আগামী বছর আসছে প্রথম বাংলা-ফরাসি ছবি ‘লাল টিপ’ | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 16.10.2011
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

আগামী বছর আসছে প্রথম বাংলা-ফরাসি ছবি ‘লাল টিপ’

বাংলাদেশ ও ফ্রান্সের যৌথ প্রযোজনার প্রথম ছবি ‘লাল টিপ’ নিয়ে বেশ আশা আর প্রত্যাশার আলোচনা শুরু হয়েছে ইতিমধ্যে৷ বাংলাদেশ, থাইল্যান্ড ও ফ্রান্সে শেষ হয়েছে ছবির চিত্র ধারণের কাজ৷ আগামী বছর ছবিটি মুক্তি পেতে পারে৷

default

কপালের এই লাল টিপ এবার চলচ্চিত্রে

এই ছবির মধ্য দিয়েই পরিচালক হিসেবে অভিষেক করছেন স্বপন আহমেদ৷ তবে বড় পর্দার জন্য এটি তাঁর প্রথম কাজ হলেও ইতিমধ্যে ২২টি স্বল্পদৈর্ঘ্যের ছবি তৈরি করেছেন তিনি৷ সবগুলোই ইউরোপের প্রেক্ষাপট নিয়ে তৈরি৷ তথ্যচিত্র তৈরি করেছেন অসংখ্য৷ এছাড়া ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক চ্যানেল এবং বিবিসি'র সাথে কাজের অভিজ্ঞতা রয়েছে তাঁর ঝুলিতে৷ ফলে তাঁর এই ছবি বাংলাদেশের চিত্র জগতে একটি নতুন আলোড়ন সৃষ্টি করবে বলে আশা করছেন শিল্প বোদ্ধারা৷

২০১০ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর শুরু হয় ‘লাল টিপ' ছবির জন্য চিত্রধারণের কাজ৷ দীর্ঘ আট মাস সময় লেগেছে এটির চিত্রধারণ সম্পন্ন করতে৷ ইতিমধ্যে, বাংলা, ইংরেজি ও ফরাসি ভাষায় ডাবিং এর কাজ শেষ হয়েছে৷ আগামী বছর একইসাথে ২৫টি দেশে ছবিটি মুক্তি পাবে বলে জানিয়েছেন পরিচালক আহমেদ৷

বাংলাদেশ ও ফ্রান্সের তারকা অভিনেতা-অভিনেত্রীদের উপস্থিতি রয়েছে ‘লাল টিপ' ছবিতে৷ ইমন এবং কুসুম শিকদার রয়েছেন প্রধান চরিত্রে৷ ফরাসি অভিনেত্রী আনা লেভিনের বান্ধবী হিসেবে একটি বিশেষ দৃশ্যে দেখা যাবে ‘সেক্স অ্যান্ড দ্য সিটি-টু' এবং হলিউডের জনপ্রিয় টিভি সিরিজ ‘ভ্যাম্পায়ার'-এর নায়িকা দেবরাহ নিউম্যানকে৷ এছাড়া রয়েছে ফরাসি চলচ্চিত্র তারকা দানিয়েল ক্রমঁ, জেরার্ড টোপাডো, নাটালি ফ্রাঁসেস্কি এবং লঁনা৷ বাংলাদেশি তারকাদের মধ্যে রয়েছেন এটিএম শামসুজ্জামান, শহীদুল আলম সাচ্চু, সোহেল খান, মিশু এবং কোনাল৷ ছবিটির সুর-সংগীতে রয়েছে ফুয়াদ, আবরার টিপু এবং আরফিন রুমির সৃষ্টিশীলতার ছোঁয়া৷ এছাড়া তিন বারের অস্কার বিজয়ী সুরস্রষ্টা মরিস জারে'র একটি কম্পোজিশনও রয়েছে এতে৷

ফ্রান্সে বসবাসরত অভিবাসী একটি ছেলে এবং একটি মেয়ের জীবনকে ঘিরে গড়ে উঠেছে ‘লাল টিপ' ছবির ঘটনা প্রবাহ৷ পরিচালক আহমেদ বলেন, বিদেশের মাটিতে বাঙালি সমাজের সাথে বসবাসরত একজন বাংলাদেশি নারীর দ্বৈত সত্ত্বার প্রকাশ ঘটানো হয়েছে ছবিটিতে৷ ছবিটি সম্পর্কে নায়িকা কুসুম শিকদারের মন্তব্য, ‘‘এটি এমন একটি ছবি যা বাংলাদেশের চলচ্চিত্র অঙ্গনে নতুন ধারার সৃষ্টি করতে পারে৷''

প্রতিবেদন: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন