অ্যান্টার্কটিকায় দাবদাহ, রেকর্ড তাপমাত্রা | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 01.04.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অ্যান্টার্কটিকা

অ্যান্টার্কটিকায় দাবদাহ, রেকর্ড তাপমাত্রা

জানুয়ারির শেষ দিকে তাপমাত্রা বাড়তে শুরু করার পর অ্যান্টার্কটিক মহাদেশে বছরের প্রথম দাবদাহ রেকর্ড করেছেনে বিজ্ঞানীরা৷

যা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে গবেষকরা বলেছেন, জলবায়ুর এ পরিবর্তনের ফলে সেখানকার উদ্ভিত ও প্রাণী জৎগতে মারাত্মক প্রভাব পড়তে পারে৷

‘অস্ট্রেলিয়ান অ্যান্টার্কটিক প্রোগ্রাম' এর গবেষকরা ইস্ট অ্যান্টার্কটিকায় অবস্থিত ‘কেসি রিসার্চ স্টেশন' থেকে এই দাবদাহ রেকর্ড করেছেন৷ গ্লোবাল চেঞ্জ বায়োলজি জার্নালে মঙ্গলবার তাদের গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ পায়৷ জলবায়ুর এই পরিবর্তন বৈশ্বিক আবহাওয়ায় প্রভাব ফেলতে পারে বলেও সতর্ক করেছে তারা৷

গত ২৩ জানুয়ারি থেকে ২৬ জানুয়ারির মধ্যে কেসির গবেষক দল ওই স্টেশনে বসে এখন পর্যন্ত গ্রীষ্মকালে রেকর্ড করা সর্বোচ্চ এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা দেখেছে৷ ওই সময়ে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা মাইনাস শূন্য ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে গিয়েছিল৷ অন্যদিকে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৭ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি উপরে উঠেছিল৷

বৈশ্বিক জলবায়ুতে প্রভাব

অ্যান্টার্কটিকায় জলবায়ুর এই পরিবর্তন সারা বিশ্বে প্রভাব ফেলতে পারে৷ গবেষণাপত্রে বলা হয়, ‘‘দক্ষিণ মহাসাগরের কারণে বাকি বিশ্ব থেকে অ্যান্টার্কটিকা মহাদেশ বিচ্ছিন্ন থাকলেও এখান থেকেই সমুদ্রের পানির প্রবাহ পরিচালিত হয়৷ যার মাধ্যমে সারা বিশ্বে সমুদ্রের পানির তাপমাত্রা উঠানামা করে৷ একই সাথে এখানকার হিমবাহগুলো গলে গিয়ে সমুদ্রের পানির উচ্চতা বাড়িয়ে দিচ্ছে৷''

যদিও অপেক্ষাকৃত উত্তপ্ত গ্রীষ্মকাল অ্যান্টার্কটিকার স্থানীয় বাসিন্দাদের জন্য প্রাথমিকভাবে লাভজনকই হবে৷ কিন্তু একই সঙ্গে এটা খরার ঝুঁকি বাড়াবে৷ এছাড়া শীতল পরিবেশের প্রাণীদের জন্য এই তাপ মারাত্মক ক্ষতি বয়ে আনতে পারে৷

‘‘অ্যান্টার্কটিকার সব মানুষ ও প্রাণী জমাট বাঁধা সমুদ্র দেখেই অভ্যস্ত৷ তারা সমুদ্রের খুব কম অংশ বরফহীন থাকতে দেখেছে৷ তাদের পানির সরবরাহও সম্পূর্ণরূপে তুষার ও বরফ গলা পানির উপর নির্ভরশীল৷

তাপমাত্রা বেড়ে বেশি বরফ গললে সাময়িকভাবে হয়তো বাসিন্দাদের পানির কষ্ট কমে যাব৷ কিন্তু দীর্ঘমেয়াদে তারা খরা পীড়ত হবেন৷''

দ্রুত বরফ গলে যাওয়ার প্রভাব সারা বিশ্বের উপরও পড়বে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেন তারা৷

রিচার্ড কনোর/এসএনএল/কেএম

২০১৯ সালের মার্চের ছবিঘর দেখুন...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন