আইনজীবী ছাড়াই সৌদি নারী অধিকার কর্মীর বিচার শুরু | বিশ্ব | DW | 13.03.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সৌদি আরব

আইনজীবী ছাড়াই সৌদি নারী অধিকার কর্মীর বিচার শুরু

গত বছর সৌদি আরবে গ্রেপ্তার হন লুজাইন আল-হাথলুলসহ বেশ কয়েকজন নারী অধিকার কর্মী৷ বুধবার তাঁর মামলা আদালতে উঠলেও তিনি কোনো আইনজীবী পাননি৷

লুজাইন আল-হাথলুল প্রথম খবরে উঠে আসেন ২০১৪ সালে৷ গাড়ি চালিয়ে সৌদি আরব থেকে আরব আামিরাতের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেন তিনি৷ সেই সময়  সৌদি আরবে নারীদের গাড়ি চালানো বিষয়ে ছিল কড়া নিষেধাজ্ঞা৷

এরপর ২০১৮ সালের মে মাসে গ্রেপ্তার হন তিনি৷ লুজাইন আল-হাথলুলসহ গ্রেপ্তার হওয়া আরো কয়েকজন নারী অধিকার কর্মী এই নিষেধাজ্ঞার বিরোধিতা করে আসছিলেন বেশ অনেক দিন ধরেই৷

উল্লেখ্য, এই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার মাত্র কয়েক সপ্তাহ আগে গ্রেপ্তার হন তাঁরা৷ 

যৌন হেনস্থা, অবিচারের শিকার

আল-হাথলুলের পরিবারের সদস্যরা বলছেন, গ্রেপ্তারের পর তাঁকে মারধর করা হয়েছে৷ তাঁর সাথে যৌন হেনস্থা করা হয়েছে বলেও মনে করেন তাঁরা৷

শুধু তাই নয়, হাথলুলের বিষয়টি আদালতে উঠেছে৷ বুধবার শুরু হয়েছে বিচারের কাজ৷

কিন্তু অভিযুক্তের অধিকারের যে নিয়ম, তা অমান্য করে আল-হাথলুল'কে কোনো আইনজীবী বরাদ্দ করেনি সৌদি কর্তৃপক্ষ৷ পাশাপাশি, তাঁর বিরুদ্ধে ঠিক কী কী অভিযোগ রয়েছে, সেটাও তাঁকে জানানো হয়নি বলে জানিয়েছে আল-হাথলুলের পরিবার৷

মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল মঙ্গলবার এক টুইটে এই অবিচারের বিরোধিতা করে আল-হাথলুলের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেছে৷

সৌদি আরবের যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ক্ষমতায় আসার পর একের পর এক নতুন আইন প্রণয়ন করেন৷ নারীদের গাড়ি চালাতে পারার আইনটিও ছিল তার অন্যতম৷

কিন্তু সাংবাদিক খাশগজির হত্যাকাণ্ড ও একের পর এক অ্যাক্টিভিস্ট গ্রেপ্তার হওয়াকে কেন্দ্র করে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন সালমান৷

এসএস/জেডএইচ (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন