অ্যালাবামায় রয় মুর হারলেন ডাগ জোন্সের কাছে | বিশ্ব | DW | 13.12.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

অ্যালাবামায় রয় মুর হারলেন ডাগ জোন্সের কাছে

অ্যালাবামার সেনেট নির্বাচনে ট্রাম্প সমর্থিত রিপাবলিকান প্রার্থী রয় মুর ডেমোক্র্যাট প্রার্থী ডাগ জোন্সের কাছে পরাজিত হয়েছেন৷ মুরের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ সম্ভবত তার একমাত্র কারণ নয়৷

মঙ্গলবারের ভোটে ডাগ জোন্স ৪৯ দশমিক ৯ শতাংশ ভোট পেয়েছেন, রয় মুর পেয়েছেন ৪৮ দশমিক ৪ শতাংশ ভোট৷ জেফ সেসনস প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসনে যোগদানের ফলে আসনটি খালি হয়ে যায় ও মধ্যকালীন নির্বাচনের প্রয়োজন পড়ে

জোন্স বলেছেন যে, তিনি এই জয়ে অভিভূত৷ ‘‘আমি চিরকাল বিশ্বাস করে এসেছি যে, অ্যালাবামার মানুষদের মধ্যে যা আমাদের বিভক্ত করে, তার অনুপাত যা আমাদের ঐক্যবদ্ধ করে, তার চেয়ে কম,'' নির্বাচনি বিজয় সমাবেশে জোন্স তাঁর সমর্থকদের বলেন৷ ‘‘আমরা কী হতে পারি, তা আমরা দেশকে দেখিয়েছি৷'' 

অপরদিকে মুর পরাজয় স্বীকার করতে অস্বীকার করেছেন৷ তাঁর বক্তব্য: ‘‘এত কাছাকাছি ফলাফল হলে বলতে হয়, ভোট এখনও শেষ হয়নি৷''

সব ভোটের এলাকা থেকে খবর আসার পর অ্যালাবামার রাজ্য সচিব জন মেরিল বলেছেন যে, রেজিস্ট্রিকৃত ভোটারদের সাকুল্যে ২৫ শতাংশের বেশি সম্ভবত ভোট দিতে যাননি৷

‘মর্যাদা ও শ্রদ্ধা'

‘‘বস্তুত এই গোটা নির্বাচনি প্রতিযোগিতার মূল বিষয় ছিল মর্যাদা ও শ্রদ্ধা,'' জোন্স বলেন এবং যোগ করেন যে, তাঁর প্রচার অভিযানের লক্ষ্য ছিল সকলের পক্ষে গ্রহণযোগ্য একটি অবস্থান খুঁজে পাওয়া ও ওয়াশিংটনের বিধায়কদের একত্রিত হয়ে শিশুদের স্বাস্থ্য বীমা কর্মসূচির জন্য অর্থসংস্থান করতে উদ্বুদ্ধ করা৷

দীর্ঘ ২৫ বছর পরে আবার একজন ডেমোক্র্যাট অ্যালাবামার সেনেট আসনটি জয় করলেন৷ ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্প ২৮ পয়েন্টের ব্যবধানে অ্যালাবামায় জেতেন৷ জোন্সের জয়ের ফলে সেনেটে রিপাবলিকানদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা কমে একটি আসনে দাঁড়াবে৷

জোন্স একজন নাগরিক অধিকার আইনজীবী, যিনি কোনোদিন কোনো রাজনৈতিক পদের জন্য ভোটে দাঁড়াননি৷ ১৯৬৩ সালে বার্মিংহ্যামের একটি গির্জায় বোমাবাজির ফলে চারজন কৃষ্ণাঙ্গ কিশোরী নিহত হয়; অপরাধী ছিল কু ক্লুক্স ক্ল্যানের দু'জন সদস্য; সেই মামলায় বাদীপক্ষের কৌঁসুলি ছিলেন ডাগ জোন্স, যে কারণে তিনি সুপরিচিত৷

জোন্সের জয়ে ট্রাম্প অপ্রত্যাশিতরকম উদার প্রতিক্রিয়া প্রদর্শন করেন এবং ভোটের ফলাফল ঘোষণার পরই টুইট করে জোন্সকে অভিনন্দন জানান৷

মুরের বিতর্কিত প্রচার অভিযান

৭০ বছর বয়সি বিতর্কিত রক্ষণশীল খ্রিষ্টান রাজনীতিক মুরের পরাজয় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তাঁর রাজনৈতিক অনুগামীদের পক্ষে অসুবিধা সৃষ্টি করতে পারে, কেননা জোন্সের জয়ের ফলে সেনেটে রিপাবলিকানদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা কমে দাঁড়াবে ৫১ বনাম ৪৯ আসনে, যার ফলে কর, স্বাস্থ্যবীমা বা নিরাপত্তার ক্ষেত্রে ট্রাম্পের আইনগত উদ্যোগগুলি আরো সমস্যাকর হয়ে উঠবে৷

মুর তাঁর স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতে ঘোড়ায় চেপে ভোট দিতে এসেছিলেন৷ যৌন হয়রানির অভিযোগ সম্পর্কে তাঁকে বলতে শোনা যায়: ‘‘ওটা শেষ হয়ে গিয়েছে৷ মূল বিষয়গুলোতে ফেরা যাক৷''

মুরের বয়স যখন ত্রিশের কোঠায়, তখন নাকি তিনি একাধিক টিনেজ কিশোরীর সঙ্গে অশোভন যৌন আচরণ করেছিলেন, বলে অভিযোগ ওঠার পর রিপাবলিকান দলের কর্মকর্তারা সচকিত হলেও মুর রাজনৈতিক পুনরুত্থানের জন্য সচেষ্ট ছিলেন৷

গত সেপ্টেম্বর মাসের প্রাইমারি পর্যায়ে মুরের রিপাবলিকান প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন লুথার স্ট্রেঞ্জ, গোড়ায় ট্রাম্প সহ রিপাবলিকান দলের হর্তাকর্তারা প্রায় সকলেই যাকে সমর্থন করেছিলেন৷ সে সময় রিপাবলিকান দলে মুরের বিশিষ্ট সমর্থকদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন ট্রাম্পের সাবেক প্রধান স্ট্র্যাটেজিস্ট স্টিভ ব্যানন৷ ট্রাম্প নিজে পরে মুরের প্রতি পূর্ণ সমর্থন ব্যক্ত করেন৷

এই নির্বাচন কংগ্রেসের রিপাবলিকান নেতৃবর্গ ও ট্রাম্পের মধ্যে মনোমালীন্যকে নতুন করে উসকে দেয়৷ সেনেটে সংখ্যাগরিষ্ঠ রিপাবলিকানদের নেতা মিচ ম্যাককনেল মুরকে তাঁর প্রচার অভিযান পরিত্যাগ করতে বলেন এবং মুর নির্বাচিত হলে একটি নৈতিক নীতিমালা সংক্রান্ত তদন্তের প্রতিশ্রুতি দেন৷

রাজ্যের সুপ্রিম কোর্টের চিফ জাস্টিস হিসেবে মুরকে দু'বার বরখাস্ত করা হয়েছে৷ প্রথমবার তিনি আদালত ভবন থেকে বাইবেলের টেন কমান্ডমেন্টস সংক্রান্ত একটি সুবিশাল ভাস্কর্য অপসারণ করতে অস্বীকার করেন৷ দ্বিতীয়বার তাঁকে স্থায়ীভাবে সাসপেন্ড করা হয়, কেননা তিনি রাজ্যের প্রোবেট বিচারকদের সমকামী দম্পতিদের ম্যারেজ লাইসেন্স দিতে অস্বীকার করতে বলেন৷

এসি/ডিজি (এপি, ডিপিএ, রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন