‘অভিবাসন চ্যালেঞ্জ হলেও সাফল্যের দৃষ্টান্তও রয়েছে′ | বিশ্ব | DW | 07.09.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

‘অভিবাসন চ্যালেঞ্জ হলেও সাফল্যের দৃষ্টান্তও রয়েছে'

দেশজুড়ে বিতর্কের মুখেও জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল নিজের অভিবাসন নীতিতে অবিচল রয়েছেন৷ তবে সাধারণ মানুষের মধ্যে অভিবাসন নিয়ে সংশয় এখনো দূর হয়নি৷

জার্মানির পূর্বাঞ্চলে কেমনিৎস শহরে সাম্প্রতিক হিংসালীলা এবার সরাসরি রাজনীতি জগতকে নাড়া দিচ্ছে৷ সেইসঙ্গে জনমতের উপরেও এই ঘটনাবলির প্রভাব পড়ছে৷ চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল বিদেশি বিদ্বেষের বিরুদ্ধে জোরালো অবস্থান নেওয়া সত্ত্বেও তাঁর জোট সরকারের মধ্যে বিষয়টি নিয়ে আবার কোন্দল দেখা দিচ্ছে৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বাভেরিয়ার সিএসএউ দলের নেতা হর্স্ট সেহোফার অভিবাসনের বিষয়টিকেই জার্মানির সব সমস্যার মূল হিসেবে বর্ণনা করেছেন৷ এমনকি কেমনিৎস শহরে উন্মত্ত জনতার প্রতিও সহানুভূতি দেখিয়েছেন তিনি৷ ফলে জোট সরকারের মধ্যে নতুন করে আবার উত্তেজনা বাড়ার আশঙ্কা দেখা দিচ্ছে৷

বৃহস্পতিবার ম্যার্কেল সরাসরি চরম দক্ষিণপন্থি এএফডি দলের বিরুদ্ধে মারাত্মক অভিযোগ করেছেন৷ এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, এই দল হিংসাত্মক বিক্ষোভের ফায়দা তুলছে৷ বিশেষ করে দলের নেতাদের কিছু সাম্প্রতিক মন্তব্যের কড়া সমালোচনা করেন তিনি৷

উল্লেখ্য, এএফডি দলের নেতা আলেক্সান্ডার গাউলান্ড ম্যার্কেলের ‘উদার শরণার্থী নীতি'র বিরুদ্ধে ‘নীরব বিপ্লব'-এর ডাক দিয়েছেন৷ এএফডির সাম্প্রতিক কার্যকলাপের কারণে অনেক জার্মান রাজনীতিক তাদের উপর অভ্যন্তরীণ গোয়েন্দা সংস্থার নজরজারির ডাক দিয়েছেন৷ ম্যার্কেল অবশ্য স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন যে, একমাত্র গোয়েন্দা সংস্থাগুলির প্রধানরাই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন৷ সেইসঙ্গে সবার আগে রাজনৈতিক স্তরে এএফডির মোকাবিলার পক্ষে সওয়াল করেছেন তিনি৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সেহোফারের সাম্প্রতিক মন্তব্যের বিরোধিতা করে ম্যার্কেল বলেন, অভিবাসন অবশ্যই চ্যালেঞ্জ বয়ে আনে৷ কিছু সমস্যা সত্ত্বেও এ ক্ষেত্রে সাফল্যেরও অনেক দৃষ্টান্ত রয়েছে৷

জার্মানির এআরডি রেডিও-টেলিভিশন নেটওয়ার্ক এমন প্রেক্ষাপটে এক জনমত সমীক্ষা চালিয়েছে৷ তাতে দেখা যাচ্ছে, মাত্র ২৭ শতাংশ মানুষ সমাজের মূল স্রোতে শরণার্থীদের সম্পৃক্ত করার উদ্যোগকে সফল হিসেবে দেখেন৷ ৬৯ শতাংশ মানুষ মনে করেন, এই প্রক্রিয়া মোটেই ভালোভাবে ঘটছে না৷

এদিকে কেমনিৎস শহরে হিংসাত্মক বিক্ষোভের চরিত্র নিয়েও বিতর্ক দানা বাঁধছে৷ রাজ্য সরকার জনতার সুপরিকল্পিত হিংসার অভিযোগ খণ্ডন করলেও ম্যার্কেলসহ অনেক রাজনীতিক সেই সব ঘটনার ভিডিও দেখে নিরীহ মানুষের উপর জনতার নিপীড়নের নিন্দা করেছেন৷ এবার জার্মান অভ্যন্তরীণ গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান হান্স-গেয়র্গ মাসেন সেই সব ভিডিওর বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন৷ সংবাদ মাধ্যমের বেশিরভাগ প্রতিবেদনের সঙ্গে তাঁর বক্তব্য সামঞ্জস্যপূর্ণ না হওয়ায় বিষয়টি নিয়ে নতুন করে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন