অক্সিজেনের সাহায্য ছাড়া এবার এভারেস্ট জয় করতে চান পিয়ালি | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 23.10.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

অক্সিজেনের সাহায্য ছাড়া এবার এভারেস্ট জয় করতে চান পিয়ালি

প্রথম ভারতীয় নারী হিসেবে অক্সিজেনের সাহায্য ছাড়াই ধৌলাগিরি শৃঙ্গ জয় করলেন পশ্চিমবঙ্গের পিয়ালি বসাক৷ এবার তার লক্ষ্য পৃথিবীর সর্বোচ্চ শৃঙ্গ এভারেস্ট জয় করা৷ কিন্তু আর্থিক প্রতিকূলতা এই স্বপ্নপূরণে বাধা হয়ে আছে৷

প্রথম ভারতীয় নারী হিসেবে অক্সিজেনের সাহায্য ছাড়াই ধৌলাগিরি শৃঙ্গ জয় করলেন পশ্চিমবঙ্গের পিয়ালি বসাক৷ এবার তার লক্ষ্য পৃথিবীর সর্বোচ্চ শৃঙ্গ এভারেস্ট জয় করা৷ কিন্তু আর্থিক প্রতিকূলতা এই স্বপ্নপূরণে বাধা হয়ে আছে৷

১ অক্টোবর পৃথিবীর সপ্তম উচ্চতম পর্বত ধৌলাগিরি শৃঙ্গ জয় করেন পিয়ালি বসাক

হুগলির চন্দননগরের স্টেশন থেকে হাঁটাপথ কাঁটাপুকুর৷ সেখানকার বসাক বাড়ির একটি ঘরে শোভা পাচ্ছে পর্বতের বিভিন্ন ছবি আর পুরস্কার৷ ২০১৯ সালে এই বাড়ি থেকেই পিয়ালি বসাক পৌঁছান মাউন্ট এভারেস্টের খুব কাছে৷ অর্থের অভাবে সেবার তার সাফল্য আসেনি৷ তবে বিস্তর বাধা ডিঙ্গিয়ে এবার তিনি পৌঁছে যান বিশ্বের সপ্তম উচ্চতম পর্বত ধৌলাগিরিতে৷ ১ অক্টোবর তিনি আট হাজার ১৬৭ মিটার উঁচু এই শৃঙ্গ জয় করেন৷ অক্সিজেনের সাহায্য ছাড়া এই পর্বত পাড়ি দেয়ার কৃতিত্ব পৃথিবীর খুব বেশি মানুষের নেই৷ এমনকি ২০১৬ সালে পশ্চিমবঙ্গের এভারেস্ট জয়ী রাজীব ভট্টাচার্যের মৃত্যু হয় ধৌলাগিরি জয় করতে গিয়ে৷ অত উচ্চতায় পৌঁছে গেলে মানব শরীরে অক্সিজেনের ঘাটতি থেকে নানা সমস্যার সৃষ্টি হয়৷ সেই বাধা পেরিয়ে পিয়ালির এই জয় পশ্চিমবঙ্গ তথা দেশের মুকুটে এক উজ্জ্বল পালক যোগ করেছে৷ এর আগে ২০১৮ সালে ভারতের প্রথম বেসামরিক নারী হিসেবে পৃথিবীর অষ্টম উচ্চতম শৃঙ্গ মানাসুলু জয় করেছেন পিয়ালি৷

অডিও শুনুন 06:12

আমার বিশ্বাস আছে, আমি এই অসম্ভবকে সম্ভব করতে পারব: পিয়ালি বসাক

পর্বতারোহণে ছোটবেলা থেকেই পরিবারের কাছ থেকে উৎসাহ পেয়ে আসছেন তিনি৷ কিন্তু বাবা শয্যাশায়ী হওয়ায় আর্থিক প্রতিকূলতা এখন তাদের রোজকার সঙ্গী৷ ক্রাউড ফান্ডিং ও ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে ২০১৯ সালে এভারেস্ট জয় করার পথে হাঁটেন পিয়ালি৷ কিন্তু পর্যাপ্ত অর্থ না থাকায় শেরপা সেবার তাকে সহযোগিতা করেননি বলে জানান তিনি৷ এভারেস্টের চূড়ার ৪০০ মিটার নীচ থেকেই তাই ফিরতে হয় তাকে৷ ধৌলাগিরি জয়ের পর এই তরুণী আবার এভারেস্টের পথে হাঁটতে চান৷ ‘‘৮ হাজার মিটারের উপর তিনটি শৃঙ্গ জয় করার অভিজ্ঞতা আমার আছে৷ তাই বিনা অক্সিজেনে মাউন্ট এভারেস্ট জয় করার আশা রাখছি,’’ বলেন পিয়ালি৷

বাস্তবিকই সেটা কি সম্ভব? এভারেস্ট জয়ী পর্বতারোহী বসন্ত সিংহ রায় বলেন, ‘‘৮ হাজারের বেশি উচ্চতায় ডেথ জোন তৈরি হয়৷ তবে বিনা অক্সিজেনে ১৯৭৮ সালে এভারেস্ট জয় হয়েছিল৷ তার মানে মানুষ যে বিনা অক্সিজেনে এভারেস্ট জয় করতে পারে, এটা প্রমাণিত৷ কিন্তু ভারতীয়দের তেমন অভিজ্ঞতা বা প্রশিক্ষণ ছিল না এতদিন৷ এটা খুব কষ্টকর ব্যাপার৷ কিন্তু অসম্ভব নয়৷’’

অডিও শুনুন 00:42

আর্থিকভাবে দুর্বল থাকায় আমরা মেয়ের সুষম আহারের দিকেও নজর দিতে পারি না: স্বপ্না বসাক

অধরা এভারেস্টকে জয় করার অদম্য ইচ্ছা একদিকে, অন্যদিকে আর্থিক প্রতিকূলতা৷ এ দুয়ের মধ্যে দোদুল্যমান এই পর্বতারোহীর ভবিষ্যত্‍৷ বসাক পরিবারে বড় মেয়ে পিয়ালিই রোজগারের প্রধান অবলম্বন৷ চন্দননগরের কানাইলাল বিদ্যালয়ের এই শিক্ষিকা বলেন, ‘‘আর্থিক বাধাই সবচেয়ে বড়৷ এতদিন পর্যন্ত কোনো সাহায্য পাইনি৷ পুরোটাই ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে এগোতে হয়েছে৷ ব্যাংকে ৩০ লক্ষ টাকার বেশি লোন হয়ে গিয়েছে৷ আর লোন পাব না৷ এগোনোর রাস্তা পুরোপুরি বন্ধ৷ বিনা অক্সিজেনে এভারেস্ট জয়ের জন্যেও যে প্রশিক্ষণ দরকার, সেটাও নেওয়ার সামর্থ্য নেই৷’’

সপ্তম শ্রেণিতে পড়ার সময় পিয়ালি পর্বতে চড়ার প্রশিক্ষণ নিতে যান৷ একদিকে সংসারের প্রতিকূলতা আর অন্যদিকে অভাব৷ এর মধ্যেই ভারসাম্য রেখে চলছিল বসাক পরিবার৷ পিয়ালির মা স্বপ্না বসাক বলেন, ‘‘আর্থিকভাবে দুর্বল থাকায় আমরা মেয়ের সুষম আহারের দিকেও নজর দিতে পারি না৷ উচ্চতার তুলনায় ১৩ কেজি কম ওজন মেয়ের৷ এভারেস্ট অভিযানের খরচ যেমন বেশি, তেমনই লাগে প্রশিক্ষণ৷ এসব কোথা থেকে আসবে?

অসম্ভবকে জয় করার জেদ নিয়ে পিয়ালি পারবেন কি আর্থিক প্রতিকূলতা জয় করতে? উজ্জ্বল চোখে এই তরুণী বলেন, ‘‘আমার বিশ্বাস আছে, আমি এই অসম্ভবকে সম্ভব করতে পারব৷ সরকার বা কোনো সহৃদয় ব্যক্তি যদি আমার সাহায্যে এগিয়ে আসেন, তাহলে আমি দেশের ও রাজ্যের মান আরো বাড়াতে পারব৷’’

নির্বাচিত প্রতিবেদন