অর্থ সহায়তা বন্ধের হুমকি দিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প | বিশ্ব | DW | 21.12.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

মধ্যপ্রাচ্য

অর্থ সহায়তা বন্ধের হুমকি দিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে আজ বৃহস্পতিবার জেরুসালেম নিয়ে ভোট হবে৷ এতে জেরুসালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার যে ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তা থেকে তাঁকে সরে আসার অনুরোধ জানানো হবে৷

সম্প্রতি জেরুসালমকে রাজধানীর স্বীকৃতি দেয়ার পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস সেখানে স্থানান্তরের ঘোষণাও দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট৷ তাঁর এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে মুসলিম বিশ্বে বিক্ষোভ, প্রতিবাদ হয়েছে৷

এর আগে সোমবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে একটি প্রস্তাব পেশ করেছিল মিশর৷ প্রস্তাবে ট্রাম্পকে তাঁর সিদ্ধান্ত বাতিলের অনুরোধ করা হয়েছিল৷ তবে ১৫ সদস্যের মধ্যে ১৪ জন প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দিলেও যুক্তরাষ্ট্রের ভেটোর কারণে তা পাস করা যায়নি৷

এরপর ফিলিস্তিন ও তাদের সমর্থক আরব রাষ্ট্রগুলো সাধারণ পরিষদে একটি জরুরি অধিবেশন আয়োজনের আবেদন করে৷ আজ বৃহস্পতিবার সেটি অনুষ্ঠিত হবে৷ সেখানে একইরকম প্রস্তাব নিয়ে ভোট অনুষ্ঠিত হবে৷ তার আগে জাতিসংঘে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি নিকি হ্যালি ১৯৩ সদস্যরাষ্ট্রের অধিকাংশকে একটি চিঠি দিয়েছেন৷ চিঠিতে বলা হয়েছে, যারা যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে ভোট দেবে তাদের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নেয়া হবে৷ একটি টুইটেও তিনি বিষয়টি পরিষ্কার করেছেন৷ টুইটে ডোনাল্ড ট্রাম্পের একটি বক্তব্য উদ্ধৃত করেছেন তিনি৷ ট্রাম্প বলেছেন, ‘‘আমাদের বিপক্ষে ভোট দিতে দাও৷ আমরা অনেক বাঁচাবো৷''

বুধবার মন্ত্রিপরিষদের বৈঠক শুরুর আগে নিকি হ্যালিকে পাশে বসিয়ে তাঁর কাজের প্রশংসা করেন ট্রাম্প৷ জাতিসংঘে ভোটের আগে হ্যালি সবার কাছে ‘সঠিক বার্তা' পাঠিয়েছেন বলে মন্তব্য করেন ট্রাম্প৷ এছাড়া তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘তারা (বিভিন্ন দেশ) আমাদের অর্থ নেয়, এবং তারপর আমাদের বিপক্ষে ভোট দেয়৷ তারা শত শত মিলিয়ন ডলার, এমনকি বিলিয়ন ডলার নেয়, এবং তারপর আমাদের বিপক্ষে ভোট দেয়৷ আমরা এই ভোটের দিকে নজর রাখছি৷ তাদের আমাদের বিপক্ষে ভোট দিতে দেন৷ আমরা অনেক (অর্থ) বাঁচাবো৷ আমরা পরোয়া করিনা৷''

ট্রাম্পের এই মন্তব্যের পর ‘কাউন্সিল অন অ্যামেরিকান-ইসলামিক রিলেশন্স' এর জাতীয় নির্বাহী পরিচালক নিহাদ আওয়াদ টুইট করে বলেছেন, ‘‘জাতিসংঘে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃস্থানীয় অবস্থানকে কাজে লাগিয়ে অন্যান্য দেশ, যারা জেরুসালেমের ধর্মীয় স্বাধীনতা ও ন্যায়বিচারের সমর্থক, তাদের ব্ল্যাকমেল করা আমাদের সরকারের উচিত হবে না৷ খ্রিষ্টান, ইহুদি ও ইসলাম ধর্মের গুরুত্বপূর্ণ মূল্যবোধ হলো ন্যায়বিচার৷''

ফিলিস্তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রী রিয়াদ আল-মালিকি ও তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভুসল যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ভয় দেখানোর অভিযোগ এনেছেন৷ তাঁরা আশা করছেন, জাতিসংঘের সদস্যরাষ্ট্রগুলো হ্যালির ‘চাপ' উপেক্ষা করবে৷ এবং বিবেক অনুযায়ী কাজ করবে৷

জেডএইচ/ডিজি (এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন