অধিকার আদায়ে মিয়ানমারের এক ভিক্ষুণীর লড়াই | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 03.09.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

মিয়ানমার

অধিকার আদায়ে মিয়ানমারের এক ভিক্ষুণীর লড়াই

নারীদের নিয়ে মিয়ানমারের বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের প্রচলিত ধ্যান ধারণাকে ভেঙ্গে দিতে চান একজন ভিক্ষুণী৷ তিনি মঠে আর সমাজে তাদের ভূমিকার পরিবর্তন আনতে চান৷ এজন্য বিপুল বাধাও তাকে অতিক্রম করতে হচ্ছে৷ 

মিয়ানমারে বৌদ্ধ ভিক্ষুদের কথা সবাই জানেন৷ কিন্তু দেশটিতে ৬০ হাজার ভিক্ষুণী আছে সে কথা কজনই বা জানেন৷ পুরষতান্ত্রিক সমাজে সেখানেও তারা বঞ্চনার শিকার হন৷ নানা ধরনের নির্যাতনের মধ্যে পড়েন৷ এই সব বিষয় নিয়েই উচ্চকিত ৪০ বছর বয়সী ভিক্ষুণী কেতুমালা৷

তিনি বলেন, ‘‘একজন পুরুষ ভিক্ষু যখন সন্ন্যাস যাপন শুরু করেন, মানুষ তখন তার প্রশংসা করে৷ ধর্মের জন্য তা ভাল বলে অভিহিত করা হয়৷ কিন্তু একজন ভিক্ষুণী যখন সন্ন্যাস গ্রহণ করেন তখন সবাই মনে করে তার কোন সমস্যা আছে৷''

দরিদ্র্য, বয়স্ক, অসুস্থ, তালাকপ্রাপ্ত কিংবা যারা অসহায় তারাই সাধারণত এই জীবন বেছে নেন বলে প্রচলিত ধারণা৷ যা ভেঙ্গে দিচ্ছেন কেতুমালা৷ বাগ্মীতা আর প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর হিসেবে এরিমধ্যে তিনি সবার কাছে পরিচিতি পেয়েছেন৷ প্রতিষ্ঠা করেছেন ধম্ম স্কুল ফাউন্ডেশন৷ দেশজুড়ে শিশুদের জন্য এই সংস্থাটির চার হাজার ৮০০ টি বৌদ্ধ শিক্ষা কেন্দ্র রয়েছে৷

তারপরও ভিক্ষুণীদের অবহেলা আর অশ্রদ্ধা চোখে দেখা হয় বলে আপশোস তার৷ বৌদ্ধ মঠে তারা যথাযথ সম্মান পান না৷ আবার বাইরে সাধারণ মানুষের কাছেও লাঞ্ছনার শিকার হন৷ এমনকি রাস্তাঘাটেও তাদেরকে হয়রানি করা হয়ে বলে উল্লেখ করেন তিনি৷ এই পরিস্থিতি বদলাতে চান কেতুমালা৷ আর সে কারণেই মিয়ানমারে ভিক্ষুণীদের জন্য স্বীকৃতি ও সম্মান আদায়ে লড়ে যাচ্ছেন তিনি৷

অবশ্য শুধু ধর্মীয় অঙ্গনেই নয়, মিয়ানমারে প্রতিটি ক্ষেত্রেই নারীদের অধিকার ও অংশগ্রহণের ঘাটতি রয়েছে৷ যেমন দেশটির রাজনৈতিক অঙ্গনের সর্বোচ্চ ব্যক্তি অং সান সুচি৷ কিন্তু জনপ্রতিনিধিদের মধ্যে নারীদের হার মাত্র সাড়ে দশভাগ৷ যদিও নভেম্বরের নির্বাচনের পর তা কিছুটা বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে৷

পুরুষতান্ত্রিক ধারণা এখনও ভীষণ প্রকট মিয়ানমারের পরিবার থেকে শুরু করে সমাজে৷ নারীরা সহিংসতার শিকার যেমন হচ্ছেন তেমনি আছে নানা কুসংস্কারও৷ যেমন, পরিবারে নারীদের কাপড়ের সঙ্গে পুরুষের কাপড় একসঙ্গে ধোয়া এখনও নেতিবাচক চোখে দেখা হয়৷ এর ফলে পুরুষরা তাদের পুরুষত্ব হারাবেন বলে বিশ্বাস করা হয়৷

অনেকে বৌদ্ধ স্থাপনা ও মন্দিরে নারীদের প্রবেশ নিষেধ৷ আবার পুরষ ভিক্ষুদের সামনেও তাদের বসা নিষিদ্ধ৷ সেগুলোর পরিবর্তন কেতুমালার একার পক্ষে সম্ভব নয়৷ কেননা, ‘‘ভিক্ষুণীদের বিষয়ে যাবতীয় সিদ্ধান্ত ভিক্ষুরাই নিয়ে থাকেন,’’ বলেন তিনি৷

এমনকি ধম্ম স্কুল ফাউন্ডেশনের যখন যাত্রা শুরু হয় তখনও তিনি কারো সহযোগিতা পাননি৷ কারণ উদ্যোগটি যতই ভালো হোক একজন ভিক্ষুণীর পরিকল্পনার পেছনে ভিক্ষুরা দাড়াতে চান না৷ এমনকি সেটি চালুর পর তাকে নির্বাহী পদে থাকতে দেয়া হয়নি৷ এক পর্যায়ে ব্যবস্থাপনার সমস্ত দায়িত্বই ভিক্ষুরাই নিয়ে নেন৷

জীবনের শুরুতে অবশ্য ধর্ম নিয়ে অতটা আগ্রহ ছিল না কেতুমালার৷ কিন্তু বৌদ্ধ ধর্মের দর্শন পড়ে পরবর্তীতে তিনি মুগ্ধ হন৷ বস্তুগত সাফল্যের চেয়ে মনকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারাই বড় অর্জন বলে উপলব্ধি করেন তিনি৷ তবে ভিক্ষুণী হওয়ার পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায় পরিবারও৷ বৌদ্ধ শাস্ত্রে দুইটি ডিগ্রি নিয়ে পরবর্তীতে নিজের ইচ্ছা পূরণ করেন কেতুমালা৷

মিয়ানমারসহ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায়বৌদ্ধদের ধর্মীয় প্রথার কারণে মঠে ভিক্ষুদের সমান অধিকার পাওয়া যে নারীদের পক্ষে সম্ভব নয় সেটি এখন স্বীকার করেন তিনি৷ তবে মিয়ানমারের কয়েক হাজার ধর্মীয় নারীর জীবনে পরিবর্তন আনতে চান তিনি, যাতে নিজেদের সামর্থ্যকে আরো ভালোভাবে কাজে লাগাতে পারেন তারা৷ ভিক্ষুণীদের ক্ষমতায়নের জন্য তিনি ২০১৬ সালে একটি প্রশিক্ষণ কর্মসূচি চালু করেন৷ নেতৃত্ব এবং ব্যবস্থাপনাসহ বিভিন্ন শাস্ত্রে ভিক্ষুণীদের দীক্ষা দিতে আলাদা একটি সংগঠন গড়ে তোলারও পরিকল্পনা রয়েছে তার৷

কেতুমালা বিশ্বাস করেন নারীদেরকে প্রান্তিক অবস্থান থেকে তুলে আনতে হলে শত্রু তৈরি করে লাভ নেই৷ বরং সমাজ কিংবা মঠের মধ্য থেকেই বন্ধু খুঁজে নিয়ে পরিবর্তনের সূচনা করতে হবে৷ তিনি যোগ করেন, ‘‘প্রতিক্রিয়াশীলরা সবখানেই আছে৷ আর তাই পরিস্থিতি নারীদের অধিকার নিয়ে কথা বলার খুব বেশি সুযোগ আপনাকে দিবে না৷’’

এফএস/কেএম (এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়