আগের চেয়ে বেশি অস্ত্র রাখছেন জার্মানরা | বিশ্ব | DW | 03.09.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

আগের চেয়ে বেশি অস্ত্র রাখছেন জার্মানরা

জার্মানিতে সঙ্গে অস্ত্র রাখার প্রবণতা বেড়েছে৷ পাঁচ বছর আগের তুলনায় দ্বিগুণেরও বেশি মানুষ এখন সঙ্গে গ্যাস পিস্তল রাখছেন৷ রাইফেলসহ অন্যান্য আগ্নেয়াস্ত্র রাখার প্রবণতাও বেড়েছে৷

জার্মানির রাইনিশে পোস্ট পত্রিকা ১৬টি রাজ্যের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্য নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে৷ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ মুহূর্তে জার্মানির ছয় লাখ ৪০ হাজার মানুষের গ্যাস পিস্তলের লাইসেন্স রয়েছে৷ গত বছর এর চেয়ে ৩০ হাজার কম মানুষের এই লাইসেন্স ছিল৷ গ্যাস পিস্তল এবং অন্য অস্ত্র সঙ্গে রাখার প্রবণতা মূলত ২০১৪ সালের পর থেকেই বাড়ছে৷ ২০১৪ সালে সারা জার্মানিতে মাত্র দুই লাখ ৬০ হাজার মানুষের কাছে গ্যাস পিস্তলের লাইসেন্স ছিল৷

গ্যাস পিস্তলের পাশাপাশি আগ্নেয়াস্ত্র সঙ্গে রাখার প্রবণতাও বাড়ছে৷ ২০১৮ সালের হিসেব অনুযায়ী জার্মানিতে  ৫৪ লাখ মানুষের কাছে রাইফেলের মতো সত্যিকারের আ্গ্নেয়াস্ত্র ছিল৷ ২০১৭ সালের তুলনায় সংখ্যাটি ২৭ হাজার বেশি৷

গ্যাস পিস্তল কী?

গ্যাস পিস্তল দেখতে পিস্তলের মতোই৷ তবে এতে গুলি থাকে না৷ এটা দিয়ে যে কোনো জায়গায় গুলি ছোড়ার মতো বিকট শব্দ করা যায়৷

কেন অস্ত্রের প্রতি আকর্ষণ বাড়ছে?

জার্মান পুলিশদের অন্যতম বড় সংগঠন জিডিপির চেয়ারম্যান অলিভার মালচো জানান, এই প্রবণতা ২০১৫ সালের ৩১ ডিসেম্বরের পর থেকে লক্ষ্যনীয় হারে বাড়ছে৷ তিনি মনে করেন, নববর্ষকে স্বাগত জানানোর রাতে কোলন শহরে যে ভয়াবহ অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটেছিল, তারপর থেকে অনেকেই কিছুটা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন৷ তবে অলিভার মালচো মনে করেন, গ্যাস পিস্তল বা অন্য অস্ত্র রেখে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব নয়৷ তার মতে, নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রকাশ্য স্থানে পুলিশের উপস্থিতি বাড়ানো দরকার৷

এসিবি/কেএম (কেএনএ, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন