1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

৫৭ ধারার নতুন কোপ, ছাগলের মৃত্যুতে হাজতবাস

তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারার সব মামলাকে ছাপিয়ে গেছে খুলনার ডুমুরিয়ার একটি মামলা৷ প্রতিমন্ত্রীর বিতরণ করা ছাগলের মৃত্যুতে স্ট্যাটাস দেওয়ায় গ্রেপ্তার হয়ে একদিন হাজতবাসে ছিলেন এক সাংবাদিক৷ বুধবার তিনি জামিন পেয়েছেন৷

default

আব্দুল লতিফ মোড়ল

২৯ জুলাই ডুমুরিয়ায় এফসিডিআই প্রকল্পের আওতায় প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর কিছু পরিবারের মধ্যে হাঁস, মুরগি ও ছাগল বিতরণ করে৷ ঐ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ৷ রাতেই বিতরণ করা একটি ছাগল মারা যায়৷ এরপর স্থানীয় দৈনিক প্রবাহের ডুমুরিয়া প্রতিনিধি আব্দুল লতিফ মোড়ল ‘প্রতিমন্ত্রীর সকালে বিতরণ করা ছাগলের রাতে মৃত্যু’ শিরোনামে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন৷

প্রতিমন্ত্রী বা তার দলের কেউ এতে ক্ষোভ প্রকাশ না করলেও ক্ষুব্ধ হন আরেক সাংবাদিক৷ স্পন্দন পত্রিকার ডুমুরিয়া প্রতিনিধি সুব্রত ফৌজদার তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় মামলা করেন ৩১ জুলাই৷ মঙ্গলবার এই মামলায় লতিফ মোড়লকে কারাগারে পাঠানো হয়৷ তবে বুধবার তিনি জামিন পান৷

মামলার বাদি সুব্রত ফৌজদার ডয়চে ভেলের কাছে অভিযোগ করেন, ‘‘ছাগল মরে গেছে এটা কোনো বিষয় নয়৷ বিষয় হলো ফেসবুক স্ট্যাটাসে মন্ত্রীর ছবি দিয়েছে৷ পরে ব্রেকিং নিউজও দেয়৷ সেখানে মৃত ছাগল, ছাগলের মালিকের ছবি দেয়া যেত৷ তা না করে মন্ত্রীর ছবি দিয়ে তাকে হেয় করা হয়েছে৷ যা আমাকে ক্ষুব্ধ করেছে৷ কারণ মন্ত্রী এলাকার উন্নয়নে অনেক কাজ করছেন৷ তা তাদের চোখে পড়ে না৷ তারা সব কিছুইতেই নেগেটিভ দেখে৷’’

অডিও শুনুন 01:14

‘বিষয় হল ফেসবুক স্ট্যাটাসে মন্ত্রীর ছবি দিয়েছে’

তবে সাংবাদিক হয়ে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা করায় পরে তার খারাপ লেগেছে বলেও জানান সুব্রত৷

তাঁরদাবি, ‘‘আমার সাথে ওই সাংবাদিকের ব্যক্তিগত কেনো শত্রুতা নাই৷ মন্ত্রীর অপমান হয়েছে বলেই মামলা করেছি৷ মামলার আগে মন্ত্রীর সঙ্গে কথা হয়েছে৷ তিনি বলেছেন, তোমরা যা ভালো মনে কর কর৷ তিনি আমাকে সরাসরি মামলা করতে বলেননি৷’’

তবে এই ফেসবুক স্ট্যাটাস বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে জানালেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ৷ তাঁর সাথে কথা বলেই মামলা হয়েছে, এমন তথ্যও ‘মিথ্যা’ বলে উড়িয়ে দিচ্ছেন তিনি৷

ডয়চে ভেলেকে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘‘আমি ডুমুরিয়ায় ছাগল ও হাঁস-মুরগি বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলাম৷ পুরো সময় ছিলাম না, টোকেন হিসেবে একটি ছাগল বিতরণও করেছি৷ তবে যে ছাগলটি বিতরণ করেছি সেই ছাগলটি মরে নাই৷ অন্য একটি ছাগল মরেছে৷’’

ফেসবুক স্ট্যাটাসের কারণে তাঁর মানহানি হয়েছে কিনা, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘আমি স্ট্যাটাসটি দেখিনি৷ খবরটিও দেখিনি৷ তাই আমার মানহানি হয়েছে কি হয় নাই তা বলতে পারবনা৷ যে ক্ষুব্ধ হয়ে মামলা করেছে তাকে জিজ্ঞেস করেন৷’’

অডিও শুনুন 01:06

‘আমার মানহানি হয়েছে, কি হয় নাই তা বলতে পারবনা’

‘বাদি আপনার সঙ্গে কথা বলার পর মামলা করেছেন’ – এর জবাবে তিনি বলেন, ‘‘আমার সাথে কথা বলে তিনি মামলা করেননি৷ আমার সাথে এ নিয়ে তার কোনো কথা হওয়ার প্রশ্নই ওঠে না৷’’

এদিকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বুধবার সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘এটি ৫৭ ধারার অপপ্রয়োগ৷ তুচ্ছ কিছু ঘটলো আর সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে গ্রেপ্তার করা হলো – এটি ৫৭ ধারার অপপ্রয়োগ৷ এ ধারা বাতিলের চেয়ে এর অপপ্রয়োগ বন্ধ করা দরকার৷’’ এ জন্য তথ্যমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ করা উচিত বলেও মন্তব্য করেন তিনি৷

তিনি বলেন, ‘‘সাইবার ক্রাইম নিয়ন্ত্রণের জন্য ৫৭ ধারা করা হয়েছিল৷ কিন্তু তুচ্ছ কারণে এর অপপ্রয়োগ করা হচ্ছে কিনা সেটি খতিয়ে দেখতে হবে৷ খুলনায় যে ঘটনা ঘটেছে তা দুঃখজনক৷’’

এদিকে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমসহ গণমাধ্যমেও তীব্র সমালোচনার মুখে পড়তে হচ্ছে এই মামলাকে৷ সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠনও এর প্রতিবাদে বিবৃতি দিয়েছে৷

সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী গত ছয় মাসে তথ্য-প্রযুক্তি আইনে মামলা হয়েছে ৩৯১টি৷ এ সব মামলায় আসামি করা হয়েছে ৭৮৫ জনকে, গ্রেপ্তার হয়েছেন ৩১৩ জন৷ এ সব মামলায় অধিকাংশই ৫৭ ধারায়৷ শুধু সাংবাদিকদের বিরুদ্ধেই ৫৭ ধারায় ছয় মাসে মামলা হয়েছে ১৯টি৷

প্রিয় পাঠক, আপনি কিছু বলতে চাইলে লিখুন নীচে মন্তব্যের ঘরে...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়