অনলাইনে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে লড়াই কতটা কার্যকর | বিশ্ব | DW | 13.07.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জঙ্গিবাদ

অনলাইনে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে লড়াই কতটা কার্যকর

ইসলামিক স্টেট-এর উত্থানের সময় ভার্চুয়াল জগৎ থেকে উগ্র কন্টেন্ট সরাতে এবং সেসবের বিরুদ্ধে অবস্থান তুলে ধরতে বেশ কিছু উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল৷ সেসব উদ্যোগের কার্যকারিতা এখন প্রশ্নবিদ্ধ৷

ভার্চুয়াল জগৎ থেকে উগ্র কন্টেন্ট সরাতে বেশ কিছু উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল

ভার্চুয়াল জগৎ থেকে উগ্র কন্টেন্ট সরাতে বেশ কিছু উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল

জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস)-এর হামলা এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয়তায় তটস্থ যুক্তরাষ্ট্র এবং আরব দেশগুলো এক সময় জঙ্গিবাদবিরোধী প্রচারে সক্রিয় হয়েছিল৷

ওয়াশিংটনের সহায়তায় আরব বিশ্বে ২০১৫ সালে আত্মপ্রকাশ করেছিল সওয়াব সেন্টার৷ সংযুক্ত আরব আমিরাতের এ উদ্যোগের প্রধান উদ্দেশ্য ছিল অনলাইন এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয় থেকে আইএস-এর বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন জোট বাহিনির লড়াইকে সমর্থন জোগানো৷ হাতে গোনা কয়েকজন কর্মীর ছোট পরিসরের উদ্যোগ সওয়াব-এর জন্য বাজেট ধরা হয়েছিল ৬০ লাখ ডলার৷

যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেশনাল রিসার্চ সার্ভিসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, কোনো ব্যক্তির কাছ থেকে তার পরিবারের কোনো সদস্যের জঙ্গি ভাবাদর্শে উদ্বুদ্ধ হওয়ার খবর পেলে সেই তথ্য ইন্টারপোলকে সরবরাহ করেও জঙ্গিবাদ রোধে ভূমিকা রাখতো সওয়াব৷ ভার্চুয়াল জগতে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে আরেকটি উল্লেখযোগ্য উদ্যোগের নাম গ্লোবাল সেন্টার ফর কমব্যাটিং এক্স্ট্রিমিস্ট আইডোলজি বা এতিদাল৷ আরবি শব্দ এতিদালের অর্থ মধ্যপন্থা৷

২০১৭ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প আর সৌদি বাদশা সালমানের উদ্যোগে তা গড়া হয়৷ এর মাধ্যমে আরবে যুক্তরাষ্ট্রের মিত্রদেশগুলোতে, অর্থাৎ সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং কাতারে উগ্রপন্থার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে ইসলাম ধর্মের উদারতার প্রচার করাই ছিল এর লক্ষ্য৷ কিন্তু জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে এসব উদ্যোগকে কি এখন সফল বলা যাবে? সওয়াব-এর ইংরেজি এবং আরবি ভাষার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট অনুসরণ করেন ১৬ লাখেরও বেশি মানুষ৷ কিন্তু গত কয়েক মাসে তাদের অনেক ইউটিউব ভিডিও দশবারেরও কম দেখা হয়েছে৷ এতিদালের উদ্যোগগুলোও এখন আগের মতো প্রভাব বিস্তার করতে পারছে না৷ মডারেট নামের নতুন একটি উদ্যোগের ভিডিও কয়েকশ'র বেশি ভিউ পায় না- এমন দৃষ্টান্তও রয়েছে৷

ওয়াশিংটনভিত্তিক ব্রুকলিংস ইন্সটিটিউশন-এর নন-রেসিডেন্ট সিনিয়র ফেলো এরিক রোস্যান্ড বলেন, ‘‘বিশেষজ্ঞ মহল বুঝতে পারছেন, এতিদাল এবং সওয়াব এখন যেভাবে, যা করছে, বাস্তব পরিস্থিতি সেই তুলনায় বেশ বদলে গেছে৷ কিন্তু কিছু সরকার এখনো আগের অবস্থানেই রয়ে গেছে৷ তাই (উগ্র ভাবাদর্শের) কিছু শ্রোতা এখনো রয়ে গেছে৷

লুইস স্যান্ডার্স ফোর, টম অ্যালিনসন/এসিবি

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন