1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
ডেসটিনি গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রফিকুল আমীনকে আদালতে হাজির করার ফাইল ছবি
ডেসটিনি গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রফিকুল আমীনকে আদালতে হাজির করার ফাইল ছবিছবি: bdnews24.com

অর্থ আত্মসাৎ ও পাচার: ডেসটিনির রফিকুল ও হারুনের কারাদণ্ড

১২ মে ২০২২

ডেসটিনি গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রফিকুল আমীনকে ১২ বছর এবং কোম্পানির প্রেসিডেন্ট সাবেক সেনাপ্রধান হারুন-অর-রশিদকে চার বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত৷ অর্থ আত্মসাৎ ও পাচারের এক মামলায় তাদের এই সাজা দেয়া হয়৷

https://www.dw.com/bn/%E0%A6%85%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%A5-%E0%A6%86%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%AE%E0%A6%B8%E0%A6%BE%E0%A7%8E-%E0%A6%93-%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%9A%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%A1%E0%A7%87%E0%A6%B8%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%B0-%E0%A6%B0%E0%A6%AB%E0%A6%BF%E0%A6%95%E0%A7%81%E0%A6%B2-%E0%A6%93-%E0%A6%B9%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%81%E0%A6%A8%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%A6%E0%A6%A3%E0%A7%8D%E0%A6%A1/a-61767041

বাংলাদেশে ডয়চে ভেলের কনটেন্ট পার্টনার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম জানিয়েছে, ঢাকার চতুর্থ বিশেষ জজ আদালতের বিচারক শেখ নাজমুল আলম বৃহস্পতিবার মামলার রায় ঘোষণা করেন৷

ডেসটিনি মাল্টিপারপাস কো অপারেটিভ সোসাইটির প্রায় এক হাজার ৮৬১ কোটি টাকা আত্মসাৎ ও পাচারের এ মামলায় আসামি ছিলেন মোট ৪৬ জন৷ বাকিদের রায় ঘোষণা চলছে৷

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১২ সালের ৩১ জুলাই ডেসিটিনির কর্তাব্যক্তিসহ অন্যদের বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক৷ মামলায় ডেসটিনি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি এবং ডেসটিনি ট্রি প্লান্টেশন প্রজেক্টের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়৷

২০১৪ সালের ৫ মে দুদক আদালতে উভয় মামলার অভিযোগপত্র দেয়৷ ডেসটিনি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটির মামলায় ৪৬ জন এবং ডেসটিনি ট্রি প্লানটেশন লিমিটেডে দুর্নীতির মামলার ১৯ জনকে আসামি করা হয়৷ হারুন-অর-রশিদ ও রফিকুল আমিন দুই মামলাতেই আসামি

অভিযোগপত্র অনুযায়ী, মাল্টি পারপাস কো-অপারেটিভ প্রোজেক্টের নামে ২০০৮ সাল থেকে ডেসটিনি বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে এক হাজার ৯০১ কোটি টাকা সংগ্রহ করে৷ সেখান থেকে এক হাজার ৮৬১ কোটি টাকা আত্মসাৎ হয় বলে দুদকের অনুসন্ধানে ধরা পড়ে৷ ওই অর্থ আত্মসাতের ফলে সাড়ে আট লাখ বিনিয়োগকারী ক্ষতিগ্রস্ত হন৷

ডেসটিনি ট্রি প্লান্টেশন প্রোজেক্টের মাধ্যমে বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে দুই হাজার ৪৪৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করে৷ এর মধ্যে দুই হাজার ২৫৭ কোটি ৭৮ লাখ ৭৭ হাজার টাকা আত্মসাত৷ এর ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হন সাড়ে ১৭ লাখ বিনিয়োগকারী৷

তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, ডেসটিনি গ্রুপের নামে ২৮টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বেশ কয়েকটি ছিল নামসর্বস্ব৷ আসামিরা প্রথমে প্রকল্পের টাকা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের হিসাবে জমা করতেন৷ তারপর বিভিন্ন ব্যাংকের হিসাবে তা স্থানান্তর করা হতো৷

দুদক ৩৪টি ব্যাংকে এ রকম ৭২২টি হিসাবের সন্ধান পায়, যেগুলো পরে জব্দ করা হয়৷ আত্মসাৎ করা চার হাজার ১১৯ কোটি টাকার মধ্যে ৯৬ কোটি টাকা বিদেশে পাচারের অভিযোগও আনা হয় দুই মামলায়৷

ডেসটিনি ট্রি প্ল্যান্টেশন লিমিটেডের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে মামলা এখন সাক্ষ্যগ্রহণের পর্যায়ে রয়েছে৷

এফএস/কেএম (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

Symbolbild I Energiearmut I Hohe Energiepreise

‘গ্যাস সংকটের সহসা সমাধান নেই’

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান