1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

৯ নভেম্বর ১৯৮৯: একটি অবিস্মরণীয় দিন

একটা ঐতিহাসিক দিন, জার্মানদের নিজস্ব দিন - এবং সেই সঙ্গে আরো অনেক কিছু, বিশেষ করে সাবেক পূর্ব জার্মানির মানুষদের কাছে৷ কিন্তু ফেডারাল জার্মান প্রজাতন্ত্র এবং সেই সঙ্গে ইউরোপের পক্ষে দিনটার তাৎপর্য কম নয়৷

default

১৯৮৯ সালের ৯ নভেম্বরের সেই ঐতিহাসিক মুহূর্ত

১৯৮৯ সালের ৯ নভেম্বর৷ দিনটা ছিল এক আশ্চর্য দিন৷ সন্ধ্যায় সেই আমলা-মার্কা ঘোষণা, ‘এখন থেকে সবার যাতায়াতের স্বাধীনতা থাকবে'৷ সেখান থেকে শুরু করে সে'রাতে বার্লিন প্রাচীরের পতন অবধি মাত্র কয়েক ঘণ্টার মধ্যে জার্মান তথা ইউরোপীয়দের জীবন পাল্টে যায়৷ কম্যুনিস্ট শাসিত পূর্ব জার্মানি গণআন্দোলন আর পলায়নপর নাগরিকদের চাপে ভেঙে পড়ে৷ বার্লিন প্রাচীরের পতনের সঙ্গে সঙ্গে জিডিআর'এর অন্ত ঘটে - যদিও পুনরেকত্রীকরণ ঘটে তার এক বছর পরে৷ জিডিআর'এর অস্তিত্বেরই আর কোনো কারণ থাকে না - এক ওয়ারশ' জোটের সদস্যতা ছাড়া৷

তা সত্ত্বেও গর্বাচভ'এর নেতৃত্বাধীন সোভিয়েত ইউনিয়ন, এবং সেই সঙ্গে পূর্ব বার্লিনের ক্ষমতাসীন শাসকরা বলপ্রয়োগ করা থেকে বিরত থেকেছেন৷ বেইজিং'এর স্বর্গীয় শান্তির চত্বরে যেমনটা হয়েছে, তেমন কোনো ‘‘চৈনিক সমাধান'' পূর্ব জার্মানির ক্ষেত্রে প্রয়োগ করা হয়নি৷ ১৯৫৩ সালে পূর্ব জার্মানি, ১৯৫৬ সালে হাঙ্গেরি কিংবা ১৯৬৮ সালে চেকোশ্লোভাকিয়ার মতো ১৯৮৯ সালে পূর্ব জার্মানির স্বাধীনতা আন্দোলনকে নির্মমভাবে দমন করা হয়নি৷ বার্লিন প্রাচীরের পতন পুবের জার্মানদের শান্তিপূর্ণ বিপ্লবকে পূর্ণাঙ্গ করে৷

৯ নভেম্বর ছিল এক সুখের, আবেগের দিন৷ এ'দিনে সব বিস্মৃত, অবহেলিত অনুভূতি আবার ফুটে ওঠে: দু'তরফেই পুনর্মিলনের আকাঙ্খা; পুবের মানুষদের স্বাধীনতার আকাঙ্খা৷ জার্মানরা, বিশেষ করে বার্লিনের মানুষজন যেন ঘোরে ছিলেন৷ এমন এক আনন্দের অনুভূতি, যা আমাদের অনেককে কাঁদিয়ে ছেড়েছিল৷ সেই অনুভূতিই আমাদের বুঝিয়ে দেয় যে, ৪০ বছরের বিভাজনও দুই জার্মানির আত্মীয়তাবোধকে বিচ্ছিন্ন করতে পারেনি৷ এই প্রসঙ্গে মনে করা যেতে পারে উইলি ব্রান্ড'এর সেই চিরন্তন, অপরূপ কথাগুলি: ‘‘যা একসঙ্গে হবার কথা, তা'ই এখন একসঙ্গে হচ্ছে''৷ জার্মান কথাটা হলো ‘ওয়াকসেন', মানে গজিয়ে ওঠা, লতাপাতার মতো, প্রকৃতির মতো৷ সেই উদ্ভিন্ন জার্মান ঐক্যে কিন্তু জার্মানির প্রতিবেশীদের কোনো বিপদ ঘটেনি৷ ১৯৮৯'র শান্তিপূর্ণ বিপ্লব জার্মানিকে ইউরোপের কেন্দ্রে প্রতিষ্ঠিত করে৷

Alexander Kudascheff DW Chefredakteur Kommentar Bild

আলেক্সান্ডার কুডাশেফ

পুবের জার্মানদের বিদ্রোহ ছিল কম্যুনিস্ট একনায়কতন্ত্রের বিরুদ্ধে, যে ‘‘তত্ত্বাবধায়ক রাষ্ট্র'' সব কিছুকে নিয়মের জালে জড়িয়ে রাখে, বেঁধে রাখে৷ পুবের জার্মানরা বিদ্রোহ করেছিলেন এক উন্মুক্ত দেশের দাবিতে, যে দেশে মানুষজনকে আটকে রাখা হয় না৷ যে কারণে যাত্রার স্বাধীনতা ছিল তাদের একটি কেন্দ্রীয় দাবি৷ রাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রণ কমানোর দাবিটা অতো জোরালো ছিল না৷ যে কারণে ইতিহাসের একটি রসিকতা হলো এই যে, পুনরেকত্রিত জার্মানির রাজনৈতিক ডিএনএ'তে একটি ‘‘শক্তিশালী কল্যাণরাষ্ট্রের'' স্বপ্ন ওতঃপ্রোতভাবে জড়িত৷

৯ নভেম্বরের পর জার্মানি আরো বেশি প্রোটেস্টান্ট, আরো বেশি পূর্বমুখী, আদর্শবাদের দৃষ্টিকোণ থেকে আরো বেশি মধ্যমপন্থি এবং কম বিতর্কিত হয়ে উঠেছে৷ বলতে কি, জার্মানি যেন আরো বাম-ঘেঁষা হয়ে উঠেছে৷ এই জার্মানির প্রতিনিধিত্ব এবং শাসনের দায়িত্বে রয়েছেন সাবেক পূর্ব জার্মানির দুই নাগরিক: ইওয়াখিম গাউক এবং আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ জার্মানির অভ্যন্তরীণ ঐক্যও অনেক দূর এগিয়েছে, যদিও অনেকের কাছে তা এখনও দৃষ্টিগোচর নয়৷ সেই ঐক্যের সূচনা ঘটে ৯ নভেম্বর ১৯৮৯'র সুখস্মৃতিতে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়