২১ আগস্ট হামলা: তারেক রহমানসহ সবার মৃত্যুদণ্ড চায় রাষ্ট্রপক্ষ | বিশ্ব | DW | 01.01.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

২১ আগস্ট হামলা: তারেক রহমানসহ সবার মৃত্যুদণ্ড চায় রাষ্ট্রপক্ষ

একুশে আগস্টের গ্রেনেড হামলার মামলায় তারেক রহমান ও সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরসহ সব আসামির মৃত্যুদণ্ড দাবি করেছে রাষ্ট্রপক্ষ৷ রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তিতর্কের শেষ দিনে এই আবেদন জানানো হয়৷

Tarique Rahman BNP Bangladesh (cc-by-Shamsul alam66)

ফাইল ছবি

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলায় আওয়ামী লীগের সভানেত্রী আইভি রহমানসহ ২২ জন নিহত এবং তখনকার বিরোধী দলীয় নেত্রী শেখ হাসিনাসহ আওয়ামী লীগের শতাধিক নেতা-কর্মী আহত হন৷ ঐ ঘটনায় হত্যাসহ দু'টি মামলা হয়৷ পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডে সাবেক ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের পাশে বিশেষ এজলাসে মামলা দু'টির বিচার চলছে৷ মামলা দু'টি হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে৷

রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান আইনজীবী অ্যাডভোকেট সৈয়দ রেজাউর রহমান ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘ওই হামলার উদ্দেশ্য ছিল শেখ হাসিনাকে হত্যা ও আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব শূন্য করা৷ হামলার আগে ঢাকায় ১০টি বৈঠক হয়৷ ষড়যন্ত্রমূলক বৈঠকগুলো তারেক রহমান ও তৎকালীন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, মুজাহিদ, আব্দুস সালাম পিন্টু, হারিস চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন৷ টাকা এবং গ্রেনেড আসে পাকিস্তান থেকে৷ পকিস্তানের জঙ্গি সংগঠন হিজবুল মুজাহিদিন-এর আব্দুল মজিদ বাট এই কাজে বাংলাদেশে অবস্থান করছিল৷ বাংলাদেশে হামলা চালায় জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদ-এর সদস্যরা৷''

অডিও শুনুন 03:40

‘আদালতে সাক্ষ্য-প্রমাণ দিয়ে তাদের অপরাধ প্রমাণ করতে পেরেছি’

তিনি বলেন, ‘‘এছাড়া সেই সময়ে গোয়েন্দা সংস্থা ও পুলিশের কয়েকজন এই ষড়যন্ত্রে অংশ নেন৷ তারা মামলার আলামত নষ্ট, মামলা না নেয়া এবং হামলার গেয়েন্দা তথ্য থাকার পরও শেখ হাসনার নিরাপত্তার কোনো ব্যবস্থা নেয়নি৷ এমনকি মামলাটির তদন্ত তারা ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা করেছিল৷''

পুলিশ নিজে বাদী হয়ে মামলা করে এবং জজ মিয়া নামে এক ব্যক্তিকে সাজানো জবানবন্দি দিতে বাধ্য করার মাধ্যমে মামলাটি ভিন্নখাতে নেয়ার চেষ্টা করে৷ ২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে মামলাটির নতুন করে তদন্ত শুরু হলে প্রকৃত ঘটনা প্রকাশ পায়৷ আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর সম্পূরক চার্জশিটে তারেক রহমান, হারিছ চৌধুরী, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরসহ ষড়ন্ত্রকারী হিসেবে আরো অনেকের নাম আসে৷ মামলায় মোট আসামি হয় ৪৯ জন৷

অ্যাডভোকেট সৈয়দ রেজাউর রহমান বলেন, ‘‘আমরা আদালতে সাক্ষ্য-প্রমাণ দিয়ে তাদের অপরাধ প্রমাণ করতে পেরেছি৷ তাই ৪৯ জন আসামিরই সর্বোচ্চ শাস্তি, অর্থাৎ মৃত্যুদণ্ড দাবি করেছি৷''

অডিও শুনুন 01:25

‘রাষ্ট্রপক্ষ আদালতে এই মামলা প্রমাণে ব্যর্থ হয়েছে’

অন্যদিকে আসামি পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সৈয়দ জয়নুল আবেদিন মেসবাহ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘৪৯ জন আসামির সবার বিরুদ্ধে অভিযোগ এক নয়৷ তাছাড়া ৫১১ জন সাক্ষীর মধ্যে ২২৫ জন সাক্ষীকে রাষ্টপক্ষ আদালতে হাজির করতে পেরেছে৷ এমনি এই মামলার প্রধান ‘ভিকটিম' তখনকার বিরোধী দলীয় নেত্রী এবং বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকেও তারা সাক্ষী হিসেবে আদালতে হাজির করতে পারেনি৷''

তিনি দাবি করেন, ‘‘প্রথমে এই মামলার বিচার শুরুর পর ৬১ জনের সাক্ষী নেয়া হয়৷ তারপর নতুন করে আবারো মামলার তদন্ত শুরু করে মামলাটিকেই ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করা হয়েছে৷ তদন্তই ভিন্ন খাতে নেয়া হয়েছে৷ আমি মনে করি, রাষ্ট্রপক্ষ আদালতে এই মামলা প্রমাণে ব্যর্থ হয়েছে৷''

আদালত সূত্র জানায়, পলাতক আসামিদের পক্ষের যুক্তি-তর্ক উপস্থাপন শেষ হলেই এই মামলার রায়ের জন্য দিন নির্ধারণ করা হবে৷

রাষ্ট্রপক্ষের দাবিকে কতটা যুক্তিযুক্ত মনে করেন আপনি? মন্তব্য লিখুন নিচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও