1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
ছবি: Mortuza Rashed/DW

‘অনেক পোশাকশ্রমিক রাস্তায় ঘুরতাছে’

তায়েব মিল্লাত হোসেন ঢাকা
২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১

ইউরোপ-অ্যামেরিকা থেকে ফরমায়েশ আসে৷ পোশাক হয় বাংলাদেশে৷ করোনাময় সময়ে সেই ধারায় ধাক্কা লেগেছে৷ সেই ধাক্কায় পোশাক শ্রমিকদের কী অবস্থা ডয়চে ভেলেকে তা-ই জানিয়েছেন জাহানারা বেগম৷

https://p.dw.com/p/3py6i

ইউরোপ-অ্যামেরিকা থেকে ফরমায়েশ আসে৷ পোশাক হয় বাংলাদেশে৷ করোনাময় সময়ে সেই ধারায় ধাক্কা লেগেছে৷ সেই ধাক্কায় পোশাক শ্রমিকদের কী অবস্থা ডয়চে ভেলেকে তা-ই জানিয়েছেন জাহানারা বেগম৷

করোনাকালে লোকসানে পোশাক রপ্তানিকারকরা৷ তারও বেশি বিপাকে কর্মীরা৷ কেউ চাকরিহারা৷ কারওবা কমেছে আয়৷

প্রদীপের নীচে অন্ধকারের মতোই রাজধানী ঢাকার অভিজাত উত্তরার অদূরে অনভিজাত এক এলাকা দক্ষিণখান৷ অপরিকল্পিত নগরায়নের কারণে মিশ্র পরিস্থিতি৷ এলোমেলো বাড়ি, সড়ক, বাজারের পাশাপাশি বেশ কয়েকটি রপ্তানিমুখী পোশাক কারখানাও রয়েছে এখানে৷ এরমধ্যে অন্যতম চৈতী গ্রুপের প্রতিষ্ঠান৷ এখানে সিনিয়র অপারেটর হিসেবে কর্মরত জাহানারা বেগম৷ তার স্বামী অন্য এক পোশাক কারখানার কর্মী৷ দুজনের আয়ে স্কুলপড়ুয়া একমাত্র কন্যাকে নিয়ে ভালোই চলে যাচ্ছিল তাদের সংসার৷ কিন্তু করোনা ভাইরাস সব হিসেব এলেমেলো করে দিলো৷ সেই কথাই ডয়চে ভেলেকে বললেন জাহানারা৷ ‘‘আমাদের ফ্যাক্টরি থেকে ৯০ জনের চাকরি গেছে৷ এখন যারা আছে, তাদের ডিউটি কম৷ ওভারটাইম নাই, তাই বেতন কম৷ সবদিক দিয়েই তাদের খুব ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে৷ অনেক শ্রমিক রাস্তায় ঘুরতাছে৷ চাকরি-বাকরি নাই৷ অনেকের যে চাকরি চলে গেছে নেক্সট টাইম তারা আর চাকরি পাইতাছে না৷ শ্রমিকদের খুব দুর্দশা৷’’

‘কেউ দিনমজুরি করতাছে, কেউ রাজমিস্ত্রির জুগালোর কাজ করতেছে’

শ্রমিক ছাঁটাই বা বেতন বঞ্চনা- এ ধরনের বিষয়ে কারখানা মালিকদের দিকেই সাধারণত অভিযোগের আঙুল তোলা হয়৷ তবে এবার পরিস্থিতি ভিন্ন৷ তাই তো জাহানারা জানালেন, ‘‘মালিকরা বলে- আমরা তো কাজ আনতে পারতাছি না৷ বায়াররা আমাদের অর্ডার দিতাছে না৷ কী করে চালাবো? বায়াররা যদি অর্ডার দিতো, মাল যদি আবার এক্সপোর্ট করতে পারতাম, তাহলে আমরা শ্রমিকদের সন্তুষ্ট করতে পারতাম৷’’

এই ভাষ্য থেকে ধরে নিতে হয়, ভিনদেশি ক্রেতার সংকট দেখা দিয়েছে বাংলাদেশের পোশাকখাতে৷ বন্ধ হয়েছে কিছু রপ্তানিমুখী কারখানা৷ কোথাও কমানো হয়েছে লোকবল৷ যার কারণে চাকরি হারাতে হয়েছে পোশাক শ্রমিকদের৷ সিপিডির হিসেবে যেটা অন্তত সাড়ে তিন লাখ৷ নিশ্চিত করেই তাদের বিকল্প কর্মসংস্থান করতে হচ্ছে৷ চাকরি হারানো কিছু সহকর্মীর বিষয় জানালেন জাহানারা৷

ডয়চে ভেলেকে তিনি বলেছেন, ‘‘কেউ দিনমজুরি করতাছে৷ কেউ রাজমিস্ত্রীর জুগালোর কাজ করতেছে৷ কেউ রিকশা চালাইতাছে৷ এইভাবেই দিনগুলো চালাইতাছে৷’’

তারা কী আবার পোশাক কারখানায় ফিরতে চায়? এমন প্রশ্নে জাহানারা জানান, ‘‘হ্যা, তারা এখনো চেষ্টা করতেছে৷ কিন্তু কোনোখানে লোক নিতাছে না৷ নতুন নিয়োগ খুব কম৷ যাদের চাকরি গেছে তারা আর চাকরি ফেরত পায় নাই৷’’

চাকরিদাতাদের অবস্থানও জানালেন তিনি৷ ‘‘তারা বলে দেশের যে পরিস্থিতি, আমরা সেই পরিস্থিতির শিকার৷ আমগোর কাছে কিছু করার নাই৷’’

করোনাভাইরাস আসার পর মালিকপক্ষ, সরকার বা বিজিএমইএ কোনোভাবে পাশে দাঁড়িয়েছে পোশাক শ্রমিকদের? এ নিয়ে নিজের অভিজ্ঞতার বিবরণ দিলেন জাহানারা, ‘‘গার্মেন্টস লেভেলে কোনো শ্রমিক বিজিএমইএ বা সরকার থেকে কোনো সহায়তা পায় নাই৷ যখন এক মাস বন্ধ ছিল তখন ফুল বেতনটাও পাই নাই৷ শুধু ৬০ শতাংশ বেতন পাইছিলাম৷ আমাদের উত্তরা এলাকায় যতগুলো গার্মেন্টস আছে সবগুলোতে একই অবস্থা৷’’

অবস্থার ইতিবাচক কোনো পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে কিনা, জানতে চাইলে জাহানারা জানান, ‘‘পরিবর্তন আসবে যদি বায়াররা অর্ডার দেয়৷ আর যদি অর্ডার না দেয় তাহলে মালিকদের পক্ষে ফ্যাক্টরি চালানো সম্ভব না৷ আগের যে অর্ডারগুলো ছিল ওইগুলোর কাজ চলতাছে৷ নতুন করে কোনো অর্ডার পাইতাছে না মালিকরা৷’’

এদিকে করোনা আসায় পিপিই ও মাস্কের মতো স্বাস্থ্য উপকরণের বাজার প্রসারিত হয়েছে৷ এ ধরনের কাজে সম্ভাবনা কতটুকু- এমন প্রশ্নে এই পোশাককর্মী বললেন, ‘‘না, আমরা এ ধরনের কাজ পাচ্ছি না৷ পিপিই বা মাস্কের কোনো কাজ আমাদের গার্মেন্টস পায় নাই৷ হয়ত ছোটখাটো কোনো ফ্যাক্টরি পাইছে৷ কিন্তু আমাদের ফ্যাক্টরি পায় নাই৷ বড় গার্মেন্টস আমাদের এলাকায় একটাও পায় নাই৷ অন্য এলাকায়, আশুলিয়ার দিকে পাইতে পারে, কিন্তু আমাদের উত্তরার দিকে কেউ পায় নাই৷’’

তিনি আরো বললেন, ‘‘আমাদের এলাকায় তিন-চারটা ফ্যাক্টরি বন্ধ হয়ে গেছে৷ যেমন- শান্তা গ্রুপ বন্ধ হয়ে গেছে৷ ভার্সেটাইল বন্ধ হয়ে গেছে৷ একই মালিকের দুইটা গার্মেন্টস৷ একটা থেকে ৩০০-৪০০ লোক বাহির করছে৷ আর একটা টোটালি বন্ধ করে দিছে৷’’

আপাতত পোশাকখাতে সুদিন দেখতে পাচ্ছেন না জাহানারা৷ তিনি বলছিলেন, ‘‘যারা বেকার ছিল তারা এখনো রাস্তায় রাস্তায় ঘুরতাছে চাকরির জন্য৷ অন্য ফ্যাক্টরিতেও ঢুকতে পারতাছে না৷ নতুন লোক না নিলে তারা ঢুকবো কেমনে?’’

নিজের সাবেক সহকর্মীদের নিয়ে ভাবছেন জাহানারা৷ ভাবছেন নিজের ঘর নিয়েও৷ ভবনের নীচতলার বাসায় এক কক্ষ সাবলেট দিয়ে হলেও আছেন এই শহরে৷ কিন্তু ওভারটাইমের কাজ না ফিরলে আরো কম ভাড়ার বাসা খুঁজতে হয় কিনা সেই দুশ্চিন্তার কথাও জানালেন জাহানারা৷

স্কিপ নেক্সট সেকশন সম্পর্কিত বিষয়
স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

তুরস্কের কাহরামানমারাসে ভূমিকম্পে বিধ্বস্ত ভবন

তুরস্ক, সিরিয়ায় ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা ৩,৫০০ ছাড়িয়েছে

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান