‘অবিবেচক’ সিদ্ধান্ত বাতিল, সাত কলেজের পরীক্ষা চলবে | বিশ্ব | DW | 24.02.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

‘অবিবেচক’ সিদ্ধান্ত বাতিল, সাত কলেজের পরীক্ষা চলবে

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাত কলেজের পরীক্ষা চলবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়৷ তবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়সহ অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষার ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি৷

সিদ্ধান্তের পর বুধবার সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা তাদের আন্দোলন প্রত্যাহার করে নিয়েছেন৷

বুধবার দুপুরের পর শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে অধিভুক্ত কলেজের অধ্যক্ষ ও ঢাকা  বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক এ কে এম মাকসুদ কামালের ভার্চুয়াল বৈঠক হয়৷ বৈঠকের পর ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ ও সাত কলেজের সমন্বয়ক অধ্যাপক সেলিম উল্লাহ খোন্দকার ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘সাত কলেজের পরীক্ষা চলবে তবে পরীক্ষার্থীরা হলে থাকতে পারবেন না৷ আবাসিক হল খোলা হবে না৷ পরীক্ষার হলে স্বাস্থ্যবিধি পুরোপুরি মানতে হবে৷’’

তিনি জানান বৈঠকে আরো অনেক বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে তবে সিদ্ধান্ত হয়নি৷

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপুমনি ২২ ফেব্রুয়ারি সংবাদ সম্মেনে জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলো ১৭ মে খুলে দেয়া হবে৷ আর ২৪ মে থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্লাস শুরু হবে৷ ২৪ মে এর আগে কোনো পরীক্ষা নেয়া যাবে না বলেও জানান তিনি৷ এরপর এই সাতটি কলেজসহ আরো যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরীক্ষা চলছিল তারা সরকারের সিদ্ধান্ত মেনে চলমান পরীক্ষা স্থগিত করে৷

অডিও শুনুন 01:12

পরীক্ষার্থীরা হলে থাকতে পারবেন না: অধ্যাপক সেলিম উল্লাহ খোন্দকার

সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে নীলক্ষেত ও সায়েন্স ল্যাবরেটরি এলাকায় অবস্থান নিয়ে পরীক্ষা চালু রাখার দাবিতে আন্দোলনন শুরু করেন৷ রাতে তারা চলে গেলেও বুধবার সকাল থেকে তারা আবার অবস্থান নেন৷ সন্ধ্যায় শিক্ষামন্ত্রীর বৈঠকের কথা বলে তাদের তুলে দেয়ার চেষ্টা করা হলেও তারা আন্দোলন অব্যাহত রাখেন৷ ফলে দুপুরের পরই শিক্ষামন্ত্রী বৈঠক করে সাত কলেজের পরীক্ষা অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত নিলেন৷

দুই দিন পরীক্ষা স্থগিতের কারনে কয়েকটি বিষয়য়ের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে পারেনি৷ অধ্যাপক সেলিম উল্লাহ খোন্দকার জানান, এরইমধ্যে ওইসব বিষয়ের পরীক্ষার নতুন তারিখ নির্ধারণ করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়৷ তার মতে, সামান্য ক্ষতি হলেও তা এখন কাটিয়ে উঠা যাবে৷

সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের এই আন্দোলনের আহ্বায়ক আবু বকর সিদ্দিক বলেন, ‘‘অবিবেচক সিদ্ধান্তের কারণেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নামতে বাধ্য হয়েছিল৷’’

আবুবক্কর সিদ্দিক জানান, অনার্স তৃতীয় বর্ষ, ফাইনাল ইয়ার ও মাস্টার্সের পরীক্ষা চলছিল৷ হঠাৎ করেই পরীক্ষা স্থগিত করায় প্রায় ১০ হাজার শিক্ষার্থী হতাশ হয়ে পড়েন৷ তাই তারা আন্দোলনে নামতে বাধ্য হন৷ তারা এইসব কলেজে তারা ২৫টি বিষয়ে পড়াশুনা করেন৷

অডিও শুনুন 03:12

অবিবেচক সিদ্ধান্তের কারণেই শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নামতে বাধ্য হয়েছিল: আবু বকর সিদ্দিক

তিনি জানান মাস্টার্সের পরীক্ষা  বলতে গেলে প্রায় শেষ হয়ে গেছে৷ কিছু বিষয়ের মৌখিক ও প্র্যাকটিকাল পরীক্ষা বাকি আছে৷ তৃতীয় বর্ষের চারটি পরীক্ষা হয়ে গেছে, বাকি আছে তিনটি৷ আর ফাইনাল ইয়ারের পরীক্ষা কারুর আজ (বুধবার) এবং আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) শেষ হওয়ার কথা ছিলো৷

এমনিতেই কলেজগুলোতে সেশনজ্যাম৷ ২০১৯ সালে এই পরীক্ষাগুলো হওয়ার কথা ছিল থাকলেও সেই পরীক্ষা এখন হচ্ছে৷ এই পরীক্ষা শুরু করতেও এর আগে তাদের আন্দোলন করতে হয়েছে৷

আবু বকর সিদ্দিক বলেন, ‘‘আমাদের দাবি ছিল পরীক্ষা চলমান রাখার ৷ দাবি মেনে নেয়ায় আমরা এখন পড়ার টেবিলে ফিরে গেছি৷’’

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘আমরা এখন হলে থাকছি না৷ ভাড়া বাসায় থেকে পরীক্ষা দিচ্ছি৷ তাই হলে থাকতে না দিলেও আমাদের সমস্যা নেই৷  হাঠাৎ স্থগিতের কারণে দুইটি পরীক্ষা হয়নি৷ তারও তারিখ এখন দিয়ে দিয়েছে৷’’

এদিকে শিক্ষামন্ত্রীর ভাচুয়াল বৈঠকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান পরীক্ষা স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার ও হল খুলে দেয়ার জন্য ছাত্রদের আন্দোলনের বিষয়ে আলোচনা হলেও নতুন কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়