1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

৭ই জানুয়ারি থেকে শুরু হচ্ছে এশিয়ান কাপ ২০১১

আসছে শুক্রবার অর্থাৎ ৭ই জানুয়ারি থেকে শুরু হতে যাচ্ছে এএফসি এশিয়ান কাপ৷ টুর্নামেন্ট চলবে ২৯ জানুয়ারি পর্যন্ত৷ আয়োজক দেশ কাতার৷ এবারের আয়োজকদের উচ্ছ্বাস পূর্ণ মাত্রায়, কারণ ২০২২ সালের বিশ্বকাপ ফুটবলও অনুষ্ঠিত হবে কাতারে৷

Logo, Asian, Cup, Qatar, 2011, এশিয়ান, কাপ, ২০১১, লোগো, জানুয়ারি, কাতার, এএফসি, ফুটবল, খেলা, ক্রীড়া, Sports, Football,

এশিয়ান কাপ ২০১১ এর লোগো

আসছে শুক্রবার অর্থাৎ ৭ই জানুয়ারি থেকে শুরু হতে যাচ্ছে এএফসি এশিয়ান কাপ৷ টুর্নামেন্ট চলবে ২৯ জানুয়ারি পর্যন্ত৷ আয়োজক দেশ কাতার৷ এবারের আয়োজকদের উচ্ছ্বাস পূর্ণ মাত্রায়, কারণ ২০২২ সালের বিশ্বকাপ ফুটবলও অনুষ্ঠিত হবে কাতারে৷

জার্মান ফুটবল দলের সাবেক গোলকিপার লুৎস ফানেনস্টিল প্রতিটি মহাদেশেই ফুটবল খেলেছেন, সে অভিজ্ঞতা তাঁর আছে৷ কাতারে এশিয়ান কাপ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি এখানে ফুটবল খেলা আয়োজন করা হয়েছে বেশ গোছানো পরিবেশে৷ এর কারণ হল আরব বিশ্ব অনেক দিন ধরেই ফুটবল খেলছে আর গত কয়েক বছরে দেশগুলো যথেষ্ট ভাল করছে৷ আমার মনে হয় এবারের এই টুর্নামেন্ট সবাই উপভোগ করবে৷'

এর আগে ২০০৭ সালে অনুষ্ঠিত হয়েছিল এশিয়ান কাপ৷ কাপ জিতেছিল ইরাক৷ খেলেছিল সৌদি আরবের বিপক্ষে৷ আয়োজক ছিল চারটি দেশ৷ ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড এবং ভিয়েতনাম৷ গতবারের প্রথম তিনটি স্থান অধিকারী দেশকে কোয়ালিফাই করতে হয়নি৷ দেশগুলো হচ্ছে ইরাক, সৌদি আরব, এবং দক্ষিণ কোরিয়া৷

এবারের উদ্বোধনী খেলায় দেখা যাবে স্বাগতিক দেশ কাতার এবং উজবেকিস্তানকে৷ ভারত অনেক দিন পর অংশগ্রহণ করছে এশিয়ান কাপে৷ ২৭ বছর পর৷ ভারতের কাছে আমাদের প্রত্যাশা কী ? সে সম্পর্কে বললেন, হিন্দুস্তান টাইমসের ফুটবল বিশেষজ্ঞ ধীমান সরকার৷ তিনি জানান, ‘‘আমার কাছে ভারতের এশিয়ান কাপে খেলতে যাওয়াটা একট বড় ব্যাপার৷ এরপরে যা-ই করবে ভারত তা হবে আমাদের জন্য বোনাস৷ আমরা এশিয়ান কাপে ২৭ বছর পর খেলতে যাচ্ছি৷ সাতাশ বছর অনেক দীর্ঘ সময়৷ বলা যেতে পারে, ভারত যখন শেষ এশিয়ান কাপে খেলতে গিয়েছিল তখন শচীন টেন্ডুলকারের নাম কেউ শোনেনি৷ এটা অনেকটা অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপ খেলতে যাওয়ার মত৷ তারা শেষ বিশ্বকাপ খেলেছিল ১৯৭৪ সালে এরপর আবার ২০০৬ সালে৷ এর মাঝে ছিল ২৮ বছরের একটা ব্যবধান৷ ভারতের ২০১১ সালে খেলতে যাওয়াটা আমার কাছে একটা বড় ব্যাপার৷''

প্রতিবেদন: মারিনা জোয়ারদার

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক