংলাদেশে এর কেমন প্রভাব পড়তে পারে? কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা?

‘‘আফগানিস্তানে তালেবানের আগমনে দু'টি ঝুঁকি তৈরি হয়েছে৷ একটি জঙ্গি বিস্তার, আরেকটি হল মার্কিন সৈন্য প্রত্যহারের পর সেখানে যে নিরাপত্তাশূন্যতা তৈরি হয়েছে, এখন আঞ্চলিক শক্তিগুলো সেখানে আধিপত্য বিস্তারের প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হবে৷ ফলে আঞ্চলিক সংঘাতের সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে৷ যেহেতু বাংলাদেশ এই অঞ্চলের একটি দেশ, ফলে তারা কমবেশি দু'টি ঝুঁকিতেই পড়তে পারে,'' ডয়চে ভেলেকে বলছিলেন নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) আব্দুর রশীদ৷

তবে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক ও সাবেক কূটনীতিকরা বলছেন, এই মুহুর্তে বাংলাদেশের শঙ্কার তেমন কোনো কারণ নেই, কারণ ২০ বছর আগের বাংলাদেশ আর এই বাংলাদেশ এক নয়৷ আবার ২০ বছর আগের তালেবান আর এখনকার তালেবানের মধ্যেও পার্থক্য আছে৷ তবে তারা বলছেন, বাংলাদেশকে সতর্ক থাকতে হবে৷ যে কোনো দেশ জঙ্গি নিয়ে যেভাবে সজাগ থাকে, বাংলাদেশেও সেটুকু থাকতে হবে৷

অডিও শুনুন 02:56

‘‘আঞ্চলিক সংঘাতের সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে’’: আবদুর রশিদ

দু'টি ঝুঁকির ব্যাখা করতে গিয়ে জেনারেল রশিদ বলেন, ‘‘আগে তালেবান জঙ্গি বিস্তারে যে প্রত্যয় নিয়ে কাজ করতো, এখন হয়ত সে প্রত্যয় নিয়ে কাজ করবে না৷ যেহেতু তালেবান অতীতে সারা বিশ্বে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হিসেবে পরিচিত ছিল, এবার তারা সেখান থেকে বেরিয়ে গ্রহণযোগ্য রাজনৈতিক অস্তিত্ব হিসেবে পরিচিত হওয়ার চেষ্টা করছে৷ সেক্ষেত্রে অতীতে জঙ্গি বিস্তারে তাদের যে ভূমিকা দেখেছি, এবার সেটা অন্যভাবে দেখবো৷ সারা বিশ্বের জঙ্গিরা তালেবানের এই জয়কে নিজেদের জয় হিসেবে দেখে উজ্জীবিত হওয়ার চেষ্টা করবে৷ বাংলাদেশ এই ঝুঁকি থেকে মুক্ত নয়৷ বাংলাদেশে অতীতে যেসব জঙ্গি খুব বেশি সক্রিয় ছিল, তাদের মধ্যে আফগানফেরত জঙ্গিদের একটা বড় উপস্থিতি ছিল৷ এবারও কিছু তরুণ সেখানে গেছে বা যাওয়ার চেষ্টা করছে৷ ফলে বাংলাদেশকে একটা শক্তিশালী নিরাপত্তা কৌশল বির্নিমাণ করতে হবে এই পরিস্থিতি মোকাবেলা করার জন্য৷''

অডিও শুনুন 03:00

‘‘২০ বছর আগের বাংলাদেশ আর এই বাংলাদেশ এক নয়’’: ইমতিয়াজ আহমেদ

তবে এই মুহুর্তে শঙ্কা নেই- এমন মতামত ব্যক্ত করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ইমতিয়াজ আহমেদ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘২০ বছর আগের বাংলাদেশ আর এই বাংলাদেশ এক নয়৷ যে কোনো জঙ্গিবাদ যখন মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে, তখন রাষ্ট্রের বা কোনো গোষ্ঠীর পৃষ্ঠপোষকতা থাকে৷ এখন যারা বাংলাদেশে ক্ষমতায় আছে, তারা তো হোলি আর্টিজানের ঘটনার পর জিরো টলারেন্সে গেছে৷ জঙ্গিবাদ থামানোর জন্য একাধিক স্ট্রাকচার তৈরি করেছে৷ একজন দুই জন বিচ্ছিন্নভাবে আগ্রহ দেখাতে পারে, কিন্তু বিস্তারের জন্য রাষ্ট্রের পৃষ্ঠপোষকতা দরকার৷ এখানে সেটা তো নেই৷ আর এখনকার তালেবানের মধ্যেও একটা পার্থক্য আছে৷ তখন তো সৌদিআরব আর পাকিস্তান তালেবানের বন্ধু আর শক্তি ছিল৷ তার সঙ্গে অ্যামেরিকা ছিল৷ এটাও মনে রাখতে হবে৷ এখনকার তালেবান কাতারে বসে বিভিন্ন দেশের সঙ্গে নেগোসিয়েশন করছে৷''

অধ্যাপক আহমেদের সঙ্গে সহমত পোষণ করে সাবেক রাষ্ট্রদূত ও কূটনৈতিক বিশ্লেষক হুমায়ুন কবীর ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আফগানিস্তানে তালেবানের নতুন করে উত্থানে বাংলাদেশের শঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই৷ তবে সতর্ক থাকতে হবে৷ এবারের যে তালেবান, তাদের চেহারা ১৯৯৬ থেকে ২০০০ সালের মতো উগ্রবাদী এবং পুরোপুরি সামরিক নয়৷ বরং তাদের বর্তমান চেহারায় একটি নিয়মতান্ত্রিক রাজনৈতিক পরিচয় দেখা যাচ্ছে৷ ফলে এবার তালেবানের দেশ পরিচালনায় আগের চেহারা দেখা যাবে না, সেটা ধারণা করা যায়৷ তালেবান ধীরে ধীরে বর্তমান বিশ্বের সমসাময়িক বাস্তবতায় একটা রাজনৈতিক দল হিসেবে নিজেদের অবস্থান সংহত করার উদ্যোগ নেবে, সে ধারণাও করা যায়৷ তবে বাংলাদেশকে অবশ্যই পরিস্থিতি গভীর পর্যবেক্ষণে রাখতে হবে এবং সতর্ক থাকতে হবে৷''

আফগানিস্তানে তালেবান ফিরে এসেই বলেছে নারীদের ঘর থেকে বের হতে বোরখা পরতে হবে৷ বাংলাদেশে কি এর কোনো প্রভাব পড়তে পারে? নারী অধিকার কর্মী খুশি কবীর এ প্রসঙ্গে ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘শুধু বাংলাদেশ না, সারা পৃথিবীতেই এর প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা থাকতেও পারে৷ আমি একেবারে উড়িয়ে দিতে চাই না যে পড়বে না৷ আমার মনে আছে, ইরানে যখন আন্দোলন হয়, তখন তো সবাই নেমেছিল৷ কিন্তু নিয়ন্ত্রণ নিলো খোমেনির দল৷ পরে ইরানকে একটা ধর্মীয় রাষ্ট্র বানিয়ে দিয়েছে৷ যখন আন্দোলন চলতো, তখন আমি তাদের অনেকের সঙ্গেই কথা বলেছি৷ তখন কিন্তু আমরা আশঙ্কা করেছিলাম, ধর্মীয় শাসন চলে আসে কিনা৷ তখন তারা বলেছিল, আমরা যতদূর এগিয়েছি, এখানে ধর্মীয় শাসনের সুযোগ নেই৷ কিন্তু পরে কী হলো! আবার প্রতিবেশী দেশ ভারতে দেখেন, বিজেপির যখন উত্থান শুরু হয় তখন অনেকের সঙ্গেই আমার কথা হয়েছে৷ তারা বলেছিল, সেকুলার ভারতে ধর্মভিত্তিক রাজনৈতির উত্থানের কোনো সুযোগ নেই৷ সেখানেও তো বিজেপি ক্ষমতায় এলো৷ সেখানে সংখ্যালঘুরা একটা অনিশ্চয়তায় আছে৷ সুদান, লেবাননসহ এমন আরো অনেক দেশ আছে৷ এগুলো দেখে আমি বুক ফুলিয়ে যে বলবো কোনোদিন হবে না, সেটা বলতে পারি না৷ তবে ২০১৩ সালে শাহবাগ আন্দোলনে আমি তরুণদের মধ্যে যে স্বতস্ফূর্ততা দেখেছি, সেটা থেকে আমার মনে একটা বিরাট আশা তৈরি করেছে৷ আমাদের তরুণরা প্রয়োজন হলে মাঠেও নামবে এবং বড় ভুমিকা রাখবে৷ ওরা যতদিন আছে, ততদিন বাংলাদেশে তালেবানের মতো কিছু আসতে দেবে না৷''

