অ্যামেরিকার কারচুপি আমাদের সঙ্গে কতটা মিলে | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 06.11.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

নির্বাচনে কারচুপি

অ্যামেরিকার কারচুপি আমাদের সঙ্গে কতটা মিলে

কারচুপির অভিযোগ উঠছে মার্কিন নির্বাচনে৷ কিন্তু আদৌ কি সেই অভিযোগের সঙ্গে ভারত বা বাংলাদেশের  ভোটের কোনো তুলনা চলে?

আদালত কি ট্রাম্পের অভিযোগ মানবে? শুধু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নয়, গোটা পৃথিবীরই এখন অন্যতম প্রশ্ন এটি৷ কারণ, প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প অভিযোগ করেছেন, নির্বাচন পদ্ধতিতে নজিরবিহীন কারচুপি হয়েছে৷ আদালতকেই সে বিষয়ে হস্তক্ষেপ করতে হবে এবং ব্যবস্থা নিতে হবে৷

কীসের কারচুপি? ভারত-বাংলাদেশের মানুষের কাছে ভোটে কারচুপি কোনো নতুন শব্দ নয়৷ গণতন্ত্রের সব চেয়ে বড় উৎসবে একটু আধটু 'কারচুপি' হবে, দু'একটা গুলি চলবে, তিন-চারটে বুথ দখল হবে, পাঁচ-ছয়টা রিগিং হবে-- এতো জানা কথা! ভোট হচ্ছে অথচ বিরোধীরা কারচুপির কথা বলছেন না, বহু বছরের মধ্যে এমন নজির মনে করতে পারার অভিযোগ কারো বিরুদ্ধে নেই৷

২০১৮ সালের একেবারে শেষ দিকে বাংলাদেশে জাতীয় নির্বাচন হয়েছিল৷ বিরোধীরা কারচুপির প্রসঙ্গ তুলতে শুরু করেছিলেন ভোটের অনেক আগে থেকেই৷ অভিযোগ ছিল, বিরোধীদের মনোনয়নই জমা দিতে দেয়া হচ্ছে না৷ যাঁরা করছেন, তাঁদের মনোনয়ন তুলে নেওয়ার জন্য হুমকি দেওয়া হচ্ছে অথবা বাতিল করা হচ্ছে৷ যা রটে তার সব ঘটে না৷ আবার এও সত্য, যা রটে তার অনেক কিছুই ঘটে৷ ২০১৮ সালের বাংলাদেশ নির্বাচন নিয়ে শুধু দেশের ভিতর নয়, আন্তর্জাতিক মহলেও বহু প্রশ্ন উঠেছিল৷ যে ভাবে ভোটের আগেই সেখানে কোনো কোনো বুথে ব্যালট ভর্তি বাক্স উদ্ধার হয়েছিল, পাশে দাঁড়িয়ে থেকে নেতারা ভোট করিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছিল, ভোট গণনায় কারচুপির প্রসঙ্গ উঠেছিল-- তা নজিরবিহীন নয়৷ প্রতিবেশী দেশ ভারতে ওই একই বছরে আর একটি নির্বাচন হয়েছিল৷ পশ্চিমবঙ্গের পঞ্চায়েত নির্বাচন৷ কারচুপির আরও বড় নজির তৈরি হয়েছিল সেখানে৷

পঞ্চায়েত নির্বাচন ভারতীয় যুক্তরাজ্য কাঠামোয় সব চেয়ে নীচের স্তরের ভোট৷ গ্রামীণ সরকার তৈরি হয় এর ভিত্তিতে৷ বিশেষজ্ঞরা বলেন, পঞ্চায়েত হলো বুনিয়াদি স্তর৷ সেখানে যে দল শক্ত ঘাঁটি গড়তে পারবে, বিধানসভা এবং লোকসভা নির্বাচনেও তাদের হারানো কঠিন৷ তো সেই ২০১৮ সালের পঞ্চায়েত নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গের শাসক দল তৃণমূল ৩৪ শতাংশ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয় লাভ করেছিল৷ তৃণমূল বলেছিল, বিরোধীরা মনোনয়ন দিতে পারেনি, কারণ মনোনয়ন দেওয়ার মতো নেতাই তাদের নেই৷ বিরোধীদের অভিযোগ ছিল, তৃণমূলের 'সন্ত্রাসে'র সামনে বিরোধীরা মনোনয়ন জমাই দিতে পারেনি৷ বিষয়টি পৌঁছেছিল আদালতেও৷ হোয়াটসঅ্যাপ, ইমেলে মনোনয়ন জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্ট৷ কিন্তু তাতেও শেষ পর্যন্ত বিশেষ লাভ হয়নি৷ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৩৪ শতাংশ আসন জিতে গিয়েছিল শাসক দল৷ খুন হয়েছিল অসংখ্য৷ যে কয়টি আসনে ভোট হয়েছিল, সেখানে ভোটের খবর করতে যাওয়া সাংবাদিকরা আইনশৃঙ্খলার খবর নিয়ে ফিরেছিলেন৷ বোমাবাজি, বুথ দখল, গ্রামের পর গ্রাম গুন্ডাবাহিনীর দাপাদাপি-- এ সবই ছিল গণতন্ত্রের সব চেয়ে বড় উৎসবের সব চেয়ে বড় খবর৷

জাতীয় নির্বাচনে অবশ্য ইদানীং অশান্তি খানিক কমেছে৷ বিশেষ করে টি এন সেশনের নির্বাচনী সংস্কার এবং জাতীয় নির্বাচন কমিশনের ক্ষমতা বৃদ্ধির পরে ইদানীং কারচুপির আলোচনা সামান্য কমেছে৷ তবে একেবারে নেই, এমন নয়৷ ইভিএম নিয়ে বিস্তর অভিযোগ৷ জাতীয় বা বিধানসভা নির্বাচনেও সুযোগ মতো শাসক দল বুথ দখল, রিগিং, খুনখারাপিতে প্রশ্রয় দেয়৷ তবে তা পঞ্চায়েত ভোটের মতো নয়৷

মার্কিন বিশ্বে নির্বাচনে কারচুপির সঙ্গে এই বিষয়গুলি জড়িত নয়৷ সেখানে মানুষ বিনা বাধায় গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করতে পারেন৷ চাইলে বাড়ি বসে পোস্টাল ব্যালট ভোট দিতে পারেন৷ ভোটের আগেই ভোট দিয়ে দিতে পারেন লাখ লাখ জনতা৷ তাঁরা জানিয়ে দিতে পারেন কাকে ভোট দিয়েছেন৷ ভোটের লাইনে নিরাপত্তারক্ষীদের রক্তচক্ষু থাকে না৷ বুথ দখল হয়ে যেতে পারে, একজনের ভোট অন্যজন দিয়ে দিতে পারেন, ভোটের আগেই ব্যালট বাক্স ভরে যেতে পারে-- এ সব ভয় ও দেশে নেই৷ তারপরেও যে কারচুপির প্রসঙ্গ উঠছে, তা পদ্ধতিগত৷ গণতান্ত্রিক ভাবে সে প্রশ্ন উঠছে৷ গণতান্ত্রিক উপায়েই তার সমাধানের রাস্তা তৈরি হচ্ছে৷ পোস্টাল ব্যালট নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন ট্রাম্প৷ আদালত জানাবে সেই অভিযোগ বৈধ না অবৈধ৷

ভারতের সংবিধান বিশেষজ্ঞ তথা বিশিষ্ট অধ্যাপক অভ্র ঘোষ ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, ''অ্যামেরিকার ভোট প্রক্রিয়া অত্যন্ত জটিল৷ সে কারণেই সেখানে সাংবিধানিক প্রশ্ন উঠছে৷ করোনাকালে যেভাবে সেখানে ভোট হয়েছে, তা এ সব প্রশ্ন ওঠারই কথা৷ ট্রাম্প যে কায়দায় কথা বলছেন, তা নিয়ে আপত্তি থাকতে পারে, কিন্তু যে প্রসঙ্গ গুলি সামনে আসছে তা গণতান্ত্রিক৷'' অভ্রবাবুর বক্তব্য, অ্যামেরিকায় যে কারচুপির প্রসঙ্গ উঠছে, তার সঙ্গে ভারত-বাংলাদেশ-পাকিস্তানের নির্বাচন কারচুপির কোনো তুলনা চলে না৷ পদ্ধতিগত গণতান্ত্রিক প্রশ্ন আর বুথ দখলের কোনো তুলনা হয় না৷

বাংলাদেশের সাবেক নির্বাচন কমিশনার ড. এম সাখাওয়াত হোসেন ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, ''নির্বাচনে কারচুপি নিয়ে আমাদের দেশে আইন আছে৷ কিন্তু আইনকে তো আমলে নিতে হবে! আমলে না নিলে কী করব? জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আদালতের কোনো এক্তিয়ার নেই৷ গত নির্বাচনে হাজার হাজার অভিযোগ পড়েছে৷ কিন্তু সেগুলিকে আমলই দেওয়া হয়নি৷ ইউরোপ-অ্যামেরিকা আইন দিয়ে চলে, আমাদের এখানে সব গায়ের জোরে চলে৷''

ভারতের সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী দীপক ভট্টাচার্য অবশ্য মনে করেন, প্রকৃতিগত তফাত থাকলেও উপমহাদেশ এবং অ্যামেরিকার কারচুপির পদ্ধতিগত তফাত নেই৷ কারচুপি, কারচুপিই৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি বলেছেন, ''অ্যামেরিকায় অত্যন্ত জটিল প্রক্রিয়ায় নির্বাচন হয়৷ কিন্তু পদ্ধতিটিকে ফুলপ্রুফ বলা যায় না৷ কারচুপি ও তার সমাধান আইনি পদ্ধতিতে হয়৷ এটা অ্য়ামেরিকা ও আমাদের দেশে এক৷ কিন্তু বিচারপতি নিয়োগের ক্ষেত্রে যদি দলের ছাপ থাকে তো পক্ষপাতহীন রায় পাওয়া আমার মতে কষ্টকর৷ বুশের সময় রিপাবলিকানদের ১২ জন বিচারপতি ছিলেন, ডেমোক্র্যাটদের ১১৷ বুশ জিতেছিলেন৷ এই নির্বাচনে ট্রাম্পও বারবার বলছেন, তিনি সুপ্রিম কোর্টে যাবেন৷ এখন রিপাবলিকানদের ছয় জন বিচারপতি, ডেমোক্র্যাটদের তিনজন৷’’

কারচুপি, কারচুপিই৷ শুধু নির্বাচন নয়, বিভিন্ন ক্ষেত্রে মার্কিন প্রশাসন যে কারচুপি করে থাকে, তা নিয়ে বিতর্ক কম নয়৷ এ বারের নির্বাচনেও বেশ কিছু গুরুতর অভিযোগ উঠেছে৷ প্রশ্ন উঠলে তা নিয়ে আলোচনা হবে, এটাই গণতন্ত্রে দস্তুর৷ মুশকিল হয়, যখন প্রশ্নগুলোকে গায়ের জোরে এড়িয়ে যাওয়া হয়৷ ভারত-বাংলাদেশ-পাকিস্তানের সঙ্গে অ্যামেরিকার তফাত সম্ভবত সেখানেই৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়