আফগানিস্তানে আরও সৈন্য, পাকিস্তানকে হুঁশিয়ারি | বিশ্ব | DW | 22.08.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

আফগানিস্তানে আরও সৈন্য, পাকিস্তানকে হুঁশিয়ারি

আফগানিস্তানে আরও সৈন্য পাঠানোর ঘোষণা করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ সেইসঙ্গে পাকিস্তানকে কড়া হুঁশিয়ারি দিলেন তিনি৷ তালেবান আফগানিস্তানকে অ্যামেরিকার ‘কবরখানা' করে তোলার পালটা হুমকি দিয়েছে৷

নির্বাচনি প্রচারে বিদেশে মার্কিন সেনাবাহিনী পাঠানোর কড়া সমালোচনা করেছিলেন প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ ক্ষমতায় এলে আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহারের অঙ্গীকারও করেছিলেন তিনি৷ তাঁর সমর্থকরাও সেই অবস্থানকে সমর্থন জানিয়েছিলেন৷ প্রেসিডেন্ট হিসেবে ট্রাম্প এর বিপরীত পথে এগোতে চলেছেন৷ সোমবার এক ভাষণে তিনি বলেন, আফগানিস্তানে তালেবানের বিরুদ্ধে মার্কিন সেনাবাহিনী আরও সক্রিয় ভূমিকা গ্রহণ করবে৷ সেই যুদ্ধ জয় করতে আফগানিস্তানে আরও মার্কিন সৈন্য পাঠানো হবে৷ কোনো সংখ্যা ও সময়সীমা ছাড়াই এই কৌশল কার্যকর করা হবে৷ স্থানীয় মার্কিন কমান্ডাররা খুঁটিনাটি বিষয়ে ওয়াশিংটনের হস্তক্ষেপ ছাড়া অভিযান পরিচালনা করতে পারবেন – এমন আশ্বাস দিয়েছেন ট্রাম্প৷

তবে ‘নেশন বিল্ডিং' বা দেশের পুনর্গঠন নয়, সন্ত্রাসবাদীদের হত্যা করতেই এই প্রয়াস, বলেন ট্রাম্প৷ তবে এই সিদ্ধান্তে তাঁর মন যে সায় দিচ্ছে না, সেটাও স্বীকার করেন ট্রাম্প৷ তা সত্ত্বেও সামরিক উপদেষ্টাদের এই প্রস্তাব অনুমোদন করেছেন তিনি৷ তাঁর এই সিদ্ধান্তের পেছনে আরেকটি কারণ হলো, দ্রুত সৈন্য প্রত্যাহার করলে আফগানিস্তানে সেই শূন্যতা পূরণ করতে এগিয়ে আসবে তালেবান ও তথাকথিত ইসলামিক স্টেটের মতো গোষ্ঠীর সন্ত্রাসবাদীরা৷ মার্কিন জাতীয় স্বার্থে সেটা হতে দেওয়া চলে না৷

সন্ত্রাসবাদীদের শায়েস্তা করার সব দায় অ্যামেরিকা নিজের কাঁধে নিতে প্রস্তুত নয় বলেও হুঁশিয়ারি দেন ট্রাম্প৷ এক্ষেত্রে আফগান সরকার, পাকিস্তান, ভারত ও ন্যাটোর সহযোগী দেশগুলিকেও আরও উদ্যোগ নিতে হবে, বলেন ট্রাম্প৷ দক্ষিণ এশিয়া সংক্রান্ত এক সামগ্রিক কৌশল স্থির করতে চান ট্রাম্প৷ এ প্রসঙ্গে পাকিস্তানের কড়া সমালোচনা করেন তিনি৷ তিনি বলেন, সে দেশে সন্ত্রাসবাদীদের নিরাপদ আশ্রয় সম্পর্কে অ্যামেরিকা আর নীরব থাকবে না৷ পাকিস্তানের প্রতি তাঁর পরামর্শ, মার্কিন প্রশাসনের এই উদ্যোগে শামিল হলে তাদের লাভ হবে৷ সন্ত্রাসবাদীদের আশ্রয় দিয়ে চললে অনেক ক্ষতি হবে৷ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের মতে, ট্রাম্প পাকিস্তানকে নিরাপত্তার ক্ষেত্রে সহায়তা কমাতে পারেন৷

মার্কিন কর্মকর্তাদের সূত্র অনুযায়ী, প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেমস ম্যাটিস-এর উদ্যোগে আপাতত প্রায় ৪,০০০ মার্কিন সৈন্য আফগানিস্তানে পাঠানো হবে৷ উল্লেখ্য, এই মুহূর্তে সে দেশে প্রায় ৮,৪০০ মার্কিন সৈন্য মোতায়েন রয়েছে৷

ট্রাম্পের ভাষণের পর তালেবানের মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ পালটা হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, আফগানিস্তান অ্যামেরিকার আরেকটি কবরখানা হয়ে উঠতে পারে৷ যতদিন দেশে মার্কিন সৈন্য থাকবে, তালেবান তার জেহাদ চালিয়ে যাবে৷

এসবি/ডিজি (রয়টার্স, ডিপিএ, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন