অলিম্পিকের পর কা’র কেমন মেজাজ | খেলাধুলা | DW | 02.03.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

অলিম্পিকের পর কা’র কেমন মেজাজ

ক্যানেডীয়রা অতি খুশী, মার্কিনিরা চাঙ্গা, জার্মানরা আশাহত হলেও নিরাশ নয়, রুশীরা হতাশ, জাপান লজ্জিত এবং চীন উল্লসিত - এই হল সোমবার বিভিন্ন দেশের অলিম্পিক হালখাতার প্রতিক্রিয়া৷

default

অলিম্পিকের রোশনাই কিন্তু সবার জন্য নয়

জার্মান দলের লক্ষ্য ছিল: দেশ হিসেবে সবচেয়ে বেশী সোনা-রুপো-তামা সংগ্রহ করা৷ সে সম্মানটা ক্যানাডাকে ছেড়ে দিতে হয়েছে৷ তবুও, ভ্যাঙ্কুভারে জার্মানরা সব মিলিয়ে ৩০টি পদক পেয়েছে, ২০০৬ সালে টুরিনের চেয়ে একটি বেশী৷ তবে আইস হকি, বিয়াথলন এবং বিশেষ করে শর্টট্র্যাক, ফ্রিস্টাইল এবং স্নোবোর্ডের মতো নতুন স্পোর্টগুলোয় জার্মানি ভালো ফল করতে পারেনি৷ আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট থমাস বাখ বলেছেন: ‘‘আমাদের বিশ্লেষণ করে দেখতে হবে, এই নতুন স্পোর্টগুলোয় জার্মানিতে কেন পর্যাপ্ত এ্যাথলীট নেই, আমাদের কিশোর-তরুণরা কেন এই নতুন স্পোর্টগুলোর দিকে ঝোঁকে না, কেন আমাদের স্পীড স্কেটিং কিংবা শর্টট্র্যাকে যথেষ্ট তরুণ প্রতিভা নেই৷''

২০০ মিলিয়ন ডলার লোকসান

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে শীতকালীন অলিম্পিক সম্পর্কে জনতার আগ্রহ বহু বছর ধরেই কমে আসছিল৷ ভ্যাঙ্কুভারের ফলাফলের কারণে সেই আগ্রহ আবার কিছুটা চাঙ্গা হয়েছে৷ এনবিসি টেলিভিশন সংস্থা রেকর্ড ৮২০ মিলিয়ন ডলার মূল্যে সম্প্রচারের অধিকার কিনেও শেষমেষ প্রায় ২০০ মিলিয়ন লোকসান করবে - যদিও যুক্তরাষ্ট্রে টিভি'তে অলিম্পিক দেখা মানুষদের সংখ্যা বেড়েছে ২০ শতাংশ৷ মার্কিন দল এবার ৩৭টি পদক জিতে জার্মান দলের ২০০২ সালে করা রেকর্ডটি ভেঙেছে৷

‘মাথা আনো'

রুশীরাই সবচেয়ে হতাশ এবং খাপ্পা৷ এককালে মহাশক্তিধর রাশিয়া এবার মাত্র তিনটি সোনা নিয়ে পদকের তালিকায় একাদশ৷ প্রেসিডেন্ট দিমিত্রি মেদভেদেভ রুশ অলিম্পিক কর্মকর্তাদের ইতিমধ্যেই হুঙ্কার দিয়েছেন: গদি ছাড়ো, নয়তো তোমাদেরই তাড়ানো হবে৷ রুশ স্কি জাম্পিং দলের জার্মান কোচ ভোলফগাং স্টায়ার্ট নাকি ইতিমধ্যেই পদত্যাগ করেছেন৷ ওদিকে ২০১৪ সালের শীতকালীন অলিম্পিক অনুষ্ঠিত হবে রাশিয়ার সোচি'তে৷

প্রতিবেশী মানে প্রতিদ্বন্দ্বী

নরওয়ে'র ক্রস-কান্ট্রি স্কি দল এবার বিপুলভাবে সফল৷ তাছাড়া নরওয়ে এবার চির-প্রতিদ্বন্দ্বী সুইডেনের প্রায় দ্বিগুণ পদক এনেছে৷ কাজেই অসলো আত্মতৃপ্তিতে পরিপূর্ণ৷ জাপানের ক্ষেত্রে যা আদৌ বলা চলে না, কেননা জাপান এবার তাদের এশীয় প্রতিদ্বন্দ্বী দক্ষিণ কোরিয়ার তুলনায় প্রায় কিছুই করতে পারেনি৷ শুধু সোনার হিসেবেই: জাপানের শূন্য এবং দক্ষিণ কোরিয়ার ছয়৷ এমনকি জাপানি অলিম্পিক কর্মকর্তারা দক্ষিণ কোরিয়াকে অনুকরণ করার কথাও বলছেন৷ চীন সেদিকে শীতকালীন অলিম্পিকে এযাবৎ তাদের সেরা ফলাফল করে উল্লসিত: তার মধ্যে পাঁচটি সোনা৷ এই সাফল্যের কারণ নাকি নতুন প্রযুক্তি, বিদেশী ট্রেনার এবং বিদেশী ভাষাশিক্ষা, বলছেন চীনের কর্মকর্তারা৷ ব্যাপারটা ভেবে দেখার মতো৷

প্রতিবেদক: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সম্পাদনা: হোসাইন আব্দুল হাই

সংশ্লিষ্ট বিষয়