আদালতের পথে ধর্ষিতার গায়ে আগুন | বিশ্ব | DW | 05.12.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

আদালতের পথে ধর্ষিতার গায়ে আগুন

উন্নাওয়ের ধর্ষিতার গায়ে আগুন লাগিয়ে দিলো পাঁচ দুষ্কৃতী৷ অভিযোগ, তার মধ্যে দুই ধর্ষকও ছিল৷ পুলিশ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে৷ সংকটজনক অবস্থায় ধর্ষিতাকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে হাসপাতালে৷

বৃহস্পতিবার ছিল তাঁর ধর্ষণের মামলার শুনানি৷ আদালতে যাওয়ার পথে গ্রামের বাইরে পা দেওয়ার পরেই পাঁচ দুষ্কৃতী ঘিরে ধরে ধর্ষিতাকে৷ তাঁকে টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যাওয়া হয় পাশের মাঠে৷ সেখানে তাঁর গায়ে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়৷ পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ধর্ষিতার দেহের ৬০-৭০ শতাংশ পুড়ে গেছে৷ ঘটনাস্থল থেকে তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় লখনউয়ের একটি হাসপাতালে৷ আরও ভালো চিকিৎসার জন্য তাঁকে দিল্লিতে উড়িয়ে আনার কথা ভাবা হচ্ছে৷ লখনউয়ের পুলিশ কর্মকর্তা এস কে ভগত বলেছেন, ‘‘পাঁচ দুষ্কৃতীর মধ্যে অভিযুক্ত দুই ধর্ষকও আছে৷ তাদের একজন  ৩০ নভেম্বর জামিন পেয়েছে৷ ওই দুই ধর্ষক প্রতিশোধ নেওয়ার জন্যই এ কাজ করেছে৷’’

এই ঘটনার পর আবার উত্তর প্রদেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে৷  উত্তর প্রদেশের দায়িত্বে থাকা কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী টুইট করে বলেছেন, ‘‘উত্তর প্রদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী গতকালই দাবি করেছিলেন, রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি খুব ভালো। কিন্তু বাস্তব অবস্থা আসলে কী, তা এই ঘটনা দেখিয়ে দিল৷’’

ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে সম্প্রতি আবার একের পর এক ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনা ঘটছে৷ হায়দরাবাদ, দিল্লি, জয়পুর, রাঁচিতে ধর্ষণ ও হত্যার পর এবার উন্নাওতেও ধর্ষিতাকে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা হলো, যদিও উত্তরপ্রদেশ সরকার এখনো এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেনি৷

গত মার্চে এই ধর্ষিতা তাঁরই গ্রামের দুজনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ করেন৷ স্থানীয় আদালতের নির্দেশের পর পুলিশ এফআইআর করে৷ তারপর পুলিশ একজন অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে৷ আরেকজন পলাতক ছিল৷

উত্তর প্রদেশের ডিরেক্টর জেনারেল ও পি সিং বলেছেন, ‘‘আমাদের এখন প্রথম কাজ হলো, মহিলাকে বাঁচানো৷’’

এসজি/এসিবি (পিটিআই, এনডিটিভি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন