অভিজিৎ হত্যাকাণ্ডে যুক্ত থাকার কথা স্বীকার করেছে সোহেল | বিশ্ব | DW | 06.11.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

অভিজিৎ হত্যাকাণ্ডে যুক্ত থাকার কথা স্বীকার করেছে সোহেল

মুক্তমনা লেখক অভিজিৎ রায়ের হত্যার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে একজন ইসলামিক জঙ্গিকে গ্রেপ্তারের কথা জানিয়েছে বাংলাদেশের কাউন্টার টেরোরিজম পুলিশ৷ মেজর জিয়ার নির্দেশে ওই হত্যাকাণ্ডে অংশ নিয়েছিল বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে সে৷

আবু সিদ্দিক সোহেল নামে ৩৪ বছরের ঐ জঙ্গি নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের (সাবেক আনসারুল্লাহ বাংলা টিম) সদস্য বলে জানা গেছে৷ লেখক অভিজিৎ রায়ের হত্যার পেছনে আল-কায়েদা সমর্থিত এই জঙ্গি দলটির হাত রয়েছে বলে আগে থেকেই জানিয়েছিল পুলিশ৷ ওয়ান্টেড তালিকায় ছিল সোহেলের নাম৷ উপ-পুলিশ কমিশনার মাসুদুর রহমান বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন, ‘‘অভিজিৎ রায় হত্যাকাণ্ডে সোহেল জড়িত বলে সন্দেহ করছি আমরা৷''

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সোহেল অভিজিৎ হত্যার সাথে যুক্ত থাকার কথা স্বীকার করেছে৷ বরখাস্তকৃত সেনা কর্মকর্তা মেজর জিয়ার নির্দেশে সে হত্যাকাণ্ডে অংশ নেয় বলে প্রতিবেদনে জানিয়েছে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম৷ 

অভিজিৎ রায় বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক৷ ২০১৫ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি রাতে অমর একুশে গ্রন্থমেলা চলাকালে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ থেকে বের হওয়ার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির কাছে ফুটপাতে কুপিয়ে হত্যা করা হয় অভিজিৎ রায়কে৷ ওই সময় তাঁর সঙ্গে থাকা স্ত্রী বন্যা আহমেদও হামলার শিকার হয়ে একটি আঙুল হারান৷

ঘটনাস্থলের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে সোহেলকে চিহ্নিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মাসুদুর রহমান৷ রবিবার রাতে রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷

বাংলাদেশে গত কয়েক বছরে ইসলামি জঙ্গি গোষ্ঠীর হামলায় মুক্তচিন্তার ব্লগার, নাস্তিক, বিদেশি এবং সংখ্যালঘু নিহত হয়েছেন৷ এর মধ্যে অভিজিৎ হত্যাসহ বেশ কয়েকটি হামলার দায় স্বীকার করেছিল আল-কায়েদা ও ইসলামিক স্টেট৷ যদিও বাংলাদেশ সরকার বরাবরই বলে আসছে, কোনো আন্তর্জাতিক জঙ্গি গোষ্ঠী এ সমস্ত হামলার পেছনে জড়িত নয়৷ দেশের ভেতরের বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনই এ সব হামলা চালিয়েছে

অভিজিৎ হত্যার পর শাহবাগ থানায় তাঁর বাবার দায়ের করা মামলায় এর আগে ১০ জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ৷ গত বছর ১৯ জুন হত‌্যাকাণ্ডের ‘প্রধান সন্দেহভাজন' মুকুল রানা ওরফে শরিফুল খিলগাঁওয়ে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন৷

এপিবি/ডিজি (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন