আন্দোলনের ঘোষণা কংগ্রেসের, তাতে রোগ সারবে কি? | বিশ্ব | DW | 16.05.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

আন্দোলনের ঘোষণা কংগ্রেসের, তাতে রোগ সারবে কি?

অবশেষে নড়েচড়ে বসল কংগ্রেস। রাজস্থানের উদয়পুরে তিনদিন ধরে চিন্তন শিবির করে একগুচ্ছ পরিকল্পনা ও আন্দোলনে নামার ঘোষণা করেছে দল।

দিল্লি থেকে এবার ট্রেনে করে উদয়পুর গেছেন রাহুল গান্ধী।

দিল্লি থেকে এবার ট্রেনে করে উদয়পুর গেছেন রাহুল গান্ধী।

২০১৪-র লোকসভা নির্বাচনে বিপর্যয়ের পর আট বছর কেটে গেছে। রাজস্থান, ছত্তিশগড় ও মধ্যপ্রদেশে ভোটে জয়ের পর আর সেরকম কোনো বড় নির্বাচনী সাফল্য পায়নি কংগ্রেস। এর মধ্যে মধ্যপ্রদেশ হাতছাড়া হয়ে গেছে। একের পর এক নেতা দল ছেড়েছেন। সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশ-সহ পাঁচ রাজ্যের নির্বাচনেও কংগ্রেসের ভরাডুবি হয়েছে। কংগ্রেসের মধ্যে বিক্ষুব্ধ নেতারা, যাদের জি২৩ বলে ডাকা হয়, তারা কার্যত বিদ্রোহ করেছেন। রাহুল গান্ধী রাজনীতিতে কতটা সিরিয়াস, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এই পরিপ্রেক্ষিতে প্রথমে ভোটকৌশলী প্রশান্ত কিশোর বা পিকে-র সঙ্গে গান্ধী পরিবার ও প্রবীণ নেতাদের আলোচনায় বসা, তারপর উদয়পুরে এই চিন্তন শিবিরের আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেয় কংগ্রেস। তিনদিন ধরে কংগ্রেস নেতারা বহু আলোচনার পর বেশ কয়েকটি সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

কংগ্রেসের চিন্তন শিবিরে সিদ্ধান্ত

সোনিয়া গান্ধী ঘোষণা করেছেন, আগামী ২ অক্টোবর গান্ধীজির জন্মদিনে কংগ্রেস ভারত-জোড়ো আন্দোলনে নামবে। কন্যাকুমারী থেকে এই আন্দোলনের সূচনা করবেন সোনিয়া গান্ধী। রাহুল, প্রিয়াঙ্কা, চিদাম্বরম, গেহলট, ভূপেশ বাঘেল-সহ সব পরিচিত নেতারা এই আন্দোলনে অংশ নেবেন। সোনিয়ার ঘোষণা, কন্যাকুমারী থেকে কাশ্মীর পর্যন্ত পুরো দেশে ভারত-জোড়ো আন্দোলন হবে।

তার আগে ১৫ জুন থেকে জেলা পর্যায়ে জন-জাগরণ কর্মসূচি শুরু হবে। একেবারে নীচের স্তর থেকে উপর পর্যন্ত সব জায়গায় খালি পদ পূরণ করা হবে। সেই সঙ্গে একটি পরামর্শদাতা গোষ্ঠী তৈরি করা হবে। বিক্ষুব্ধরা সিডাব্লিউসি-র উপরে পার্লামেন্টারি বোর্ড গঠনের দাবি করেছিল। কিন্তু সেই প্রস্তাব খারিজ হয়ে গেছে। সোনিয়া বলেছেন, ওয়ার্কিং কমিটির সদস্যদের মধ্যে থেকে বেছে নিয়ে পরামর্শদাতা গোষ্ঠী তৈরি হবে। তাদের সঙ্গে সোনিয়া নিয়মিত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বৈঠক করবেন। তারপর তিনি সিদ্ধান্ত নেবেন।

রাহুল গান্ধী চিন্তন শিবিরে সমাপ্তি ভাষণ দেন। তিনি জানিয়েছেন, তরুণদের বেশি করে সংগঠনে নিয়ে আসা হবে। বস্তুত চিন্তন শিবিরে গৃহীত প্রস্তাবে বলা হয়েছে, ৫০ শতাংশ পদ তরুণদের দেয়া হবে।

সেই সঙ্গে এক পরিবার একজন প্রার্থী নীতি নেয়া হয়েছে। তবে এক্ষেত্রে বলা হয়েছে, পরিবারের দ্বিতীয় ব্যক্তিকে প্রার্থী করা যাবে, যদি তিনি পাঁচ বছর বা তার বেশি সময় ধরে দলের কাজ করেন।

সেই সঙ্গে ঠিক হয়েছে, কংগ্রেসের প্রচার বিভাগকে প্রসারিত করা হবে এবং সেখানে আমূল বদল হবে। রাজ্য থেকে কেন্দ্রীয় স্তর পর্যন্ত এই পুনর্গঠনের কাজ হবে।

কী বার্তা গেল

দীর্ঘদিন ধরে কংগ্রেসের খবর করছেন প্রবীণ সাংবাদিক সুনীল চাওকে। তার মনে হয়েছে, এই চিন্তন শিবির থেকে আসল প্রশ্নের কোনো জবাব পাওয়া যাচ্ছে না। ডয়চে ভেলেকে তিনি জানিয়েছেন, ''প্রথম প্রশ্ন, কংগ্রেসে নেতৃত্বের সংকট মিটবে কীভাবে? দ্বিতীয়, মোদী-শাহ-র নেতৃত্বাধীন বিজেপি-র মোকাবিলা করা হবে কোন পথে। যে ধরনের আন্দোলনের কথা বলা হয়েছে, তা অতীতেও করার চেষ্টা হয়েছে। কিন্তু দীর্ঘস্থায়ী ভিত্তিতে আন্দোলন হয়নি। তৃতীয়ত, রাহুল গান্ধীর মতো সিরিয়াস নন এমন এক রাজনীতিক কী করে দলের নেতৃত্ব দেবেন।''

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রবীণ সংবাদিক ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, কংগ্রেসের বর্তমান নেতৃত্ব তিনটি জিনিস চেয়েছিলেন, এক, তারা খবরে থাকবেন। সেই ইচ্ছা পূর্ণ হয়েছে। দুই, তারা দেখাতে চেয়েছিলেন, এবার তারা নড়েচড়ে বসেছেন। আন্দোলন শুরু করেছেন। দলের কর্মীদের উজ্জীবীত করার বিষয়টি ছিল। তিন, তারা দলের নিয়ন্ত্রণ গান্ধী পরিবারের বাইরে যেতে দিতে চাননি। সেটাই হয়েছে। কোনো পদে না থাকা রাহুল শিবিরের সমাপ্তি ভাষণ দিয়েছেন।

লোকমতের রাজনৈতিক সম্পাদক শরদ গুপ্তা ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, দাবি উঠেছিল, ''৭৫ বছরের বেশি বয়সিদের অবসর নিতে বলা হোক অথবা তাদের বিজেপি-র মতো মার্গদর্শকমণ্ডলীতে নিয়ে যাওয়া হোক। তারা যেন কোনো পদে না থাকেন। এই বিষয়েও কোনো সিদ্ধান্ত হলো না।'' শরদের কাছে সবচেয়ে বড় কথা, নির্বাচনে জেতার জন্য যে উদ্যম ও পরিকল্পনা দরকার, তার অভাব ছিল চোখে পড়ার মতো। বরং নিজেদের বিরোধ ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা ছিল প্রকট। তাই এই চিন্তন শিবির থেকে খুব বেশিকিছু বেরিয়ে আসেনি।

কংগ্রেসের চিন্তন শিবির

এর আগে পাঁচমাড়িতে চিন্তন শিবির করেছিল কংগ্রেস। সেখানে সোনিয়া গান্ধী ঘোষণা করেছিলেন, কংগ্রেস জোট-রাজনীতিতে নামবে। সেই সিদ্ধান্তের সুফল পেতে দেরি হয়নি। ২০০৪ ও ২০০৯-এর লোকসভা নির্বাচনে সাফল্য পেয়েছিলেন সোনিয়া। কিন্তু এবার তার সামনে চ্যালেঞ্জ আরো বড়। কংগ্রেসের একের পর এক নির্বাচনে ব্যর্থতা, দলের ভিতরে বিরোধ তো আছেই, সেই সঙ্গে আছে আঞ্চলিক দলগুলির জাতীয় রাজনীতিতে বড় ভূমিকা নেয়ার চেষ্টা। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, কে চন্দ্রশেখর রাও, অরবিন্দ কেজরিওয়ালের মতো নেতারা দিল্লিতে সাফল্য পাওয়ার চেষ্টা শুরু করে দিয়েছেন। তাদের কাছে কংগ্রেস যত হীনবল হয় ততই মঙ্গল। ফলে তারা কংগ্রেস বিরোধিতা ক্রমশ বাড়াচ্ছে। এই অবস্থা থেকে কংগ্রেসকে প্রাসঙ্গিক করার জন্য যে ঝাঁপিয়ে পড়ে দলের হাল ফেরানোর নীতি নেয়ার দরকার ছিল, তা দেখা যায়নি বলে বিশেষজ্ঞদের দাবি। তাদের মতে, সেই নেতা, সেই নীতি, সেই একই কথা বলে খুব বেশিদূর যাওয়ার স্বপ্ন না দেখাই ভালো।