আইওয়াতে হারলেন ‘মুসলিমবিদ্বেষী′ ট্রাম্প, চ্যালেঞ্জের মুখে হিলারি | বিশ্ব | DW | 02.02.2016
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

আইওয়াতে হারলেন ‘মুসলিমবিদ্বেষী' ট্রাম্প, চ্যালেঞ্জের মুখে হিলারি

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দলীয় প্রার্থী বাছাই প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে৷ বাছাই পর্বের শুরুতেই আইওয়া অঙ্গরাজ্যে ‘ককাস' প্রাক-নির্বাচনি ভোটে রিপাবলিকান পার্টির ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হারিয়ে দিয়েছেন টেড ক্রুজ৷

যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান দুই রাজনৈতিক দল ডেমোক্র্যাটিক ও রিপাবলিকানের সমর্থকেরা সোমবার নিজ নিজ দলের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী নির্বাচনের জন্য ভোট দিয়েছেন৷ প্রার্থী নির্বাচনের এই প্রাথমিক প্রক্রিয়ায় টেক্সাসের সিনেটর টেড ক্রুজ আইওয়াতে ২৭ দশমিক ৭ শতাংশ ভোট পেয়ে জিতেছেন৷ মূলত মুসলিমবিরোধী বক্তব্য দিয়ে আলোচনায় আসা রিপাবলিকান পার্টির আরেক মনোনয়নপ্রত্যাশী ডোনাল্ড ট্রাম্প ২৪ শতাংশ ভোট পেয়ে হয়েছেন দ্বিতীয়৷ ফ্লোরিডার সিনেটর কিউবান বংশোদ্ভূত মার্কো রুবিও-ও খুব পিছিয়ে নেই৷ প্রায় ২৩ শতাংশ ভোট পেয়ে প্রার্থী বাছাইয়ের দৌড়ে আপাতত তৃতীয় অবস্থানে রয়েছেন তিনি৷

বর্তমান বিশ্বে ইসলামি জঙ্গিবাদের বিস্তারের দিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে মুসলমানদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করার মতো কথাও প্রচারণার সময় বলেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ এমন বক্তব্যের জন্য তুমুল সমালোচিত হলেও, জনপ্রিয়তা বৃদ্ধিতে তা এখনো সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়নি বলেই মনে করেন বিশ্লেষকরা৷ তবে তাঁর বক্তব্য যে অসন্তোষেরও জন্ম দিয়েছে তার কিছু দৃষ্টান্ত দেখা যাচ্ছে৷ ইতিমধ্যে তাঁর দিকে টমেটোও ছুড়ে মেরেছেন ক্ষুব্ধ শ্রোতা৷

আইওয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে নির্বাচনি সমাবেশ চলার সময় এক যুবক ট্রাম্পকে লক্ষ্য করে দুটি টমেটো ছুড়ে মারেন টমেটো দু'টি অবশ্য ট্রাম্পের গায়ে লাগেনি৷

অবশ্য ট্রাম্প আইওয়াতে হেরে গেলেও এর ফলে তাঁর রিপাবলিকান দলের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হবার সম্ভাবনা মোটেই ফুরিয়ে যাচ্ছে না৷ নভেম্বরে অনুষ্ঠেয় নির্বাচনের আগে প্রার্থী চূড়ান্ত করার দীর্ঘ প্রক্রিয়ায় এখনো অনেক কিছুই ঘটতে পারে৷ তাই সংবাদমাধ্যম আইওয়ায় টেড ক্রুজের জয়ের পরও ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ‘বাতিল' না ভাবার পরামর্শই দিয়েছে৷

এদিকে আইওয়ায় ডেমোক্র্যাট দলের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী বাছাইয়ের প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে৷ সোমবারই ভোট হয়েছে৷ ধারণা করা হচ্ছিল, সেখানে সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন এবং ভারমন্টের সিনেটর বার্নি স্যান্ডার্সের মধ্যে শক্ত প্রতিদ্বন্দিতা হবে৷

বাস্তবেও তা-ই হয়েছে৷ শতকরা ৯৫ ভোট গণনা শেষ৷ তারপরও স্পষ্ট নয় কে জিতবেন৷ ৪৯ দশমিক ৯ শতাংশ ভোট পেয়ে সামান্য এগিয়ে আছেন হিলারি ক্লিন্টন, তবে ৪৯ দশমিক ৬ ভাগ ভোট পেয়ে স্যান্ডার্সও ঠিক ঘাড়ের কাছেই নিঃশ্বাস নিচ্ছেন৷

এসিবি/ডিজি (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন