‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ সরাতে ইউটিউব-ফেসবুক বাধ্য নয় | বিশ্ব | DW | 09.03.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ সরাতে ইউটিউব-ফেসবুক বাধ্য নয়

বাংলাদেশের আদালত গত মাসে আল-জাজিরায় প্রচারিত ‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ ইউটিউব, ফেসবুক, টুইটারসহ অন্যান্য সামাজিক মাধ্যম থেকে সরানোর নির্দেশ দিলেও এখনো তার কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না৷

বিটিআরসি জানিয়েছে, ফেসবুক ও ইউটিউবকে মেইল করলেও তারা আনুষ্ঠানিক জবাব দেয়নি৷ বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র জানান, ‘‘তবে তাদের সাথে আমাদের আলোচনা হচ্ছে৷ তারা আমাদের আবেদন পর্যালোচনা করছেন৷’’

কাতার ভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা গত ১ ফেব্রুয়ারি ‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ তথ্যচিত্রটি প্রচার করে৷ এরপর আইনজীবী এনামুল কবির তথ্যচিত্রটি বিভ্রান্তিকর, বিদ্বেষমূলক ও মানহানিকর উল্লেখ করে তা বন্ধের জন্য হাইকোর্টে একটি রিট করেন৷ হাইকোর্টের বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লার ভার্চুয়াল বেঞ্চ ১৭ ফেব্রুয়ারি ইউটিউব, ফেসবুক, টুইটারসহ অন্যান্য সামাজিক মাধ্যম থেকে ‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ সরানোর নির্দেশ দেন বিটিআরসিকে৷ বিটিআরসি ওই দিন বিকেলেই ফেসবুক ও ইউটিউবকে সরানোর অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দেয়

অডিও শুনুন 03:02

তাদের সাথে আমাদের আলোচনা হচ্ছে: বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র

বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র   জানান, মেইল পাঠানোর পর ফেসবুক-ইউটিউব বিটিআরসিকে কোনো মেইল করেনি৷ তবে টেলিফোনে কথা হয়েছে৷ এখনো কথা হচ্ছে৷ তারা  পর্যালেচনা করছেন৷ কিন্তু অফিসিয়াল কোনো জবাব আসেনি এখনো৷

বাংলাদেশের আদালতের নির্দেশ ফেসবুক ইউটিউব মানতে বাধ্য কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘আইনি কোনো কাঠামো না থাকায় আইনি কোনো বাধ্যবাধকতা নেই৷ তবে আদালতের নির্দেশনা, আইন-শৃঙ্খলা কর্তৃপক্ষের চাহিদার ভিত্তিতে তারা ব্যবস্থা নিয়ে থাকে৷ আর ওরা ওদের কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড ফলো করে৷’’

তিনি বলেন, ‘‘আমাদের দেশে আমরা বন্ধ করে দিলেও বিশ্বের অন্যান্য দেশে তো আর  বন্ধ হবে না৷ তাই শুধু আমরা কেন, পৃথিবীর কোনো দেশই ফেসবুক, গুগল, ইউটিউবের লিংক বন্ধ করতে পারে না৷ আমরা দেশীয় প্ল্যাটফর্মে বন্ধ করলে তো দেশে পুরো ফেসবুক ইউটিউব বন্ধ হয়ে যাবে৷ আমরা সেটা চাই না৷’’

অডিও শুনুন 02:22

তারা (ফেসবুক, ইউটিউব) দেখবে আমরা যেটাকে অপরাধ বলছি তাদের দেশে সেটা অপরাধ কিনা: বিটিআরসির আইনজীবী

আদালতের নির্দেশে সরাসরি আল-জাজিরাকে কোনো চিঠি দেয়া বা তাদের দিক থেকে লিংক বন্ধের কোনো কথা বলা হয়নি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘‘আমরা প্রতিনিয়ত ফেসবুক ইউটিউবের সাথে যোগাযোগ রাখছি৷’’

বিটিআরসির আইনজীবী ব্যারিস্টার খন্দকার রেজা ই কিবরিয়া বলেন, ‘‘ফেসবুক, ইউটিউব অ্যামেরিকান প্রতিষ্ঠান৷তারা দেখবে আমরা যেটাকে অপরাধ বলছি তাদের দেশে সেটা অপরাধ কিনা৷ অবশ্য তারা অপরাধ মনে না করলেও বাংলাদেশে ফেসবুক-ইউটিউব বন্ধ করে দেয়া যায়৷ আর সেটা বাংলাদেশ করবে কিনা তা সরকারের সিদ্ধান্ত৷’’

তিনি জানান, ফেসবুক ইউটিউবকে আদালতের আদেশের লইয়ার্স সার্টিফিকেট পাঠানো হয়েছে৷ এখনো সার্টিফায়েড কপি পাওয়া যায়নি৷ সেটা পাওয়ার পর তাদের পাঠানো হবে৷

অডিও শুনুন 03:10

ওদের কাছে এটা বোধ হয় মেরিটলেস মনে হয়েছে তাই প্রত্যাহার করেনি: সুমন আহমেদ সাবির

ফাইবার অ্যাট হোমের চিফ টেকনোলজি অফিসার সুমন আহমেদ সাবির জানান, অনেক লোক দেখেছে এরকম একটি কনটেন্টই ফেসবুক ইউটিউব অফলোড করেছে৷ আর সেটা হলো, নিউজিল্যান্ডের মজজিদে মাস কিলিং-এর ভিডিও৷ তারা আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর মাধ্যমে সব ভিডিও চিহ্নিত করে, টাইম লেগেছে, কিন্তু রিমুভ করেছে৷ তারা সরকারের কনটেন্টও ব্লক করে৷ যেমন, মিয়ানমার আর্মির কনটেন্ট তারা ব্লক করে৷ কারণ তারা মনে করছে এটা মানবাধিকারের বিরুদ্ধে৷ ‘‘ওদের নিজস্ব পলিসি আছে৷ সেই পলিসি অনুযায়ী ওরা ব্যবস্থা নেয়৷ বাংলাদেশ সরকার অনুরোধ করেছে সত্য তবে ওদের কাছে এটা বোধ হয় মেরিটলেস মনে হয়েছে তাই প্রত্যাহার করেনি৷ সব ক্ষেত্রে যে তারা জবাবও দেয় তাও না৷’’

প্রতিবছরই ফেসবুক ইউটিউব ট্রান্সপারেন্সি রিপোর্ট প্রকাশ করে৷ তাতে তারা জানায় কোন সরকার কতগুলো অনুরোধ করেছে৷ তার মধ্যে কতগুলো তারা রেখেছে, কতগুলো রাখেনি , জানান এই তথ্য প্রযুক্তিবিদ৷

২০২০ সালের প্রথম ছয় মাসে বাংলাদেশ ফেসবুকের কাছে ৩৭১ টি অ্যাকাউন্টের তথ্য চেয়েছে৷ শতকরা ৪৪ ভাগ ক্ষেত্রে ফেসবুক সাড়া দিয়েছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়