অপারেশেনের সময় রক্তক্ষরণ কমানোর উদ্যোগ | অন্বেষণ | DW | 17.06.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

অপারেশেনের সময় রক্তক্ষরণ কমানোর উদ্যোগ

জটিল অস্ত্রোপচারের সময় রক্তক্ষরণের ফলে রোগীর প্রাণসংশয় হতে পারে৷ কিন্তু এমন পরিস্থিতি এড়াতে একাধিক পদক্ষেপ নেওয়া সম্ভব৷ জার্মানিতে এ নিয়ে নানারকম ভাবনাচিন্তা চলছে৷ একটি প্রক্রিয়া বেশ কার্যকর হচ্ছে৷

রাল্ফ এয়ারমার্ট বাইপাস অপারেশনের জন্য প্রস্তুত হচ্ছেন৷ এমন অস্ত্রোপচারের সময় অনেক রক্তক্ষরণের ঝুঁকি থাকে৷ তাই এই প্রক্রিয়াকে যথেষ্ট গুরুত্ব দেন তিনি৷ রোগী হিসেবে রাল্ফ এয়ারমার্ট নিজের ভয়ের কথা লুকোচ্ছেন না৷

অপারেশনের সময় রক্তের প্রয়োজন হলে তার ব্যবস্থা থাকে৷ কিন্তু ফ্রাংকফুর্ট শহরের বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে সেই প্রয়োজনীয়তা দূর করার চেষ্টা চলছে৷ প্রো. পাট্রিক মাইবোম এ বিষয়ে বলেন, ‘‘বিশেষ করে বড় ধরনের অপারেশন ম্যারাথন রেসের মতো৷ আমরা খেলাধুলার মতোই রোগীদের তার জন্য প্রস্তুত করার কথা বলি৷ রক্তক্ষরণের প্রসঙ্গে মনে রাখতে হবে, যে ব্লাড পিগমেন্ট, হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বড় ভূমিকা পালন করে৷ অপারেশনের আগে সেই মাত্রা যত বেশি হবে, অপারেশন চলাকালীন রক্তক্ষরণ হলে তার বাফার তত বেশি হবে৷''

রক্তের থলির প্রয়োজন তার উপরেই নির্ভর করে৷ সে কারণে ফ্রাংকফুর্ট ও গ্রাইফসভাল্ড শহরে অপারেশনের আগেই রোগীর শরীর থেকে রক্ত নিয়ে তাতে আয়রন যোগ করা হয় এবং কোয়াগুলেশন ডিসঅর্ডার বা রক্ত জমাট বাঁধার সম্ভাবনার মাত্রা পরিমাপ করা হয়৷ কারণ অন্যের রক্ত শরীরে প্রবেশ করলে সব সময়ে একটা ঝুঁকি থাকে৷ গ্রাইফসভাল্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. গ্রেগর ইয়েনিশেন বলেন, ‘‘বাইরে থেকে রক্ত গ্রহণ করলে আমাদের শরীরে অন্যের কোষও প্রবেশ করে৷ অঙ্গ প্রতিস্থাপনের সঙ্গে এর তুলনা করা যেতে পারে৷ শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতার উপর তার প্রভাব পড়ে৷'' 

একই ব্লাড গ্রুপ থাকা সত্ত্বেও শরীরের মধ্যে প্রতিরোধের প্রবণতা দেখা দিতে পারে৷ জ্বর, রক্তক্ষরণ অথবা বমি বমি ভাব দেখা দিতে পারে৷ ফ্রাংকফুর্ট বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের প্রো. কাই সাখারভস্কি বলেন, ‘‘আমরা জানি, মানুষ অনেক রক্তদান করলে তার শরীরের সার্কুলেশন বা রক্ত চলাচল প্রক্রিয়ার উপর চাপ পড়ে৷ এমনকি পালমোন্যারি এডেমা হতে পারে৷ সে কারণে অত্যন্ত সতর্ক থাকা জরুরি৷ রোগীর ঠিক যতটা রক্তের প্রয়োজন, তার থেকে বেশি দেওয়া উচিত নয়৷''

এ ক্ষেত্রে পরিমিত মাত্রাই ভালো৷ ফ্রাংকফুর্টের ডাক্তারদের নতুন এক গবেষণায় এমনটাই দেখা যাচ্ছে৷ তাঁরা প্রায় ২ লক্ষ ৩৫ হাজারেরও বেশি অপারেশন সংক্রান্ত তথ্য বিশ্লেষণ করেছেন৷ তার মধ্যে অর্ধেক ‘পেশেন্ট ব্লাড ম্যানেজমেন্ট' নামের রক্ত সঞ্চয়ের প্রক্রিয়া চালু করার আগে, বাকি অর্ধেক এই প্রক্রিয়া চালু করার পরে হয়েছিল৷ দেখা গেল, নতুন পদ্ধতির কারণে ট্রান্সফিউশনের হার ৩৯ শতাংশ কমে গেছে৷তাছাড়া এর ফলে রোগীরা আগেই হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাচ্ছেন৷ গড়ে আধ দিন আগেই তারা যথেষ্ট সুস্থ বোধ করছেন৷ শারীরিক জটিলতা ২০ শতাংশ কমে গেছে৷ মৃত্যুর হারও ১১ শতাংশ কমে গেছে৷ প্রো. পাট্রিক মাইবোম বলেন, ‘‘এটা সত্যি বিশাল ঘটনা বটে৷ এর ফলে প্রথমবার ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে, যে সার্বিক পরিকল্পনার ক্ষেত্রে শুধু রক্তের ব্যাগের প্রয়োজনীয়তা কমছে না, রোগীরাও সরাসরি আরও সুবিধা পেতে পারেন৷''

পেশেন্ট ব্লা়ড ম্যানেজমেন্ট-এর মূলমন্ত্র হলো, অপারেশনের আগে, অপারেশন চলাকালীন এবং অপারেশনের পর রক্তক্ষরণ বন্ধ করতে সবরকম চেষ্টা করতে হবে৷

যেমন এই লক্ষ্যে ডাক্তাররা অপারেশন চলাকালীন তথাকথিত ‘সেল সেভার' প্রয়োগ করতে পারেন৷ সেই যন্ত্র রোগীর রক্তক্ষরণের সময়ে রক্ত সংগ্রহ করে সেই রক্ত পরিশুদ্ধ করে আবার তার শরীরে ফিরিয়ে দেয়৷ অথবা তাঁরা রোগীর শরীর কম্বল দিয়ে ঢেকে উষ্ণ রাখার চেষ্টা করেন৷ গ্রাইফসভাল্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. গ্রেগর ইয়েনিখেন মনে করেন, ‘‘রোগীর শরীর উষ্ণ রাখার মাধ্যমে রক্ত জমাট বাঁধার মতো পরিস্থিতি এড়ানোর চেষ্টা করা যায়৷ তখন অপারেশনের সময় রোগীর কম রক্তক্ষরণ হয়৷''

কারণ শরীরের তাপমাত্রা ২৬ ডিগ্রির বেশি হলে প্লেটলেট ঠিকমতো কাজ করে এবং রক্তচাপ স্বাভাবিক থাকে৷ ফলে রক্তক্ষরণ প্রতিরোধ করা সম্ভব হয়৷ রক্তক্ষরণ ও অপ্রয়োজনীয় ব্লা়ড ট্রান্সফিউশন এড়াতে পারলে জার্মানির হাসপাতালগুলির সুবিধা হবে৷ ফ্রাংকফুর্ট শহরের বিজ্ঞানীরা ছোট আকারের লাইফ-সাপোর্ট যন্ত্র সৃষ্টি করেছেন, যা প্রয়োগ করলে কম রক্তের প্রয়োজন হয়৷ রক্ত সংরক্ষণের টিউবের আকার ছোট হলে অপারেশনের পরেও রক্তক্ষরণ এড়িয়ে চলা সম্ভব৷

নাদিন বেকার/এসবিউচ্চরক্তচাপ এক নীরব ঘাতক

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

বিজ্ঞাপন