অভিবাসীদের জন্য সেকন্ডোস প্রোগ্রাম | জার্মানিতে উচ্চশিক্ষা | DW | 30.01.2012
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানিতে উচ্চশিক্ষা

অভিবাসীদের জন্য সেকন্ডোস প্রোগ্রাম

জার্মানিতে বসবাস করছে কয়েক লক্ষ অভিবাসী পরিবার৷ এসব পরিবারের ছেলে-মেয়েরা বড় হয় এক সঙ্গে দুটি ভাষা শিখতে শিখতে৷ একটি পর্যায়ে দেখা যায় জার্মান ভাষায় এরা দক্ষ হয়ে উঠেছে এবং মাতৃভাষা ধীরে ধীরে হারিয়ে গেছে৷

মাতৃভাষাকে ধরে রাথতে চলছে এই অভিনব কর্মসূচি

মাতৃভাষাকে ধরে রাথতে চলছে এই অভিনব কর্মসূচি

তাদের মাতৃভাষাকে টিকিয়ে রাখেত রেগেন্সবুর্গ বিশ্ববিদ্যালয় হাতে নিয়েছে বিশেষ একটি প্রকল্প৷ প্রকল্পে আর্থিকভাবে সাহায্য করছে বৃত্তি প্রদানকারী সংস্থা ডিএএডি৷ রেগেন্সবুর্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের এই প্রকল্পের নাম সেকন্ডোস প্রোগ্রাম৷ পোল্যান্ড, হাঙ্গেরি, ক্রোয়েশিয়া, রুমেনিয়া, ইউক্রেন এবং রাশিয়ায় বেশ কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে পার্টনারশিপ প্রোগ্রাম চালু করেছে রেগেন্সবুর্গ বিশ্ববিদ্যালয়৷ এই প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করছে তারা, যাদের শিকড় অন্য আরেকটি দেশে কিন্তু তারা বসবাস করছে জার্মানিতে৷ এলিজা হানগানু তাদের মধ্যে একজন৷ তিনি বললেন,‘‘আমাকে যে বিষয়টি সবচেয়ে বেশি আনন্দ দিয়েছে তা হল আমি অনেকের সঙ্গে পরিচিত হতে পেরেছি৷ অনেকের সঙ্গেই আমার বন্ধুত্ব হয়েছে৷ যদিও আমি রুমেনিয়ায় খুব অল্প সময় কাটিয়েছি কিন্তু পুরো সময়টি আমি ভীষণভাবে উপভোগ করেছি৷ আমার মনে হয়েছে আমি নিজের বাড়িতে, নিজের দেশেই বসবাস করছি৷''

Secondo-Programm Uni Regensburg

রেগেন্সবুর্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ড.টোমাস স্ট্রোটটে

এলিসা হানগানু গত বছরের গ্রীষ্মকালীন সেমেস্টার রুমেনিয়ায় কাটিয়েছেন৷ অনেক আগে তার স্বামীর পরিবার রুমেনিয়ায় থেকে জার্মানিতে এসেছিল৷ আর ফিরে যাওয়া হয়নি৷ তাই রুমেনিয়ার প্রতি তীব্র আকর্ষণ জন্মায় এলিজার৷ তিনি বেশ আগ্রহের সঙ্গে তার অভিজ্ঞতার কথা জানাচ্ছেন৷ সেকন্ডস প্রোগ্রাম এই সুযোগটি অভিবাসী পরিবারের ছেলে-মেয়েদের দিচ্ছে৷ লিডিয়া রুৎসিকের জন্ম ক্রোয়েশিয়ায়৷ তিনি বলছেন,‘‘একটি সেমেস্টার সেখানে কাটানো – সব কিছু কঠিন মনে হয়নি? সবকিছু রোমানিয়ার ভাষায় করতে হয়েছে, লিখতে হয়েছে, পড়তে হয়েছে৷ এগুলো কি সহজ?'' উত্তরে এলিজা জানান,‘‘আমি খুব গভীরভাবে কোন বিষয় নিয়ে কারো সঙ্গে তেমন আলোচনায় যাইনি৷ মৌখিক পরীক্ষার জন্য একটি কোর্স করেছিলম৷ অন্য বিষয়গুলোর জন্য নয়৷ লিখিত পরীক্ষার জন্য নিজেকে ভালভাবে তৈরি করা প্রয়োজন, আমি করেছিলাম৷ চেষ্টা করলে যে কেউই পারবে৷''

নিজ দেশে একটি সেমেস্টার

এ ধরণের অনুপ্রেরণার প্রয়োজন লিডিয়ার৷ লিডিয়ার বাবা-মা ক্রোয়েশিয়ার নাগরিক৷ বসবাস করছেন জার্মানিতে৷ লিডিয়া একটি সেমেস্টার ক্রোয়েশিয়ায় করতে চায়৷ লিডিয়া বললেন,‘‘আমি যখনই ক্রোয়েশিয়ায় বেড়াতে যাই আমি আমার খালার কাছে বকা খাই৷ কারণ আমি তাদের মত ক্রোয়েশিয়ার ভাষায় কথা বলতে পারি না৷ আমি আশা করছি যে একটি সেমেস্টার কাটানোর পর ব্যাকরণ এবং বাক্য গঠন ঠিকঠাক মত আমি শিখবো৷''

পোল্যান্ডের মেয়ে রোজালি ড্রিয়ান্সকি৷ রাশিয়ার মেয়ে জুলিয়া বাল৷ এই দুই ছাত্রীও মাতৃভাষায় বেশ দুর্বল৷ রোজালি জানান,‘‘আমি পোলিশ ভাষায় কথা বলতে পারি, পড়তে পারি খুবই কম৷ ব্যাকরণে আমি সবকিছুই গুলিয়ে ফেলি৷''

একই সমস্যার কথা বলল জুলিয়া৷ জুলিয়ার ভাষ্য,‘‘আমি রাশিয়া দেশটিকে চিনতে চাই, জানতে চাই৷ অনেক ছোটবেলার কথা আমার মনে পড়ে, খুব হালকা ভাবে৷ কিন্তু এখন আর সবকিছু আগের মত নেই৷ আর ভাষা? আমি শুধু কথা বলতে পারি৷ রুশ ব্যাকরণের আমি কিছুই জানিনা৷''

Secondo-Programm Uni Regensburg

এই কর্মসূচির সুফল ভোগ করছেন ছাত্রছাত্রীরা

সেকন্ডোস প্রোগ্রাম পেয়েছে শিক্ষাবিষয়ক পুরস্কার

এখানেই এগিয়ে এসেছে রেগেন্সবুর্গ বিশ্ববিদ্যালয়৷ অংশগ্রহণকারীদের প্রত্যেকেই একটি বা দুটি সেমেস্টার পার্টনারশিপ প্রোগ্রামের দেশগুলোতে কাটাবে৷ ছয়টি বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে এ ধরণের প্রোগ্রামের ব্যবস্থা করেছে রেগেন্সবুর্গ বিশ্ববিদ্যালয়৷ এই প্রোগ্রামের মধ্যে দিয়ে শুধু মাতৃভাষাই নয়, দেশটিকেও জানা সম্ভব হবে৷ বাবা-মায়ের জন্মস্থান, নিজের জন্মস্থানকে দেখার এই একটি মোক্ষম সুযোগ৷ এই প্রোগ্রামে কাজ করছেন লিজা উঙ্গ্যার ফিশার৷ তিনি জানান,‘‘ যারা এই প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করে এই দেশগুলোতে একটি সেমেস্টার কাটিয়েছে, আমরা দেখেছি গ্র্যাজুয়েশনের পর তারা মাতৃভাষায় অনর্গল কথা বলছে৷ অন্য আরেকটি দেশ, দেশের সংস্কৃতি সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা তৈরি হয়েছে৷ এসবের জন্য তাদের আলাদা একটি সার্টিফিকেট দেয়া হয়৷ এর আরেকটি অর্থ হল সেকন্ডস প্রোগ্রাম এসব অভিবাসী পরিবারদের শিকড়কে কাজে লাগাচ্ছে৷ বাবা-মায়ের দেশকে আঁকড়ে ধরে রাখার একটি উপায় খুঁজে পেয়েছে এসব পরিবারের ছেলে-মেয়েরা৷ এখন তারা বেশ গর্বের সঙ্গেই বলতে পারে – আমি এমন একজন যে দুটি দেশকে চিনি, জানি, দুটি ভাষাতেই অনর্গল কথা বলতে পারি৷''

রেগেন্সবুর্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের এই প্রোগ্রামটি ২০১১ সালে শিক্ষাবিষয়ক একটি পুরস্কারও পেয়েছে৷ জার্মান অর্থনীতিকে আরো চাঙ্গা করতে অভিবাসীদের গুরুত্বের কথা জানানো হচ্ছে৷ ইউরোপের দুটি দেশে এদের অবাধ যাতায়াত, তারা ভাষা জানে – সেই সুযোগও গ্রহণ করছে জার্মানি৷ পোল্যান্ডের ছেলে ডেভিড বলল,‘‘আমি মনে করি, পরে এই দুটি দেশে থাকা, দুটি ভাষায় কথা বলার অভিজ্ঞতা কর্মক্ষেত্রে কাজে লাগবে৷ আমি শুধু জার্মানিতেই নয় পোল্যান্ডেও অনেক কিছু করতে পারবো৷ কাজের প্রয়োজনে আমাকে যদি প্রায়ই পোল্যান্ডে যেতে হয় তাহলে তো তা এক কথায় দারুণ!''

প্রতিবেদন: মারিনা জোয়ারদার

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন