1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

৬০ তম বার্লিনালের সেরা পুরস্কার

‘বার্লিনালে' অর্থাৎ বার্লিন আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের সেরা পুরস্কার নিঃসন্দেহে স্বর্ণভালুক৷ এই পুরস্কারই এবার ছিনিয়ে নিল তুরস্কের ছবি ‘হানি’৷

default

তুরস্কের ছবি ‘হানি’র পরিচালক সেমিহ্ কাপ্লানগ্লু (ডানে)

এক বাবা ও ছেলের হৃদয়স্পর্শী ঘটনা নিয়ে আবর্তিত হয়েছে ‘হানি' ছবির কাহিনি৷ জার্মানি ও তুরস্কের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত ছবিটি পরিচালনা করেছেন সেমিহ্ কাপলানগ্লু৷ শান্ত ও ধীর লয়ের এই ছবির ঘটনা প্রবাহে ছড়িয়ে রয়েছে কাব্যিক মাধুর্য৷ তুরস্কের প্রত্যন্ত অঞ্চলের মধুচাষি এক পরিবারের গল্প ‘হানি’৷ বাবার সঙ্গে সঙ্গে মধু সংগ্রহে পাহাড়ি বন জঙ্গলে, ঘুরে বেড়ায় ৬ বছরের বালক ইউসুফ৷ কথা বলে কম৷ স্কুলে তার তেমন বন্ধু বান্ধব নেই৷ বাবাই একমাত্র বন্ধু৷ একদিন মধুর সন্ধান করতে গিয়ে গহিন জঙ্গলে ঢুকে আর ফিরে আসেননা বাবা৷ ছেলের কাছে যেন পৃথিবী ভেঙে পড়ে৷ ভাষা হারিয়ে ফেলে সে৷ এই ছবিতে কোনো সংগীত ব্যবহার করা হয়নি৷ সংলাপও কম৷ নৈসর্গিক নানা শব্দ তরঙ্গে প্রকাশ পেয়েছে আবেগ ও অনুভূতি৷ বিয়োগান্তক এই ছবিটিতে শিশু তারকা বোরা আলতাস-এর অভিনয় দর্শক ও জুরিদের মন ছুঁয়ে যায়৷ ‘‘সুটিং করার সময় একটি ভালুক মধুর সন্ধানে কাছে চলে এসেছিল৷ পরে অবশ্য সেটি চলে যায়৷ এখন সেই ভালুকটি এখানে৷’’ সেরা ছবির জন্য স্বর্ণ ভালুক পুরস্কার পেয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে এই মন্তব্য করেন পরিচালক সেমিহ্ কাপ্লানগ্লু৷

Eröffnung der Berlinale 2010 in Berlin Flash-Galerie

বার্লিনালে’কে ঘিরে ক’টা দিন বার্লিন ছিল উৎসবে মুখর

উল্লেখ্য ৪৬ বছর পর আবার একটি তুর্কি ছবি বার্লিনালে চলচ্চিত্র উৎসবে স্বর্ণ ভালুক পেল৷ ১৯৬৪ সালে মেতিন এর্কান পরিচালিত তুর্কি ছায়াছবি ‘ড্রাই সামার' এই চলচ্চিত্র উৎসবে জিতে নিয়েছিল স্বর্ণ ভালুক৷

বিতর্কিত পরিচালক রোমান পোলানস্কি সুইজারল্যান্ডে গৃহবন্দি থাকার কারণে বার্লিনালে উৎসবে না আসতে পারলেও তাঁর পুরস্কার পাওয়ার সম্ভবনার কথা আলোচিত হচ্ছিল উৎসব অঙ্গনে৷ রাজনৈতিক থ্রিলার ‘গোস্ট রাইটার’-এর জন্য সেরা পরিচালক হিসাবে রোমান পোলানস্কি পেলেন রৌপ্য ভালুক পুরস্কার৷ প্রাক্তন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর আত্মজীবনী লেখার জন্য নিয়োগ দেয়া হয় এক গোস্ট রাইটারকে৷ আর তাকে কেন্দ্র করেই এগিয়ে গেছে ছবির ঘটনা প্রবাহ৷ পুরস্কার গ্রহণ করেন ছবির প্রযোজক অ্যালেন সারডে৷

রাশিয়ান ছায়াছবি ‘হাউ আই এন্ডেড দিস সামার’-এ অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেতার পুরস্কার রৌপ্য ভালুক পেলেন যৌথভাবে গ্রেগরি ডব্রিগিন এবং সের্গেই পুসকেপালিস৷ এই ছবির ক্যামেরাম্যান পাভেল কস্টোমারভ সেরা শৈল্পিক কৌশলের জন্য পেয়েছেন পুরস্কার৷ যুদ্ধ বিরোধী ছবি ‘ক্যাটারপিলার’-এ অভিনয়ের জন্য সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার পেয়েছেন জাপানের শিনোবু টেরাজিমা৷

শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যের জন্য রৌপ্য ভালুক পেলেন চীনা চিত্রনির্মাতা ওয়াং কুয়ান তাঁর ‘অ্যাপার্ট টুগেদার’ ছবি জন্য৷ ছবিটিতে এক প্রেমিক যুগলের বিচ্ছেদ ও মিলনের কাহিনি তুলে ধরেছেন পরিচালক৷ চীন ও তাইওয়ানের বিভক্তির কারণে এই দুই প্রেমিক প্রেমিকাকেও বছরের পর বছর আলাদা থাকতে হয়েছে৷ জীবনের শেষ প্রান্তে তারা আবার পরস্পরের কাছাকাছি আসতে পারেন৷ওয়াং এই ছবিটি উৎসর্গ করেছেন একদা বিভক্ত বার্লিন নগরীর উদ্দেশে৷ উল্লেখ্য ৩ বছর আগে বার্লিনালে চলচ্চিত্র উৎসবে স্বর্ণ ভালুক জয় করেছিলেন পরিচালক ওয়াং কুয়ান৷

জুরি মন্ডলীর বিশেষ পুরস্কারে ভূষিত হয় রুমেনিয়া ও সুইডেনের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত চলচ্চিত্র ‘ইফ আই ওয়ান্ট টু হুইসেল, আই হুইসেল’৷

সেরা প্রথম ছায়াছবির জন্য ৫০ হাজার ইউরো অর্থ মূল্যের বিশেষ পুরস্কার দেয়া হয় বার্লিনালে উৎসবে৷ এবার এই পুরস্কারটি পেলেন সুইডেনের চলচ্চিত্র নির্মাতা বাবাক নাজাফি তাঁর ‘সেব্বে’ ছবির জন্য৷ সুইডেনের এক শহরতলীর দারিদ্র্য ও সমস্যাজর্জরিত পরিবারে বেড়ে ওঠা এক কিশোরকে নিয়ে আবর্তিত হয়েছে ছবির কাহিনি৷ পরিচালকের নিপুণ হাতে অন্ধকারাচ্ছন্ন এক সমাজের চিত্র স্পষ্ট হয়ে উঠেছে৷

বার্লিনালে ক্যামেরা দিয়ে পুরস্কৃত করা হয় জাপানের পরিচালক ও চিত্রনাট্যকার ইয়াজু ইয়ামাতাকে৷ ৮০টিরও বেশি ছবি নির্মাণ করেছেন বর্ষীয়ান এই সিনেমা ব্যক্তিত্ব৷

এবারের বার্লিনালে চলচ্চিত্র উৎসবে জার্মান চলচ্চিত্র নির্মাতাদের কোনো ছবি বড় রকমের পুরস্কার পায়নি৷ তবে সব মিলিয়ে এই চলচ্চিত্র উৎসব সফল হয়েছে বলে মনে করেন আয়োজকরা৷ এবারের বার্লিনালেতে রেকর্ড সংখ্যক দর্শকের উপস্থিতির কথা জানান উৎসব পরিচালক ডিটার কসলিক৷ ৩ লক্ষ দর্শক বিভিন্ন বিভাগে উপভোগ করেছেন ৪০০-এর মত ছায়াছবি৷

প্রতিবেদক: রায়হানা বেগম, সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়