অডিও শুনুন 03:21

‘‘যতদিন তরুণরা আছে, ততদিন বাংলাদেশে তালেবানদের মতো শাসন আসতে দেবে না’’: খুশি কবীর

সাবেক কূটনীতিক মোহাম্মদ জমির মনে করেন, ‘‘এখন আমাদের দেখতে হবে বড় বড় শক্তিগুলো কী অবস্থান নিচ্ছে৷ আফগানিস্তান ঘিরে তাদের পরিকল্পনা কী?'' বাংলাদেশে আপাতত কোনো প্রভাব পড়ার আশঙ্কা আছে বলে মনে করেন না এই কূটনীতিক৷ ডয়চে ভেলের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, ‘‘আমাদের এখন ধৈর্য্য ধরে পর্যবেক্ষণ করতে হবে৷ আমাদের মনে রাখতে হবে, তারা সার্কের সদস্য৷ তারা ওআইসিরও সদস্য৷ ফলে আমাদের অপেক্ষা করতে হবে৷ আমরা চাই না এর কোনো ছায়া বাংলাদেশে পড়ুক৷''

আফগানিস্তানেস্থায়ী সরকার এলে বাংলাদেশ সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবে- পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘আমরা তৃতীয় কোনো দেশ দ্বারা প্রভাবিত হয়ে আফগানিস্তানের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে চাই না৷ আঞ্চলিক সমৃদ্ধির জন্য আমরা চাই আফগানিস্তানে শান্তি প্রতিষ্ঠিত হোক৷ আফগানিস্তানের মানুষের অনেক সক্ষমতা আছে৷ তারা সেটি ব্যবহার করে বিশ্বে মাথা উচুঁ করে দাঁড়াক৷ সে বিষয়ে বাংলাদেশ সার্বিক সহযোগিতা করবে৷ আমরা সে জন্য প্রস্তুত আছি, তবে সে জন্য স্থায়ী সরকারের প্রয়োজন৷ সামনের দিনে যখন আমরা বুঝবো একটি স্থায়ী সরকার এসেছে, আমরা তখন সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবো৷''

আফগানিস্তানে বাংলাদেশিদের যাতায়াতে কোনো নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হবে কিনা- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে শাহরিয়ার আলম বলেন, ‘‘বাংলাদেশের এমন প্র্যাকটিস নেই৷ স্বাভাবিকভাবে যে দেশের আইন-শৃঙ্খলা ভালো নয়, সে দেশে বাংলাদেশের মানুষ যাবেন না৷ এটা নতুন করে বলার কিছু নেই৷ আমরা লিখিতভাবে না বললেও আমরা নিরুৎসাহিত করবো আফগানিস্তানে যেতে৷ তাদের সংবিধান অনুযায়ী স্থায়ী রাষ্ট্রপতি ও সরকার শপথ নিলে বাংলাদেশ দ্বিপক্ষীয় সিদ্ধান্ত নেবে৷''

সমীর কুমার দে (ঢাকা)

সংশ্লিষ্ট বিষয়